পৃথিবীর মধুরতম শব্দ ‘মা’  

ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ০৪ জুন ২০২০,   জ্যৈষ্ঠ ২১ ১৪২৭,   ১১ শাওয়াল ১৪৪১

Beximco LPG Gas

পৃথিবীর মধুরতম শব্দ ‘মা’  

 প্রকাশিত: ১৬:০৫ ১০ মে ২০২০   আপডেট: ১৬:০৫ ১০ মে ২০২০

নব্বইয়ের দশকের অন্যতম কবি বীরেন মুখার্জী। পেশা: সাংবাদিকতা। পাশাপাশি গল্প, প্রবন্ধ, উপন্যাস রাজনৈতিক কলাম লিখে চলেছেন একাধারে।  তার আগ্রহের অন্যতম বিষয় ‘মুক্তিযুদ্ধ’ এবং ‘লোকঐতিহ্য’। সম্প্রতি মনোযোগ দিয়েছেন চলচ্চিত্র নির্মাণে। তার নির্মিত স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র ‘ঘোর’ বেশ প্রশংসিত হয়েছে।

একটি অক্ষরের একটি শব্দ ‘মা’, অথচ এই শব্দটিই পৃথিবীর সবচেয়ে মধুরতম শব্দ। এই একটি শব্দে সমস্ত ভালোবাসা-আবেগ এসে মিলিত হয়েছে। 

আমাদের সমাজে নানা রকম সম্পর্কের বেড়াজাল রয়েছে। সম্পর্কের বাঁধন ছিন্ন করে কেউ দূরে চলে গেলে কিংবা মানুষে মানুষে দূরত্ব তৈরি হতেও পারে; কিন্তু ‘মা’-এর স্নেহ-ভালোবাসার বন্ধন কখনো ছিন্ন হয়েছে- এমন দৃষ্টান্ত পৃথিবীতে বিরল। মা একটি সন্তানকে দশ মাস দশদিন গর্ভে ধারণ করেন। অসহ্য যন্ত্রণা ভোগ করে সন্তানকে পৃথিবীর আলো দেখান। আবার সেই মা-ই সন্তানকে নানা প্রতিকূল পরিস্থিতির সঙ্গে যুদ্ধ করে একটু একটু করে বড় করে, পরিপূর্ণ মানুষ করে তোলেন। ফলে মায়ের অবদান যে কত বড় এবং গুরুত্বপূর্ণ তা কিছুতেই লিখে শেষ করার নয়। 

একটি শিশুর জন্ম থেকে শুরু করে তার বড় হয়ে ওঠা পর্যন্ত সময়কালটি আবর্তিত হয় মাকে ঘিরে। প্রকৃতির নিয়ম হচ্ছে নারী হবে মা। এটি নারীর প্রকৃতিগত প্রাপ্তি। নারীর মা হওয়া তার জীবনের সর্বাপেক্ষা গুরুত্বপূর্ণ পর্যায়। একটি সদ্যজাত শিশুকে বুকের দুধ খাওয়ানো থেকে শুরু করে তাকে তিল তিল করে বড় করে তোলার দায়িত্বটি পরম যত্ন ও নিষ্ঠার সঙ্গে পালন করেন মা। যে মা সন্তানকে দশ মাস গর্ভে ধারণ করেন, ভূমিষ্ঠ হওয়ার পর অপরিসীম মায়া-মমতায় পৃথিবীর বুকে ধীরে ধীরে বড় করে তোলেন, মানুষের কোনো ভাষাতেই, কোনো কথাতেই বুঝি সেই মায়ের অবদানের পূর্ণ পরিচয় তুলে ধরা যায় না। মা তো মা-ই। মা’র কোনো তুলনা হয় না। শ্রদ্ধা, সম্মান, ভক্তি, সেবা, ভালোবাসা দিয়ে মা’র দানের হয়তো কিছুটা প্রতিদান দেয়া যেতে পারে। এরপরও ‘মা-এর ঋণ কখনো শোধ হবার নয়’।

‘পথের ক্লান্তি ভুলে স্নেহ ভরা কোলে তব
মাগো, বলো কবে শিতল হবো
কত দূর আর কত দূর বল মা
আঁধারের ভ্রুকুটিতে ভয় নাই,
মাগো তোমার চরণে জানি পাবো ঠাঁই,
যদি এ পথ চলিতে কাঁটা বেঁধে পায়
হাসিমুখে সে বেদনা সবো ॥’

উপরোক্ত গানটি পর্যালোচনা করলেই বুঝতে পারা যায়, মা-এর অবদান। মূলত এ পৃথিবীতে মায়ের সঙ্গে সন্তানের সম্পর্কের চেয়ে মধুর সম্পর্ক আর নেই। নদীর মতো প্রবহমান মানুষের জীবন। নদী প্রবাহ যেমন থেমে থাকে না, মানুষের জীবনও সেরকমই। জীবনের চলার পথে মানুষ এগিয়ে যেতে থাকে। এ চলমান জীবনের একটি পর্যায়ে নারী এসে পুরুষের সাথে বিবাহের অচ্ছেদ্য বন্ধনে বাঁধা পড়ে। জীবনের নতুন দিগন্ত উন্মোচিত হয়। প্রেম-ভালোবাসা-সংসারের দিনযাপন আর অভিজ্ঞতার পথ বেয়ে পুরুষ হয় পিতা আর স্ত্রী হয় মা। মাতৃত্ব হচ্ছে নারীর চিরন্তন রূপ। সে মাতৃত্বের সার্বিক প্রকাশ ঘটে তার সন্তানকে লালন করার মধ্যে। এক বা একাধিক সন্তানকে ঘিরে রচিত হয় স্নেহ-মমতা-ভালোবাসায় মায়ের এক নতুন পৃথিবী। পিতা-মাতার জীবনের সব আশা-আকাঙ্ক্ষা, অপূর্ণ স্বপ্ন সন্তানদের ঘিরে ভবিষ্যতের পথে অগ্রসর হয়। 

সভ্যতার শুরু থেকেই মানুষকে মায়ের প্রতি শ্রদ্ধাশীল দেখা যায়। সব কালে, সব দেশে চিরকালই মায়ের ভূমিকা এক ও অভিন্ন। প্রতিটি মা’ই সন্তানের প্রতি যেমন যত্নবান তেমনি তার অমঙ্গলের ব্যাপারে শঙ্কিত। সভ্যতার আদি যুগে পুত্র যখন জঙ্গলে শিকার করতে গেছে তখন উদ্বিগ্ন মা তার পথ চেয়ে বসে থেকেছেন। পরবর্তীতে সন্তান যখন লড়াই করতে গেছে তখন মায়ের বুক শঙ্কায় দুর দুর করেছে। আধুনিক যুগে সন্তান যখন পড়াশোনা করতে দূর দেশে গেছে বা যায়, তখন মমতাময়ী মা তার ফেরার আশায় দিন গোনেন। এখন সংসারে একটু সচ্ছলতা আনার আশায় ছেলে যখন হাজার হাজার মাইল দূরের দেশে চাকরি নিয়ে চলে যায় তখন ফোনে তার কণ্ঠ শোনার জন্য ব্যাকুল হয়ে থাকেন মা। পৃথিবীর সব দেশের মা’ই সন্তানের মৃত্যুতে বুক চাপড়ে কাঁদেন, তার আহাজারিতে ভরে ওঠে আকাশ-বাতাস। কোনো প্রলোভন দিয়েই কোনো মাকে তার সন্তানের বিরুদ্ধে কোনো ক্ষতিকর কাজে লিপ্ত করানো যায় না। সন্তান বড় হলেও তার জন্য প্রয়োজনে নিজের জীবন দিতেও দ্বিধা করেন না কোনো মা।

বিশ্বের নামী-দামী, ক্ষমতাধর ব্যক্তিরা নিজের মা সম্পর্কে অনেক কথা বলেছেন। মা কে বসিয়েছেন পৃথিবীর সর্বোচ্চ সম্মানিত স্থানে। আমাদের জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মা-কে নিয়ে অসামান্য অনুভূতি ব্যক্ত করেছেন। তিনি বলেছেন- আমার মায়ের নাম সায়েরা খাতুন। তিনি কোনো দিন আমার আব্বার সঙ্গে শহরে থাকতেন না। তিনি সম্পত্তি দেখাশোনা করতেন, আর বলতেন, ‘আমার বাবা আমাকে সম্পত্তি দিয়ে গেছেন যাতে তার বাড়িতে আমি থাকি। শহরে চলে গেলে ঘরে আলো জ্বলবে না, বাবা অভিশাপ দেবে।’ আবার আব্রাহাম লিংকন বলেছেন, ‘যার মা আছে সে কখনই গরীব নয়।’ আমাদের কবি-সাহিত্যিকরাও মায়ের প্রতি শ্রদ্ধা-ভক্তি-ভালোবাসা জানাতে রচনা করেছেন শত শত কবিতা। আমাদের জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম ‘মা’ কবিতায় মায়ের যে অপরূপ ছবিটি এঁকেছেন তা অতুলনীয় : 

‘যেখানেতে দেখি যাহা
মা-এর মতন আহা
একটি কথায় এত সুধা মেশা নাই,
মায়ের মতন এত
আদর সোহাগ সে তো
আর কোনখানে কেহ পাইবে ভাই!’

কবি কাজী কাদের নেওয়াজ ‘মা’ কবিতায় বলেছেন-

‘মা কথাটি ছোট্ট অতি কিন্তু জেনো ভাই
ইহার চেয়ে নাম যে মধুর ত্রিভুবনে নাই।’ 

কবিদের কলমের আঁচড়ে মায়ের যে রূপটি ফুটে উঠেছে তা মিষ্টি-মধুর, চিরচেনা। শুধু কবিতা বা সাহিত্যেই নয়, পৃথিবীর সকল ধর্মেও মাকে যথাযথ সম্মান দেয়া হয়েছে। বলার অপেক্ষা রাখে না, সেকালে বা অতীতে প্রায় সব মা’ই অশিক্ষিত ছিলেন। আর আজকের এ ডিজিটাল বিশ্বেও অনেক মা’ই নিরক্ষর। কিন্তু শিক্ষা বা অশিক্ষার সঙ্গে মাতৃস্নেহের কোনো সম্পর্ক নেই। মায়ের স্নেহ ফল্গুধারার মতো স্বতঃউৎসারিত এবং অফুরন্ত সম্পদ। ধনী বা দরিদ্র অবস্থার ওপরও মায়ের স্নেহ-ভালোবাসা নির্ভর করে না। মা সর্বংসহা ধরণীর মতোই সন্তানকে শত বিপদে সন্তানকে আগলে রাখেন।

সবশেষে বলা যায়, মানুষের জীবনে যার ভূমিকা অতুলনীয়, তিনি হলেন আমাদের মা। সন্তানকে ঘিরে যে মায়ের স্বপ্নময় ভুবন, সেই মা-ও এক সময় বার্ধক্যে উপনীত হন। সন্তানের জীবনে ততদিনে কাক্সিক্ষত নারী বা পুরুষের আগমন ঘটে, সেখানে সূচিত হয় জীবনের বাড়-বাড়ন্ত। কিন্তু তারপরও মা যে মা, সেই মা-ই থেকে যান। সন্তানের মঙ্গল-অমঙ্গল, কল্যাণ-অকল্যাণের চিন্তা-উদ্বেগ তখনো তাকে ঘিরে থাকে। বলা দরকার, বিশ্বের সব দেশে সব মা-ই এক, কিন্তু আমাদের বাংলাদেশের মায়েরা যেন তারপরও আলাদা। মনে হয়, আমাদের মায়েরা সন্তানের জন্য বুকের সবটুকু স্ন্নেহ ভালোবাসা নিঃশেষে উজাড় করে দেন। বাঙালি মায়েরা শাড়ির আঁচলে সন্তানকে ঢেকে রাখেন। মা নিজের ঘুম, সুখ বিসর্জন দিয়ে মাটির চুলায় ছেলেকে দু’মুঠো ভাত রেঁধে দিতে ব্যস্ত হয়ে পড়েন। মা সন্তানের জন্য কী করেছেন, কীভাবে মুখে তুলে খাইয়েছেন, মল-মূত্র নির্দ্বিধায় পরিষ্কার করেছেন, অসুস্থতায় না ঘুমিয়ে না খেয়ে সন্তানের সেবা করেছেন, কচি হাত ধরে পা পা করে হাঁটতে শিখিয়েছেন, স্কুলে নিয়ে গিয়েছেন, রোদ-বৃষ্টি-ঠাণ্ডা সহ্য করে ছুটি না হওয়া পর্যন্ত ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষা করেছেন- এসব কোনো সন্তানেরই ভুলে যাওয়ার কথা নয়, ভুলে যাওয়াও ঠিক নয়। তাই প্রতিটি সন্তানেরই উচিত মাকে যথাযথ সম্মান প্রদর্শন করা। বিশেষ করে বার্ধক্যে সব-সময় মায়ের পাশে থাকা। প্রতিটি সন্তানেরই এটা মনে রাখা উচিত যে তার জীবনের প্রথম উচ্চারিত শব্দ ‘মা’। পৃথিবীতে ‘মা-এর জয় হোক- এটাই প্রত্যাশা।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরআর