ফাঁকা রাস্তায় বেপরোয়া গাড়ি

ঢাকা, মঙ্গলবার   ০৭ এপ্রিল ২০২০,   চৈত্র ২৪ ১৪২৬,   ১৩ শা'বান ১৪৪১

Akash

ফাঁকা রাস্তায় বেপরোয়া গাড়ি

শফিকুল বারী ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৮:৫৭ ১৯ মার্চ ২০২০   আপডেট: ২০:০৫ ১৯ মার্চ ২০২০

রাজধানীর যমুনা ফিউচার পার্কের সামনে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে আইল্যান্ডে উঠে যায় একটি বাস- ডেইলি বাংলাদেশ

রাজধানীর যমুনা ফিউচার পার্কের সামনে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে আইল্যান্ডে উঠে যায় একটি বাস- ডেইলি বাংলাদেশ

বিউগলের করুণ সুরে শেষ বিদায় জানানো হয়েছে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত রাজধানীর কাফরুল থানার সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) জাহাঙ্গীর আলমকে। তিনি বুধবার রাতে রাজধানীর শেওড়াপাড়ায় ছিনতাইকারীকে ধাওয়া করার সময় বেপোরোয়া বাসের চাকায় পিষ্ট হয়ে নিহত হন।

বিশ্বে সাম্প্রতিক  বিভীষিকা নভেল করোনার (কোভিড-১৯) কারণে দেশে স্কুল-কলেজ বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। করোনা আতঙ্কে ও লম্বা ছুটি পাওয়ায় অনেকেই রাজধানী ঢাকা ছাড়ছেন। এরইমধ্যে রাজধানীর সড়কে যান চলাচল কমে গেছে। আর এই ফাঁকা রাস্তায় চালকরা গাড়ি চালাচ্ছেন বেপরোয়া গতিতে। ফলে বাড়ছে সড়ক দুর্ঘটনা।

সরেজমিনে দেখা গেছে, রাজধানীতে ফাঁকা সড়কে সবচেয়ে বেশি বেপরোয়া বাস চলকরা। গতি তুলে প্রতিযোগিতায় নামছেন একে অপরের সঙ্গে। ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা, মোটরসাইকেল এমনকি বাইসাইকেল চালকরাও চলছেন বেপরোয়া গতিতে। এরমধ্যে গাবতলী থেকে যাত্রাবাড়ী রুটের ৮ নম্বর বাস, বসিলা থেকে আব্দুল্লাহপুর রুটের প্রজাপতি, মিরপুর রুটের বিহঙ্গ, রবরব পরিবহনসহ প্রায় সব বাসের চালকদের বেপোরোয়া গতিতে গাড়ি চালাতে দেখা গেছে। রাজধানীর বাসগুলো দেখলে অবাক হতে হয়, এই রঙচটা ও ভয়ঙ্কর কালো ধোঁয়া ছেড়ে চলা বাসগুলো চলছে কীভাবে!

এ বিষয়ে মিরপুর-১০ নম্বর গোলচত্ত্বরে থেমে থাকা প্রজাপতি পরিবহনের এক চালককে জিজ্ঞেস করলে তিনি কোনো মন্তব্য করেননি। তবে কামাল নামে ৮ নম্বর বাসের চালক জানান, করোনা আতঙ্কে যাত্রী সংখ্যা খুবই কম। কিন্তু দিন শেষে মালিককে টাকা জমা ঠিকই দিতে হবে। তাই যাত্রী পেতে এক স্টপেজ থেকে অপর স্টপেজ পর্যন্ত বাসগুলোর মধ্যে প্রতিযোগিতা লাগে। তবে তিনি স্বীকার করেন এধরনের প্রতিযোগিতা দুর্ঘটনার আশঙ্কা বাড়ায়।   

বুধবার রাতে খিলক্ষেতে ফ্লাইওভারে উঠার সময় দুই বাসের প্রতিযোগিতা করতে গিয়ে ফ্লাইওভারের রেলিং ভেঙে ফেলে একটি বাস। অল্পের জন্য রক্ষা পায় যাত্রীরা। বাস দু’টি পালিয়ে যায় বলে জানায় পুলিশ।

একই দিন রাতে শেওড়াপাড়ায় টহলে ছিলেন কাফরুল থানার এএসআই জাহাঙ্গীর আলম। তিনি খবর পান সামনেই ছিনতাই হচ্ছে। তিনি ছিনতাইকারীকে ধাওয়া করতে গিয়ে আগারগাঁও ক্রসিংয়ের দিক থেকে বেপরোয়া গতিতে আসা আলিফ পরিবহনের একটি বাসের চাকায় পিষ্ট হন। এ ঘটনায় ছিনতাইকারী বা ঘাতক বাসচালক কাউকেই আটক করতে পারেনি পুলিশ। তবে বাসটি আটক করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার দুপুর ২টায় মিরপুর পাবলিক অর্ডার ম্যানেজমেন্ট (পিওএম) এ তার নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। বিউগলের সুরে রাষ্ট্রীয় সম্মানে শেষ বিদায় জানানো হয় জাহাঙ্গীর আলমকে।

এ বিষয়ে কাফরুল থানার ওসি সেলিমুজ্জামান ডেইলি বাংলাদেশকে বলেন, এ ঘটনায় মামলা হয়েছে (নম্বর-২০,তারিখ ১৮/০৩/২০)। বাসটি আটক করা হয়েছে, তবে চালক পালিয়ে গেছে। দায়িত্ব পালন করার সময়ে তিনি নিহত হওয়ায় সরকার থেকে ক্ষতিপূরণ দেয়া হবে। এরমধ্যে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) থেকে নিহতের পরিবার পাবে ৫ লাখ টাকা। এছাড়া, আজ (বৃহস্পতিবার) মিরপুর জোনের ডিসির সঙ্গে কথা বলে আরো কীভাবে এএসআই জাহাঙ্গীরের পরিবারকে সহায়তা করা যায় সে ব্যবস্থা করা হবে।

বৃহস্পতিবার দুপুর দেড়টার দিকে মিরপুর-২ নম্বরের প্রশিকা মোড়ে একটি প্রাইভেটকারের সঙ্গে প্রতিযোগিতায় নামে একটি মোটরসাইকেল। একজন আরকেজনকে ওভারটেক করতে চাইলে ঘটে দুর্ঘটনা। ক্ষতিগ্রস্ত হয় দু’টি গাড়িই। যদিও চালকদের কেউই এ বিষয়ে থানায় অভিযোগ করেনি। নিজেরাই আপোষ মিমাংসা করে চলে যান।

এ বিষয়ে ট্রাফিক পুলিশের শেরে বাংলা নগর জোনের সহকারী কমিশনার (এসি) আবুল হোসেন বলেন, বেপরোয়া গতিতে গাড়ি চালনা প্রতিরোধে আমরা ক্রস পেট্রোলিং করছি। এমন কোনো গাড়ি পেলে পরবর্তী স্টেশনকে বেতারে জানিয়ে দেয়া হচ্ছে- ওই চালককে আইনের আওতায় আনতে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এসএএম/এমআরকে