Alexa বাংলাদেশে বেআইনিভাবে কাজ করবো না: দেব

ঢাকা, শনিবার   ১৪ ডিসেম্বর ২০১৯,   অগ্রহায়ণ ৩০ ১৪২৬,   ১৭ রবিউস সানি ১৪৪১

বাংলাদেশে বেআইনিভাবে কাজ করবো না: দেব

নাজমুল আহসান ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১০:২৩ ২৭ নভেম্বর ২০১৯   আপডেট: ১০:৩২ ২৭ নভেম্বর ২০১৯

দেব। ছবি : ডেইলি বাংলাদেশ

দেব। ছবি : ডেইলি বাংলাদেশ

বাংলাদেশ-ভারতের যৌথ প্রযোজনার সিনেমায় অভিনয় করলেও ঢাকাই ইন্ডাস্ট্রিতে দেখা যায়নি দেবকে। কিন্তু এবার বাংলাদেশি সিনেমায় কাজ করতে যাচ্ছেন তিনি; নাম ‘মিশন সিক্সটিন’। ছবিটি প্রযোজনা করছে শাপলা মিডিয়া। এদিকে সাফটা চুক্তির মাধ্যমে আগামী শুক্রবার সারাদেশে মুক্তি পাচ্ছে কলকাতার সিনেমা ‘পাসওয়ার্ড’। সিনেমাটির প্রচারণায় মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ঢাকা ক্লাবে সংবাদ সংম্মেলনে অংশ নেন সিনেমাটির নায়ক। সংবাদ সম্মেলনের পর সাংবাদিকদের মুখোমুখি হন দেব। সেখানকার চুম্বকাংশ তুলে ধরেছেন নাজমুল আহসান-

এই প্রথম বাংলাদেশি চলচ্চিত্রে অভিনয় করতে যাচ্ছেন, এ প্রসঙ্গে জানতে চাই-
 
বাংলাদেশের সিনেমায় অভিনয়ের ইচ্ছে ছিল। কিন্তু মনের মতো প্রস্তাব পাইনি। বেশিরভাগ প্রস্তাব ছিল যৌথ প্রযোজনার। কিন্তু আমি চাইছি কমপ্লিট বাংলাদেশের ছবি করতে। কারণ, দেশটির প্রতি আমার আজন্ম মুগ্ধতা। অবশেষে সুযোগটা এলো। শুটিং শুরু হবে শিগগিরই। পুরো টিম থাকবে বাংলাদেশের, আমি শুধু থাকবো কলকাতার।

‘মিশন সিক্সটিন’ সিনেমাটি প্রযোজনা করছে শাপলা মিডিয়া। প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানটির কর্ণধারের বিরুদ্ধে ক্যাসিনো ব্যবসার সঙ্গে যুক্ত থাকার অভিযোগ আছে। শাকিব খান নিজেই প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানটি ছেড়েছেন। সেখানে আপনার জন্য এই প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে কাজ করাটা কতটা সম্মানের হবে?

আমি যতদূর জানি এখানকার আইন বেশ শক্তিশালী। আমি সিনেমাপ্রেমী লোক, গল্পটা আমার বেশ ভালো লেগেছে। কাজ করতে বেশ ভালো লাগবে আশা করি। আমিও একটি দেশের পার্লামেন্ট সদস‌্য। আমি বাংলাদেশে বেআইনিভাবে কোনো কাজ করবো না।

গত ঈদে এখানে শাকিব খান অভিনীত ‘পাসওয়ার্ড’ শিরোনামের একটি সিনেমা মুক্তি পায়। ছবির নাম একই হওয়ায় সেন্সরবোর্ড আপনার ‘পাসওয়ার্ড’ আটকে দিয়েছে। তাই শুক্রবার ছবিটির মুক্তি নিয়ে আপনি কতটুকু নিশ্চিত?

আমি যখন ‘পাসওয়ার্ড’ সিনেমার কাজ শুরু করি তখন এটা জানা ছিল না যে- ঢাকায় শাকিব এই নামেই ছবি করছেন। আমার ছবিটিও যে বাংলাদেশে মুক্তি পাবে এমন কোনো পরিকল্পনা ছিল না। যাই হোক এটা আমার জন্য আনন্দের খবর এই দেশের মানুষরা আমার ছবিটি দেখবেন। আমার ছবির গল্প সম্পূর্ণ আলাদা। আশা করি সেন্সরের জটিলতা কেটে যাবে। দর্শকরা ভালো একটি ছবি দেখতে পাবে।

‘পাসওয়ার্ড’ চলচ্চিত্রের পোস্টার

যেখানে ‘পাসওয়ার্ড’ কলকাতায় সাফল্য পায়নি, আপনি কেন মনে করছেন ছবিটি এখানকার মানুষ দেখবে?

আমি বলিনি সিনেমাটি সাফল্য পাবে। যে কোনো অভিনেতা, প্রযোজক ও পরিচালক চেষ্টা করে মানুষ যাতে ছবিটি হলে গিয়ে দেখে। আমাদের বুড়ো আঙুলের তলায় পাঁচশটি চ্যানেল রয়েছে, চাইলেই যে কোনো ভাষার ছবি দর্শকরা দেখতে পারছে। তারপর তুলনা করতে হবে আমরা কোথায় আছি। আমরা যখন ভারতে বসে দেখি বাহুবলি আমাদের দেশেই নির্মাণ হচ্ছে, কিন্তু আমরা কেন বানাতে পারি না? তখন অনেক কষ্ট হয়। সে জন‌্য হয়তো আমি ‘হবু চন্দ্র গবু চন্দ্র প্রযোজনা’ করলাম। যখন ‘পাসওয়ার্ড’ ছবিটির টিজার দেখবেন তখন বুঝতে পারবেন ছবিটি কেন আমি প্রযোজনা করেছি।

আমরা যখন অন‌্যভাষার ছবিগুলো দেখি- কী সুন্দর কনসেপ্ট নিয়ে ছবি বানাচ্ছে, সেখানে আমরা অনেকটাই পিছিয়ে আছি। সব সময় যদি সাফল্য নিয়ে ভাবি তাহলে আমরা সারা জীবন রিমেক ছবিই করতে থাকবো। আমরা যদি সাহস না দেখাই তাহলে আমাদের ইন্ড্রাস্টি কখনো বড় হবে না। একই ধাঁচে, একই জায়গায় থেকে যাবো। সেই জায়গা থেকে বলবো, আগে হলে এগে ছবিটি মানুষ দেখুক। তারপর বিচার করুন ছবিটি ভালো না খারাপ। আর নিজের কাছেই আমার অনেক ছবি মনে হয়েছে ভালো হয়নি, কিন্তু বক্স অফিসে হিট হয়েছে। সব ছবির বিচার যদি বক্স অফিস দিয়ে হয় তাহলে কেউ সামনে এগোতে পারবে না।

যত দূর মনে হয়েছে- দক্ষিণী ছবি অভিমুন্ডুর সঙ্গে এই ছবির অনেকটাই কনসেপ্ট মিল রয়েছে!

ছবিটি আগে দেখুন। তারপর জানাবেন ছবিটি একই রকম কি-না। অথবা দক্ষিণী ছবির কোনো কনসেপ্টের সঙ্গে মিল রয়েছে কি-না।

ভারতীয় শিল্পীরা যত সহজে এখানে কাজ করতে পারেন, আপনাদের ওখানে বাংলাদেশি শিল্পীরা সেভাবে পারেন না। আপনার কাছে কি মনে হয়?

আমার কাছে এমন মনে হয়নি। বাংলাদেশের শিল্পীরা অনেক বেশি আমাদের বাংলায় কাজ করছেন। শাকিব খান, জয়া আহসান, আরিফিন শুভসহ অনেকেই তো করছেন। আমি চাই সামনে দুই বাংলার শিল্পীদের কাজের পরিমাণটা আরো বাড়ুক।

ডেইলি বাংলাদেশ/এনকে