পাসপোর্ট আবেদনের ৩০ দিন পর জানা যাবে প্রদানের তারিখ

ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ০২ এপ্রিল ২০২০,   চৈত্র ১৯ ১৪২৬,   ০৮ শা'বান ১৪৪১

Akash

পাসপোর্ট আবেদনের ৩০ দিন পর জানা যাবে প্রদানের তারিখ

নিজস্ব প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ০২:২০ ১৬ জানুয়ারি ২০২০   আপডেট: ০২:২২ ১৬ জানুয়ারি ২০২০

বহির্গমন ও পাসপোর্ট অধিদতরে পাসপোর্ট পেতে চরম ভোগান্তির শিকার হতে হচ্ছে পাসপোর্ট গ্রহীতাদের। নতুন পাসপোর্ট বা নবায়ন করা হলে, নির্দিষ্ট সময়ের দুই-তিন গুন বেশি সময় পরে পাসপোর্ট মিলছে। অনেক ক্ষেত্রে এর বেশি সময়ও লাগছে। প্রতিদিন ঢাকা ও আঞ্চলিক অফিসগুলোতে হাজার হাজার আবেদনকারী ধরনা দিয়ে ফেরৎ যাচ্ছেন। প্রবাস থেকে এসে অনেকেই নতুন পাসপোর্টের জন্য আবেদন করে থাকেন। কিন্তু সময় মত পাসপোর্ট না পেয়ে তারা বিপাকে আছেন। অনেকের ভিসা, টিকেট নষ্ট হচ্ছে। এজন্য শিক্ষার্থী ও রোগীরাও সমস্যা পোহাচ্ছেন তীব্রভাবে। 

আঞ্চলিক অফিসগুলো পাসপোর্টের জন্য ধরনা দিতে গ্রহীতাদের ঢাকায় পাঠানো হচ্ছে। ঢাকার আগারগাঁওয়ে প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষ পাসপোর্ট পেতে ভীড় করছেন। এ অবস্থায় একজন গ্রাহককে জরুরি ভিত্তিতে একটি পাসপোর্ট সাত দিনে এবং সাধারণভাবে ২১ দিনের মধ্যে দেয়ার কথা থাকলেও কেউই সময়মতো হাতে পাচ্ছে না।

এবার সাধারণ আবেদনের ক্ষেত্রে আনুষ্ঠানিকভাবে দেরি করে পাসপোর্ট দেয়ার ঘোষণা দিল বাংলাদেশ ইমিগ্রেশন ও পাসপোর্ট অধিদফতর।

গত মঙ্গলবার অধিদফতরের মহাপরিচালকের নির্দেশে সহকারী পরিচালক শাহজাহান কবির এক অফিস আদেশে এ ধরনের ইঙ্গিত দেন। আদেশে বলা হয়েছে, সম্প্রতি টেকনিক্যাল সমস্যার কারণে পার্সোনালাইজেশন সেন্টারে পাসপোর্ট প্রিন্টিং বিলম্ব হচ্ছে। দেশের অভ্যন্তরে আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিস/বিভাগীয় পাসপোর্ট ও ভিসা অফিস থেকে সাধারণ (রেগুলার) আবেদনগুলো দ্রুত সময়ে অ্যাপ্রুভাল দিয়ে প্রিন্টের জন্য প্রেরণ করা হচ্ছে। এতে অতি জরুরি (এক্সপ্রেস) আবেদনের পাশাপাশি সাধারণ (রেগুলার) আবেদনগুলো জমা হয়ে কিউ বা সিরিয়ালে অনিষ্পন্ন থেকে যাচ্ছে এবং শিডিউল মেশিন (কম্পিউটার) বারবার অকেজো (হ্যাং) হয়ে পড়ছে। ফলে জরুরি এক্সপ্রেস ও ইমার্জেন্সি পাসপোর্ট সময়মত প্রিন্ট করা সম্ভব হচ্ছে না। এমতাবস্থায় পুনরায় আদেশ না দেয়া পর্যন্ত সাধারণ (রেগুলার) আবেদনগুলো এনরোলমেন্টের তারিখ (আবেদন করার তারিখ) হতে ৩০ দিন পরে অ্যাপ্রুভাল প্রদানের জন্য নির্দেশক্রমে অনুরোধ করা হলো।

সাধারণত পুলিশ ভেরিফিকেশন ও সবকিছু ঠিক থাকলে আবেদনকারীরা ১৮-২০ দিনের মধ্যে পাসপোর্টের অ্যাপ্রুভাল পেয়ে যান। সে ক্ষেত্রে ২১ কার্যদিবসের পরবর্তীতে ছুটির দিন ব্যতিত ২২ কার্যদিবসের দিন পাসপোর্ট প্রদানের (ডেলিভারি) তারিখ দেয়া হয়। তবে ৩০ দিনের আগে অ্যাপ্রুভাল না দেয়ার সিদ্ধান্তে দুই মাসের মধ্যেও একজন আবেদনকারী পাসপোর্ট পাবেন কি না তা নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে।

এক সাধারণ আবেদনকারী বলেন, আমি গত নভেম্বর মাসের শুরুতে পাসপোর্টের আবেদন করেছিলাম। ৬৩ দিন পর পাসপোর্ট হাতে পেয়েছি। আমার সঙ্গে পরিবারের যারা আবেদন করেছিল তাদেরও একই অবস্থা। এ সিদ্ধান্তের কারণে পাসপোর্ট পেতে আরো বিলম্ব হতে পারে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এসসি/আরএ