Alexa ‘পায়ে হেঁটে গেলেও সর্বোচ্চ পাঁচ ঘণ্টা লাগতো’

ঢাকা, মঙ্গলবার   ২০ আগস্ট ২০১৯,   ভাদ্র ৫ ১৪২৬,   ১৮ জ্বিলহজ্জ ১৪৪০

Akash

‘পায়ে হেঁটে গেলেও সর্বোচ্চ পাঁচ ঘণ্টা লাগতো’

মো. আবু কাওছার আহমেদ, টাঙ্গাইল ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৫:০৩ ১১ আগস্ট ২০১৯   আপডেট: ১৪:০১ ১৪ আগস্ট ২০১৯

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

আগামীকাল সোমবার ঈদুল আজহা। এবারের ঈদ বাড়িতে করার জন্য সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার আব্দুল লফিত স্ত্রী ও ছেলে সন্তান নিয়ে ঢাকার গাবতলী থেকে গত রাত ৯টায় সিরাজগঞ্জের উদ্দেশ্যে বাসে রওনা হয়েছিলেন।

ঢাকার অংশে থেমে থেমে আসলেও টাঙ্গাইলের অংশে এসে তার গাড়ি এগোতে পারেনি। প্রচণ্ড যানজট থাকার কারণে গাড়িতে নির্ঘুম রাত কাটিয়েছেন তারা। প্রচণ্ড গরমে তাদের মতো এ মহাসড়কের হাজারো মানুষের দুর্ভোগ পোহাতে হয়েছে।

এ রাস্তায় ছেলেরা প্রকৃতির ডাকে সারা দিতে পারলেও শিশু ও নারীদের খুব কষ্ট করতে হচ্ছে। আবার অনেককেই গাড়ির নিচে ধুলাবালিতে বসে বিশ্রাম নিতে দেখা গেছে। সবমিলিয়ে সড়ক দিয়ে চলাচল করা উত্তরাঞ্চলের যাত্রীদের খুব কষ্টের মধ্যে দিয়ে বাড়ি ফিরতে হচ্ছে।

আব্দুল লতিফ মিয়া বলেন, গাবতলী থেকে সিরাজগঞ্জ যেতে আমার ৩/৪ ঘণ্টা সময় লাগে। আমি বর্তমানে টাঙ্গাইলের বিক্রমহাটি এলাকায় আছি। এখানে আসতে আমার প্রায় আট ঘণ্টা লেগেছে। আমি যদি সিরাজগঞ্জ পায়ে হেঁটেও যেতাম আমার সর্বোচ্চ পাঁচ ঘণ্টা সময় লাগতো। স্ত্রী ও ছেলে সন্তান থাকায় এবং বঙ্গবন্ধু সেতুতে পায়ে হেটে পারাপারের অনুমতি না থাকায় আট ঘণ্টা ধরে কষ্ট করছি। তা না হলে পায়ে হেঁটেই যেতাম। আমার মতো হাজারো মানুষ কষ্ট করছে। 

আব্দুল লতিফ মিয়ার স্ত্রী হেলেনা বেগম বলেন, রাত থেকে জামে আটকা পড়ে আছি। প্রচুর গরমে খুব কষ্ট হচ্ছে। প্রকৃতির ডাকেও কোনো সাড়া দিতে পারছি না। সব মিলিয়ে খুবই ভোগান্তির মধ্যে আছি। কখন গাড়ি ছাড়বে আর কখন বাড়ি পৌঁছাবো তার কিছুই জানি না।

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশলতিফ মিয়ার ছেলে রাকিব মিয়া বলেন, রাতে বাবা-মা’র সঙ্গে বাসে উঠেছি। এখনো রাস্তায় দাঁড়িয়ে আছি। আমার প্রচুর ক্ষুধা লেগেছে। খুবই কষ্ট হচ্ছে। গাড়ি ছাড়লে বাড়ি গিয়ে দাদা-দাদুর সঙ্গে ঈদ করবো।

সিরাজগঞ্জের আব্দুল লতিফ মিয়ার মতো উত্তরবঙ্গের হাজার হাজার মানুষ পরিবার পরিজন নিয়ে বাসে আটকা পড়ে আছেন। তবে সকাল সাড়ে ১১টার পর থেকে খুবই ধীর গতিতে গাড়ি চলাচল করতে দেখা গেছে। 

গত কয়েকদিন ধরে ঢাকা-টাঙ্গাইল-বঙ্গবন্ধ সেতু মহাসড়কে তীব্র যানজট দেখা গেছে। মাঝে মাঝে গাড়ি চললেও স্বাভাবিক হচ্ছে না এই মহাসড়কটি। সিরাজঞ্জের কড্ডার মোড়, নকলা ব্রিজসহ কয়েকটি স্থানে স্বাভাবিক গতিতে গাড়ি চলাচল করতে না পাড়ায় এই যানজটের সৃষ্টি হয়েছে বলে জানিয়েছেন টাঙ্গাইলের এসপি সঞ্জিত কুমার। এর আগে বঙ্গবন্ধু সেতুর পশ্চিম পার থেকে গাড়ি টানতে না পাড়ায় সেতু টোল নেয়া বন্ধ করতে হয়েছে কয়েকবার।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএম

Best Electronics
Best Electronics