বাথরুমের দরজা খুলতেই মিলল ৩৫ রাসেল ভাইপার!

ঢাকা, শনিবার   ২৮ নভেম্বর ২০২০,   অগ্রহায়ণ ১৫ ১৪২৭,   ১১ রবিউস সানি ১৪৪২

বাথরুমের দরজা খুলতেই মিলল ৩৫ রাসেল ভাইপার!

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২২:৩০ ২৭ জুন ২০২০   আপডেট: ২২:৩৪ ২৭ জুন ২০২০

বাথরুমের ভেতরে এভাবেই ছিল বাচ্চাসহ রাসেল ভাইপার। ছবি: এএনআই।

বাথরুমের ভেতরে এভাবেই ছিল বাচ্চাসহ রাসেল ভাইপার। ছবি: এএনআই।

ফোঁস ফোঁস শব্দ শনাক্ত করতে বাথরুমের দিকে এগিয়ে গেলেন বাড়ির মালিক। বাথরুমের ভেতর দেখতে দরজা খুলতেই অসংখ্য সাপের ঠাসাঠাসি দেখে গা শিউরে উঠে তার। তাৎক্ষণিক বিপদ থেকে মুক্তি পেতে ডাক দেন সাপুড়েকে। এতেই রক্ষা পান সেই বাড়ির মালিক।

বৃহস্পতিবার ভারতের তামিলনাড়ুর কোয়েম্বাটুরের একটি বাড়ির বাথরুম থেকে একে একে ৩৫ টি রাসেল ভাইপার উদ্ধার করা হয়। শুক্রবার এসব তথ্য টুইটারে জানিয়েছে সংবাদ সংস্থা এএনআই

এনডিটিভির একটি প্রতিবেদনে জানা গেছে, সবার অগোচরে একটি রাসেল ভাইপার বাথরুমে আবাস গড়ে তুলে। সেখানে অনেক বাচ্চারও জন্ম হয়। বাথরুমে সাপগুলোকে দেখার পর মূরলী নামের সাপুড়ে আনা হয়। সাপুড়ে অনেক চেষ্টার পর মা রাসেল ভাইপারকে ধরতে সক্ষম হয়। পরে একে একে বাকি সাপের বাচ্চাগুলোকে বস্তাবন্দী করে সাপুড়ে। পরে সাপগুলোকে জঙ্গলে ছেড়ে আসে সে।

স্থানীয় ভাষায় এ সাপের জাতকে চন্দ্রবোড়া বলা হয়। রাসেল প্রজাতির সাপের বৈশিষ্ট্য হলো, এরা শরীরের ভেতরেই নিজেদের ডিম ফুটিয়ে বাচ্চার জন্ম দেয়। কিন্তু অন্য সাপেরা আগে ডিম দেয়, পরে তা দিয়ে বাচ্চা ফোটায়। জন্ম থেকেই রাসেল ভাইপার বিষাক্ত।

ভারত-বাংলাদেশসহ দক্ষিণ এশিয়ায় মহাবিপন্ন প্রাণীর তালিকায় রয়েছে রাসেল ভাইপার। অন্যান্য সাপ মানুষকে এড়িয়ে চলে। কিন্তু এ প্রজাতির সাপের স্বভাব ঠিক তার উল্টো। তাই এ জাতের সাপের কামড়ে প্রতিবছরই উল্লেখযোগ্য সংখ্যক মানুষ প্রাণ হারান। আক্রমণের ক্ষিপ্র গতি ও বিষের তীব্রতায় ‘কিলিংমেশিন' হিসেবে বদনাম রয়েছে সাপটির।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকেএ