Alexa ফিটনেস সেরা ৩০ জনের মধ্যে শিল্পা শেঠি ও বিরাট কোহলি

ঢাকা, মঙ্গলবার   ২২ অক্টোবর ২০১৯,   কার্তিক ৭ ১৪২৬,   ২৩ সফর ১৪৪১

Akash

ফিটনেস সেরা ৩০ জনের মধ্যে শিল্পা শেঠি ও বিরাট কোহলি

জান্নাতুল মাওয়া সুইটি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১২:০২ ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৯  

ছবি: বিরাট কে

ছবি: বিরাট কে

শিল্পা শেঠির মেদহীন শরীরের গোপন রহস্য নিয়ে বিশ্বের মানুষের মধ্যে কৌতূহলের কমতি নেই। ৪২ বছর বয়সী এই অভিনেত্রীর শালরিক কসরত বহুল ইয়োগা ও ওয়ার্কওয়াট ইউটিউব ও ইস্টাগ্রমের বদৌলতে অনেকেরেই দেখার সৌভাগ্য হয়েছে। এছাড়াও বিভিন্ন গণমাধ্যমে দেয়া শিল্পার সাক্ষাৎকারে তিনি তুলে ধরেছেন নিজের ডায়েট প্ল্যানসহ সুস্থ থাকার বিভিন্ন টিপস। ফিটনেসপ্রেমী শিল্পা সম্প্রতি ফিটনেস সেরা ব্যক্তি গণনায় ৩০ জনের মধ্যে স্থান পেয়েছেন।

‘৩০ টপ হেলথ অ্যান্ড ফিটনেস ইনফ্লুন্সোর ইন ইন্ডিয়া’তে নির্বাচিত হয়েছেনন বলিউড অভিনেত্রী শিল্প শেঠি কুন্দ্রা এবং ভারতীয় ক্রিকেট স্কিপার বিরাট কোহলি। নিজ ক্ষেত্রে শীর্ষস্থানীয় শিল্পা ও বিরাট দু’জনেই ফিটনেস অনুরাগী এবং প্রায়ই ফিটনেস ভিডিও শেয়ার করে মানুষকে ফিট হতে এবং দৈনন্দিন জীবনে নিয়মিত শরীরচর্চা করার প্রেরণা দিয়ে থাকেন। এই দুই সেলেব্রিটি ছাড়াও প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিও এই লিস্টে আছেন। 

বিরাট কোহলিও বেশ ফিটনেস সচেতন। প্রতিনিয়ত সে তার অনুসারীদের শরীরচর্চা করতে উৎসাহিত করেন। এছাড়াও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতেও তিনি বেশ কিছু ভিডিও পোস্ট করেন যা যে কাউকে শরীরচর্চার প্রতি ও জিমে যাওয়ার ইচ্ছে এনে দেবে। শরীরচর্চার ভিডিও ছাড়াও বিরাট ও শিল্পা উভয়ই খাবারের প্রতি তাদের ভালোবাসা শেয়ার করতে পিছপা হন না। বাজিগর অভিনেত্রী শিল্পাও তার রন্ধনপ্রেমের জন্য পরিচিত, এটা ভুললে চলবে না। বিরাট বাড়িতে তৈরি কফি পছন্দ করেন।

অন্যদিকে, শিল্পা অনেক আগেই তার ইয়োগার ভিডিও দিয়ে সকলকে শরীরের প্রতি যত্নশীল নেয়ার তাগিদ দিয়েছেন। প্রায় সবসময়ই তিনি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে ফিটনেস ও ইয়োগা বিষয়ক তথ্য ও ভিডিও শেয়ার করে তার অনুসারীদের সাপোর্ট দিয়ে থাকেন। সদ্যই তিনি রেসিপি, ফিটনেস মন্ত্র এবং অন্যান্য কিছু ঘরোয়া টোটকা বিষয়ে "দ্য ডাইরি অফ এ ডোমেস্টিক ডিভা"নামে একটি বই প্রকাশ করেছেন।

কীভাবে তিনি এত বছর মানুষকে স্বাস্থ্য ও ফিটনেসের গুরুত্ব নিয়ে প্রেরণা দিয়েছেন এই বিষয়ে তিনি এএনআই এর একটি রিপোর্টে বলেছেন,"সত্যি বলতে নির্দিষ্ট কোনো কার্যপ্রণালী নেই, এটা শুধুই লেবেল রিডিং, চিবানো, নিঃস্বাস নেওয়ার দিকে ফোকাস করা এবং খাদ্য ও স্বাস্থ্য বিষয়ে মিথগুলো ভাঙার একটি পরিষ্কার অভিপ্রায়"। তিনি আরো বলেন "তথ্য প্রযুক্তির এই যুগে বিভিন্ন সাইটগুলো ব্যবহার করে আমি মানুষকে সঠিক পথে উৎসাহিত করতে চাই এবং কীভাবে জীবনযাত্রার কিছু বদল ঘটিয়েই আশ্চর্য ফল লাভ করা যায় তা বলতে চাই। যখন তারা পজিটিভ রিঅ্যাক্ট করেন এবং আমার প্রচেষ্টার প্রশংসা করেন তখন আমার খুব ভালো লাগে। এটাই আমার কাছে সব থেকে বড় পুরস্কার।"

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএমএস