ফের চীনের সেই বাজারে বিক্রি হচ্ছে বাদুড়-কুকুর-সাপ

ঢাকা, শুক্রবার   ০৫ জুন ২০২০,   জ্যৈষ্ঠ ২৩ ১৪২৭,   ১৩ শাওয়াল ১৪৪১

Beximco LPG Gas

ফের চীনের সেই বাজারে বিক্রি হচ্ছে বাদুড়-কুকুর-সাপ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১২:০৬ ২৯ মার্চ ২০২০  

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া করোনাভাইরাসের শুরু হয়েছিল চীনে। তবে এ ভাইরাস বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ছড়িয়ে পড়লেও এর প্রকোপ কমতে শুরু করেছে চীনেই প্রথম। যার ফলে দেশটি স্বাভাবিক জীবনযাত্রায় ফিরে আসছে।

এদেক এখনো প্রমাণিত না হলেও, মেডিকেল বিশেষজ্ঞদের সন্দেহ, করোনা ছড়ানোর পেছনে বাদুড়ের ভূমিকা থাকতে পারে। করোনার বিরুদ্ধে মোকাবিলার পর দেশটিতে ফের বাদুড় বিক্রি শুরু হয়েছে এবং মানুষ তা কিনে খাচ্ছেও বলে জানা গেছে।

রোববার ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম ডেইলি মেইল এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে।

ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, গত শনিবার থেকেই দেশটির দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের গুইলিনের বাজার চালু হয়েছে।  চালু হতেই বাজরে দেখা যায়, মরিচাপড়া খাঁচার ভেতরে আতঙ্কিত কুকুর, বিড়াল ও খরগোশ রাখা আছে বিক্রির জন্য। পাশের খাঁচায় রাখা আছে বাদুড়। বিক্রির জন্য রাখা আছে বিছা বা বিচ্ছু। খরগোশ, কুকুর, বিড়াল, হাঁসসহ অন্যান্য প্রাণী হত্যার পর মাংস কেটে কেটে আলাদা করা হচ্ছে বাজারের ভেতরেই। আর সেসব প্রাণীর রক্তে ভেসে যাচ্ছে দোকানঘরের পাকা মেঝে।

চীনে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার আগে যেভাবে বাদুড়সহ নানা ধরনের বণ্যপ্রাণী বিক্রি হতো এখন সে অবস্থা ফিরে এসেছে। বন্যপ্রাণী থেকে শুরু করে গৃহপালিত প্রাণী দেদারসে বিক্রি হচ্ছে। তবে করোনা মোকাবেলার সময় বণ্যপ্রাণী বিক্রির ওপর নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়েছিল।

ব্যাঙ বিক্রির জন্য দাড়িয় আছে একজন

ছবিগুলো তুলে পাঠিয়েছেন চীনে নিযুক্ত ডেইলি মেইলের সাংবাদিক। তিনি বলেছেন, এখানে সবাই বিশ্বাস করে যে করোনার প্রভাব চলে গেছে। এ নিয়ে আর ভয় পাওয়ার কিছু নেই। এটা এখন অন্য দেশের মানুষের সমস্যা।

এদিকে কয়েক সপ্তাহ লকডাউনে থাকার পর দেশের অর্থনীতি চাঙা করতে মানুষজনকে স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে বলছে চীন সরকার। গত সপ্তাহ থেকে চীনে সরকারি হিসেবে সেভাবে আক্রান্ত নেই বললেই চলে।

ডেইলি মেইলের আরেক সাংবাদিক চীনের দক্ষিণাঞ্চলের ডংগুয়ান এলাকার মাংস বিক্রির একটি বাজারের পাশে ফুটপাতের এক কবিরাজকে দেখেছেন। যিনি বিজ্ঞাপন দিয়েছেন, নানা রকমের সমস্যার প্রাকৃতিক ওষুধ হলো সাপ, ব্যাঙ, বাদুড়, টিকটিকি, আরশোলা, বিছা।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএএইচ