হেঁটে চবি ছাত্রের ৬৪ জেলা!

ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ০৯ এপ্রিল ২০২০,   চৈত্র ২৭ ১৪২৬,   ১৬ শা'বান ১৪৪১

Akash

হেঁটে চবি ছাত্রের ৬৪ জেলা!

রুমান হাফিজ, চবি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১২:০৮ ৪ ফেব্রুয়ারি ২০২০   আপডেট: ১৯:৩১ ৪ ফেব্রুয়ারি ২০২০

ছবিঃ ডেইলি বাংলাদেশ

ছবিঃ ডেইলি বাংলাদেশ

রাগিব শাকিল। পড়ছেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের মনোবিজ্ঞান বিভাগে। গ্রামের বাড়ি পঞ্চগড়। ঘোরাঘুরির শখ বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির পর থেকেই। একেবারে শুরুর দিকে বন্ধুদের সঙ্গে এখানে ওখানে ঘুরতে যাওয়া। সেখান থেকেই পুরো দেশ ভ্রমণের ইচ্ছা। নানা কারণে একসঙ্গে ঘুরতে যাওয়া হচ্ছিলো না। ঘোরাঘুরির নেশা যে পেয়ে বসেছে পুরোপুরি, সেটা কিভাবে থেমে যাবে? এরপর থেকেই একা একা ভ্রমণ শুরু।

প্রথমদিকে একা ভ্রমণে ভয় করলেও কয়েক জায়গায় যাওয়ার পর ভয়টা কেটে গেলো। এখন একা ভ্রমণ সয়ে গেছে। একটা দুইটা করে ঘুরতে ঘুরতে ৬৪ জেলা ভ্রমণ শেষের পথে।

কেমন ছিল ভ্রমণের গল্পটা..

৬৪ জেলা ভ্রমণের অভিজ্ঞতার কথা কোনদিন বলে শেষ করার মতো না। রাগিব বলছিলেন, বাংলাদেশ অনেক সুন্দর। সম্ভবপর প্রতিটি জেলার সব উপজেলা ঘোরার চেষ্টা করি। মিশতে চেষ্টা করি সব শ্রেণির মানুষদের সঙ্গে। সব জেলার সংস্কৃতি নিয়ে ছোট্ট একটা গবেষণার কাজও করছি। ৬৪ জেলার বিভিন্ন হেরিটেজ সাইটগুলো নিয়েও গবেষণার কাজ করছি। ভ্রমণের পাশাপাশি ছবি তুলতেও পছন্দ করি। ৬৪ জেলা ভ্রমণ শেষে ক্যাম্পাসে ছোট্ট পরিসরে একটি ‘একক ছবি প্রদর্শনী’ করার ইচ্ছা আছে।

অনুপ্রেরণায় যারা:

৬৪ জেলা ভ্রমণ চলমান থাকা অবস্হায়ই বন্ধু শমীক বসু (পূষন) আমাকে পরিচয় করিয়ে দেয় বেসক্যাম্প বাংলাদেশের ব্রান্ড আ্যাম্বাসেডর ও ক্রসকান্ট্রি হাইকার মো. শাহাদত হোসেন সরকার ভাইয়ের সঙ্গে। শাহাদত ভাই বাংলাদেশের চারটা রুটই হেঁটে ভ্রমণ করেছেন। উনার সঙ্গে হেঁটে দেশ ভ্রমণের ব্যাপারে কথা বলার পর আমি আরো অনুপ্রাণিত হই। এরপর খুব ক্ষুদ্র পরিসরে শুরু করে দেই ভ্রমণ।

পদব্রজে স্বদেশ ঘুরি:

বিগত দিনগুলোতে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ‘পদব্রজে স্বদেশ ঘুরি’ স্লোগানকে ধারণ করে অনেক জায়গায় হেঁটে গেছেন রাগিব। এরমধ্যে উল্লেখযোগ্য- চট্টগ্রাম থেকে কক্সবাজার (১২১ কিলোমিটার) হেঁটে যাওয়ার সময় ‘যুব সমাজে পর্নোগ্রাফির ভয়াবহতা সম্পর্কে সচেতনতা বৃদ্ধি এবং এর আসক্তি থেকে উত্তরণের উপায় জানানোর লক্ষ্যে ‘পর্নোগ্রাফি: মানবতার জন্য হুমকি’ এই নামে ক্যাম্পেইন করেছেন কয়েক জায়গায়। ক্যাম্পাস থেকে রাঙামাটি হেঁটে যান একদিনে (৫৫ কিলোমিটার), এটা তার এখন পর্যন্ত একদিনে ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ হাঁটা। এছাড়া চবি থেকে পতেঙ্গা (৩৭ কিলোমিটার), চবি থেকে চুয়েট (৩০ কিলোমিটার), চবি থেকে ইসলামিক ইউনিভার্সিটি (২৮ কিলোমিটার), চবি থেকে ভাটিয়ারি (১৫ কিলোমিটার), সেন্ট মার্টিন দ্বীপসহ (১৪ কিলোমিটার) আরো অনেক জায়গায় যাওয়ার অভিজ্ঞতা জমেছে তার ঝুলিতে। 

ভ্রমণ থেকে পরিবর্তন:

যুব সমাজে পর্নোগ্রাফির ভয়াবহতা সম্পর্কে সচেতনতা বৃদ্ধি এবং এর আসক্তি থেকে উত্তরণের উপায় জানানোর লক্ষ্যে আমার এই পথচলা। আমি মূলত: যুব সমাজকে জানাতে চাই এটাই যে- ‘পর্নোগ্রাফি: মানবতার জন্য হুমকি’

আগামীর পথচলা: এ বছরের জুন-জুলাইয়ে টেকনাফ থেকে তেঁতুলিয়া হেঁটে ভ্রমণ করতে চান রাগিব।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেডএম/টিআরএইচ/এসএএম