Exim Bank
ঢাকা, শনিবার ২৩ জুন, ২০১৮
Advertisement

বাংলাদেশের ব্যবসায়ীদের লোভ বেশি: অর্থমন্ত্রী

 নিজস্ব প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২১:০৭, ১১ মার্চ ২০১৮

আপডেট: ১০:৫৬, ১২ মার্চ ২০১৮

২৪৩ বার পঠিত

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেছেন, আমাদের দেশের ব্যাবসায়ীরা ভ্যাট দিতে চায় না। নিজের পকেটে রেখে দিতে চান। তাদের লোভ বেশি। বিশ্বের কোথাও এটা নেই। কিন্তু বিনা মাশুলে ব্যবসা করা উচিৎ না। 


তিনি জানান, আগামী বাজেটে নতুন কাস্টম আইন কার্যকর করা হবে। ভ্যাটের (মূল্য সংযোজন কর) ক্ষেত্রেও নমনীয় হবে সরকার। আগামীতে ভ্যাটের স্তর হবে দুটি। এক স্তরে ১৫ শতাংশ অন্য এক স্তরে ১৫ শতাংশের নিচে ভ্যাট নির্ধারণ করা হবে।

রোববার অর্থ মন্ত্রণালয়ের সভা কক্ষে বিসিএস (ট্যাক্সেশন) অ্যাসোসিয়েশন এবং বিসিএস (কাস্টম এন্ড ভ্যাট) অ্যাসোসিয়েশনে নেতাদের সঙ্গে আলোচনা শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ সব কথা বলেন।

অর্থমন্ত্রী বলেন, বহুদিন ধরে নতুন কাস্টম কথা বলা হচ্ছে। এর জন্য কমিটিও হয়েছিল কিন্তু আইনটি এখনো হয়নি। আগামী বাজেটে কাস্টম আইন কার্যকর করার কথা ভাবা হচ্ছে।

বাংলাদেশে ১৯৬৯ সাল থেকে কাস্টম আইন কার্যকর রয়েছে। কিন্তু কর ফাঁকি রোধ এবং উত্তম সেবা দিতে বারবার সংশোধন করা হয়েছে কাস্টম আইন।

ভ্যাট আইনের বিষয়ে অর্থমন্ত্রী বলেন, আমাদের দেশের ব্যাবসায়ীরা ভ্যাট দিতে চায় না। নিজের পকেটে রেখে দিতে চান। তাদের লোভ বেশি। বিশ্বের কোথাও এটা নেই। কিন্তু বিনা মাশুলে ব্যবসা করা উচিৎ না।

তিনি বলেন, যুক্তরাজ্যে ৮ থেকে ১০ ধরণের ভ্যাট রয়েছে। এর মধ্যে কিছু পণ্যে উচ্চ ভ্যাট কিছু পণ্যে নিম্ন ভ্যাট ধরা আছে। আমাদের গড়ে ১৫ শতাংশ হারে ভ্যাট ধরা হয়েছিল। আগামীতে এখানে দুটি স্তরে ভ্যাট নির্ধারণ করা হবে।

অর্থমন্ত্রী বলেন, ৫০ হাজার ইলেকট্রনিক ক্যাশ রেজিস্টার (ইসিআর) যন্ত্র আনা হবে। যারা এ যন্ত্র ব্যবহার করবে তাদের ভ্যাটের ওপর ২ শতাংশ অর্থ ছাড়া দেয়া হবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এসআই

সর্বাধিক পঠিত