বধ্যভূমি থেকে শহীদদের নামফলক উধাও
SELECT bn_content.*, bn_bas_category.*, DATE_FORMAT(bn_content.DateTimeInserted, '%H:%i %e %M %Y') AS fDateTimeInserted, DATE_FORMAT(bn_content.DateTimeUpdated, '%H:%i %e %M %Y') AS fDateTimeUpdated, bn_totalhit.TotalHit FROM bn_content INNER JOIN bn_bas_category ON bn_bas_category.CategoryID=bn_content.CategoryID INNER JOIN bn_totalhit ON bn_totalhit.ContentID=bn_content.ContentID WHERE bn_content.Deletable=1 AND bn_content.ShowContent=1 AND bn_content.ContentID=118930 LIMIT 1

ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ০৬ আগস্ট ২০২০,   শ্রাবণ ২২ ১৪২৭,   ১৫ জ্বিলহজ্জ ১৪৪১

Beximco LPG Gas

বধ্যভূমি থেকে শহীদদের নামফলক উধাও

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২৩:০৭ ১২ জুলাই ২০১৯   আপডেট: ২৩:১১ ১২ জুলাই ২০১৯

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলে বধ্যভূমি থেকে শহীদদের নামফলক ভেঙে ফেলা হয়েছে। বুধবার রাতে নামফলকের পিলার ভেঙে নিয়ে গেছে দুর্বৃত্তরা।

এ ঘটনায় মুক্তিযোদ্ধাদের মধ্যে ক্ষোভ বিরাজ করছে। তাদের ধারণা বধ্যভূমির জমি নিয়ে বিরোধের জেরে এ ঘটনা ঘটানো হয়েছে।

উপজেলার চাকসার গ্রামের বাসিন্দা আবদুর রশিদ বলেন, রাসেল, বাবু মুন্সিসহ কয়েকজন ফলকটি ভেঙে নিয়ে গেছে।

উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড কাউন্সিলের সাবেক ডেপুটি কমান্ডার মো. আনোয়ার হোসেন বলেন, ১৯৭১ সালের ১৮ অক্টোবর উপজেলার চুন্টা সেনবাড়ির ২২ জনসহ সরাইল থানায় ও কালিকচ্ছ ক্যাম্পে আটক শতাধিক লোককে ধর্মতীর্থ নৌ ঘাটে লাইনে দাঁড় করিয়ে নির্মমভাবে হত্যা করে হানাদার বাহিনী।

মো. আনোয়ার হোসেন আরো বলেন, জায়গাটি বধ্যভূমি হিসেবে অনেক আগেই চিহ্নিত হয়েছে। এর আগেও এমন ঘটনা ঘটেছে। আমরা এ ঘটনার তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি।

সাবেক এ ডেপুটি কমান্ডার বলেন, ২০১৭ সালের মার্চে সাবেক এমপি অ্যাডভোকেট জিয়াউল হক মৃধার সহায়তায় বধ্যভূমিতে নামফলক স্থাপন করা হয়। ফলকে ৪৬ জন শহীদ মুক্তিযোদ্ধার নাম লেখা হয়।

সরাইলের ইউএনও এ.এস.এম মোসা বলেন, শহীদদের নামফলক ভাঙার বিষয়টি শুনেছি। কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেব।

ডেইলি বাংলাদেশ/এআর