‘প্লাজমা’ দিয়ে ভালোবাসার ঋণ শোধ করতে চান করোনাজয়ী আকাশ

ঢাকা, শনিবার   ১১ জুলাই ২০২০,   আষাঢ় ২৭ ১৪২৭,   ১৯ জ্বিলকদ ১৪৪১

Beximco LPG Gas

‘প্লাজমা’ দিয়ে ভালোবাসার ঋণ শোধ করতে চান করোনাজয়ী আকাশ

মুকুল কান্তি দাশ, চকরিয়া ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২০:২৪ ২৯ মে ২০২০  

খুব অল্পদিনেই চিকিৎসা নিয়ে সেরে উঠে পরিবার

খুব অল্পদিনেই চিকিৎসা নিয়ে সেরে উঠে পরিবার

পরিবাহসহ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হন এসএম আকাশ চৌধুরী। খুব অল্পদিনেই বাড়িতে আইসোলেশনে থেকে চিকিৎসা নিয়ে সেরে উঠে পুরো পরিবার। এ সময়ে পেয়েছেন প্রতিবেশীসহ সবার মমতা ও ভালোবাসা। আর এই ভালোবাসার ঋণ শোধ করতে চান করোনায় আক্রান্তদের শরীরের প্লাজমা দিয়ে।    

কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলার কাকারা ইউপির এসএম চরের বাসিন্দা তিনি। বাবা বশির আহমদ সওদাগর, মা মর্শিদা বেগম। ছোটবোন কক্সবাজার সরকারি কলেজের একাউন্টিং দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী।

এসএম আকাল চৌধুরী বলেন, চলতি মাসের ৩ মে থেকে আমার শরীরে জ্বর, সর্দি শুরু হয়। এরপর থেকে বাড়িতে একটি রুমে একা থাকতে শুরু করি। ৯ মে চকরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গিয়ে করোনাভাইরাসের নমুনা দিয়ে আসি। ১১ মে আমার করোনা পজিটিভ রেজাল্ট আসে। চকরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. আতিকুর রহমান বিষয়টি আমাদের নিশ্চিত করেন। 

এরপর ডা. মোহাম্মদ শাহবাজ প্রেসক্রিপশনে আমাদের কিছু ওষুধ লিখে দেন। ওই ওষুধগুলো ফার্মেসি থেকে কিনে খেতে থাকি। পাশাপাশি ঘরোয়া টোটকা যেমন-গরম পানির বাপ, ঘনঘন রং চা থেকে শুরু কে গরম পানি খেতে থাকি। একপর্যায়ে আমাদের শারীরিক অবস্থা উন্নতি হলে ২৪ মে আবার টেস্ট করি। ২৭ মে আমার নেগেটিভ রেজাল্ট আসে। সর্বশেষ ২৮ তারিখ আমার বাবা-মা ও বোনেরও নেগেটিভ রেজাল্ট আসে। তবে আমার দুটো টেস্টেই নেগেটিভ রেজাল্ট আসে। 

তিনি বলেন, আক্রান্ত হওয়ার প্রথম দিকে আমরা খুব ভেঙে পড়েছিলাম। এ সময় স্থানীয় এমপি জাফর আলম ও কাকারার চেয়ারম্যান শওকত ওসমান আমার খবরাখবর নিয়েছেন। আমাদের পরিবারের সমস্ত দায়িত্ব তারা পালন করেছেন। যখন যা লাগে তাই দিয়েছেন। পাশাপাশি পাড়া-প্রতিবেশি ছাড়াও বন্ধু-বান্ধবরা সাহস দিয়েছেন। তাদের অকৃত্রিম ভালোবাসা ও দোয়ায় আমরা খুব দ্রুত সুস্থ হয়ে উঠেছি। তবে আমার আব্বা-আম্মার জন্য খুব চিন্তিত ছিলাম। কারণ মার হাঁপানির সমস্যা ছিলো। বাবার বয়সও ছিলো বেশি। 

এদিকে, সুস্থ হওয়ার পরপরই ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেন আকাশ চৌধুরী। তিনি ওই স্ট্যাটাসের মাধ্যমে অসুস্থ করোনা আক্রান্তদের তার শরীরের প্লাজমা দান করার আগ্রহ প্রকাশ করেন। এরপরই ভাইরাল হয়ে যায় ওই স্ট্যাটাস। তাকে বিভিন্নজন বিভিন্নভাবে ধন্যবাদ দিতে তাকে।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেডএম