প্রসূতি নারীদের বড় তক্তা দিয়ে পিষে গর্ভপাত করানো হতো

ঢাকা, সোমবার   ০১ জুন ২০২০,   জ্যৈষ্ঠ ১৯ ১৪২৭,   ০৯ শাওয়াল ১৪৪১

Beximco LPG Gas

নরকখ্যাত ক্যাম্প ২২ (পর্ব- ১)

প্রসূতি নারীদের বড় তক্তা দিয়ে পিষে গর্ভপাত করানো হতো

সাতরঙ ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১২:৪৮ ৩ অক্টোবর ২০১৯   আপডেট: ১৭:০১ ৩ অক্টোবর ২০১৯

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

পৃথিবীতে বিদ্যমান এক নরক, যেখানে কেউ একবার প্রবেশ করলে আর বের হতে পারে না। এই নরকেই মানুষকে কুকুর বিড়ালের মত দেখা হতো না।

উত্তর কোরিয়ার উত্তর পূর্ব সীমান্তে হোয়ের ইয়ং কাউন্টিতে ২২৫ বর্গ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে এই নরকের অবস্থান। চারদিকে পাহাড়ে ঘেরা এই ক্যাম্প ১০ ফুট চওড়া ৩ হাজার ৩০০ ভোল্টের বৈদ্যুতিক বেড়া দিয়ে আবৃত। কঠোর নিরাপত্তা এবং ক্যাম্প পরিচালনার জন্য প্রায় এক হাজার অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত এবং প্রশিক্ষিত কুকুরসমেত পাহারাদার এবং ৫০০ থেকে ৬০০ কর্মকর্তা রয়েছে। কিছু দূর পর পর ল্যান্ড মাইন এবং মানুষ মারার গোপন ফাঁদ রয়েছে। 

মানুষকে ব্যবহার করে ভয়াবহ সব পরীক্ষা নিরীক্ষা করানো হতো। প্রসূতি নারীদের সরাসরি পেট কেটে ভ্রূণ বের করে ফেলা হতো, কখনো বা বড় তক্তা দিয়ে পিষে পিষে গর্ভপাত করানো হতো ৮ থেকে ৯ মাসের প্রসূতিকে! যেখানে অভুক্ত শিশুরা এক কণা খাদ্যের জন্য প্রহরীর লাথি খেয়ে পচা ডোবায় পড়ে মরে। নারীদের নৃশংসভাবে ধর্ষণ ও নির্যাতন করে মেরে ফেলা এ তো ছিল প্রতিদিনের বিষয়।

স্যাটেলাইট থেকে তোলা ক্যাম্প ২২ এর ছবিউত্তর কোরিয়ার Haengyong Concentration Camp-কে ক্যাম্প ২২ বলা হয়। এখানে সেসব মানুষকে মৃত্যুর মুখে ঠেলে দেয়া হয় যারা রাজনৈতিক সমালোচনা বা রাজনৈতিক ‘অপরাধী’। আরো ভালোভাবে বলতে গেলে উত্তর কোরিয়ার Great Leader–দের বিরুদ্ধে কোনো সমালোচনা বা রাষ্ট্রদ্রোহিতা করলেই অপরাধী নিজে তো জেলখানায় যাবেই, তার সঙ্গে ৩ প্রজন্মকেও জেলখানায় পচতে হতো, এমনকি জেলখানায় জন্মানো শিশুটিও নিস্তার পেত না!

প্রায় ৫০ হাজার নারী পুরুষ ও শিশুবন্দী ছিল বলে জানা যায়। এরকম ভয়াবহ নরক উত্তর কোরিয়ায় আরো রয়েছে। এসব ক্যাম্পের বন্দীদের দিয়ে চাষবাস থেকে শুরু করে কারখানার কাজও করানো হয়। উত্তর কোরিয়ার অর্থনীতির একটা বিশাল অংশ জুড়ে রয়েছে এই ক্যাম্পগুলোর শিল্পোৎপাদন। পাঠকের মনে প্রশ্ন আসতেই পারে- এত কঠোর নিরাপত্তার পরও বহির্বিশ্বের মানুষ কীভাবে এই ক্যাম্পগুলোর অস্তিত্ব এবং এর কর্মকাণ্ড কীভাবে জানতে পেরেছে? চলুন জেনে নেই সেসব মানুষের কাছ থেকে যারা এক সময় এই ক্যাম্পে কর্মী হিসেবে ছিলেন এবং কেউবা পালিয়ে এসেছেন সেই নরক থেকে।

উত্তর কোরিয়ার স্বৈরশাসক Kim Il Sung এবং Kim Jong Il তাদের বিরোধীদের দমনের জন্য এই ক্যাম্প তৈরি করেছেন। বহির্বিশ্ব এবং দেশের মানুষের অগোচরে নিরিবিলি সব জায়গায় তৈরি করেছেন এসব জেলখানা যেখানে হতভাগা অপরাধীকে পরিবার এবং বংশসহ নিশ্চিহ্ন করে দেয়া হয়। পৃথিবীর ইতিহাসে এমন বর্বরতার নজির খুব কম। কিন্তু সেই কঠোর নিরাপত্তাকে খুব সহজেই ভেদ করেছে স্যাটেলাইট। চলুন দেখে নেই স্যাটেলাইটের তোলা কিছু ছবি।

ডেভিড হক নামক এক মানবাধিকার গবেষক ক্যাম্প ২২ নিয়ে ব্যাপক গবেষণা করেন। তিনি ক্যাম্পের কিছু প্রাক্তন পাহারাদার এবং পালিয়ে আসা বন্দিদের কাছ থেকে বেশ কিছু সাক্ষাৎকার নেন। ম্যাং চল নামক এক প্রহরী গুগল আর্থের তোলা ছবিগুলো দেখে প্রত্যেকটি ভবন এবং সেসব ভবনের কাজ কর্ম থেকে শুরু করে কী ধরণের নির্যাতন করা হতো সব কিছুর বর্ণনা দেন।

ধারালো ছুরি দিয়ে কাটা হচ্ছে বন্দীর মাথাডিটেনশন সেন্টার দেখিয়ে বলেন, কেউ যদি একবার এখানে ঢোকে, তবে তিন মাসের মাঝে মারা যাবেই। আর না মারা গেলেও সারা জীবনের জন্য অথর্ব হয়ে যাবে। কাজে গাফলতি কিংবা সারাদিনের বরাদ্দ কাজ যদি কোনো বন্দী শেষ করতে না পারে, তবে প্রথমবারের জন্য তার খাবার বন্ধ করে দেয়া হয়। একই কাজ যদি সে তৃতীয়বার করে, তবে তাকে সরাসরি ডিটেনশন সেন্টারে পাঠিয়ে দেয়া হয়। আর ডিটেনশন সেন্টার মানেই সাক্ষাত মৃত্যু।

কিম ২ সাং ইন্সটিটিউট দেখিয়ে তিনি বলেন, এটা অফিসারদের সিনেমা হল এবং পাশেই গার্ড ট্রেনিং সেন্টার। একটি ময়লা ফেলার পচা ডোবা দেখিয়ে বলেন, এই পচা পুকুরে ২টি শিশুর মৃত্যু হয় গার্ডের লাথিতে কারণ তারা ছোট্ট এক টুকরা নুডুলস নিয়ে কাড়াকাড়ি করছিলো। এখানে গার্ডদের ট্রেনিং এর সময় বলা হতো, ক্যাম্পের বন্দীরা মানুষ নয়, তাদের সাথে কুকুর বিড়ালের মতো আচরণ করতে হবে। আর গার্ড চাইলেই যেকোনো বন্দীকে যখন খুশি মেরে ফেলতে পারবে। এ ব্যাপারে কোনো জবাবদিহি করতে হবে না। 

কখনো কখনো এমন হয়েছে, কোনো বন্দীকে তলবের পর তার আসতে খানিক দেরি হয়েছে বা দুর্বলতায় ধীর পায়ে হেঁটে এসেছে, এই অপরাধের জন্য গার্ড সেই বন্দীকে মেরে ফেলেছে। ক্যাম্পের বন্দীদের কাছে মৃত্যু খুব স্বাভাবিক একটি ঘটনা। কারণ প্রতিদিন কেউ না কেউ চোখের সামনে মারা যায়। তবে মৃতদের মাঝে শিশুদের সংখ্যাই বেশি। হতভাগা শিশুদের বাবা মাও জানতে পারে না কখন কোথায় তাদের আদরের সন্তানটি মারা গেছে। সেখানে মরাকান্নাও নিষিদ্ধ। ম্যাং চলের ভাষ্যমতে, প্রতি বছর প্রায় ২ হাজারের অধিক বন্দী মারা যায়। কখনো গার্ডের হাতে, কখনোবা অতি পুষ্টিহীনতায় কিংবা নির্যাতনের কারণে।

প্রতিদিনই মানুষ মারা হতক্যাম্পগুলোতে বন্দীদের অমানবিক পরিশ্রম করানো হতো। চাষের ক্ষেত থেকে শুরু করে খনি এবং ফ্যাক্টরিগুলোতে সপ্তাহে ৭ দিন দৈনিক ১৫ ঘন্টা কাজ করতে হতো। গ্রীষ্মে সকাল ৫টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত কাজ করতে হয়। ছুটির দিন বলতে বছরের প্রথম দিন। অবশ্য ২০০৩ সালের পর কিম জন উনের জন্মদিন উপলক্ষে ক্যাম্পগুলোতে ৪ দিন সরকারি ছুটি ঘোষণা করা হয়। এতটাই ‘মহান’ নেতা কিম! এক রুমে ১০০ জন করে বন্দী থাকতো। সবাই গণ টয়লেট যা কখনোই পরিষ্কার করা হতো না। বড় কাজ শেষে তারা শুকনো পাতা দিয়ে পরিষ্কার হত। যেসব বন্দীরা ভালোভাবে কাজ করে, তারা মাঝে মাঝে পরিবারের সঙ্গে থাকার সুযোগ পেত। থাকার জন্য ছোট্ট রুম বরাদ্দ থাকে, যাকে রুম না বলে খুপরি বলা চলে।

আর খাবারদাবার বলতে দিনে ২ বার ১৮০ গ্রাম পরিমাণ ভুট্টা দেয়া হতো। কোনো ধরণের সবজি কিংবা মাংসের ছোঁয়া পেত না বন্দীদের জিহ্বা। বন্দীরা অবশ্য হাতের কাছে যা পেত তারই মাংস খেতো, যেমন ইঁদুর, সাপ এবং ব্যাং যখন যা খুঁজে পেত। তবে প্রহরীদের চোখে পড়লে বেশ বিপদে পড়তে হতো বেচারাদের। তাই কখনো কখনো ইঁদুরের পচা মাংস কিংবা চামড়া না ছাড়িয়েই খেতো যাতে প্রহরীরা দেখতে না পায়। এতে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয় শিশুরা। ১০ বছর বয়স হওয়ার আগেই অনেক শিশু পুষ্টিহীনতায় মারা যায়।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএমএস