Alexa ‘পারিবারিক উত্তরাধিকারে ছাত্ররাজনীতি বিকশিত হচ্ছে না’

ঢাকা, সোমবার   ১৪ অক্টোবর ২০১৯,   আশ্বিন ২৯ ১৪২৬,   ১৪ সফর ১৪৪১

Akash

‘পারিবারিক উত্তরাধিকারে ছাত্ররাজনীতি বিকশিত হচ্ছে না’

 প্রকাশিত: ২১:০২ ৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৮   আপডেট: ২১:১২ ৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৮

ফাইল ফটো

ফাইল ফটো

নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না বলেছেন, বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া জেলে যাওয়ার আগে উত্তরাধিকার ঠিক করে গিয়েছেন। এই পারিবারিক উত্তরাধিকারের ফলে ছাত্ররাজনীতি বিকশিত হচ্ছে না।

শুক্রবার জাতীয় প্রেসক্লাবে নাগরিক ছাত্র ঐক্য আয়োজিত ‘প্রশ্নপত্র ফাঁস, শিক্ষা ও শিক্ষাঙ্গন’ শীর্ষক গোলটেবিল বৈঠকে এসব কথা বলেন তিনি।

দুই নেত্রীর শাসনামলে ডাকসুর নির্বাচন না হওয়া প্রসঙ্গে তিনি বলেন, দুই নেত্রীর দুই সন্তান ছোট ছিল। তারাই তো বড় হয়ে নেতৃত্বে আসবে। তাহলে নতুন যুবনেতা কেন আসবে। অতএব নির্বাচন হয়নি।

খালেদা জিয়ার মামলা ও রায় প্রসঙ্গে মান্না বলেন, আড়াই কোটি টাকার জন্য বিচার হতে পারলে ছয় লাখ কোটি টাকারও বিচার হওয়া দরকার। প্রধানমন্ত্রী সংসদে বলেছিলেন, বিদেশে যারা টাকা পাচার করছে, সে খবর তার কাছে আছে। মান্না প্রশ্ন রাখেন, তবে কেন এত দিনে একজনের বিরুদ্ধেও মামলা হয়নি। তিনি আরো বলেন, আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে কথা বললেই কলঙ্ক দিয়ে দেয়া হয়।

মান্না বলেন, প্রশ্ন ফাঁসের মতো খালেদা জিয়ার রায়ও ফাঁস ছিল। তবে তা তিন বছর না পাঁচ বছর হবে, তা ছিল আলোচনায়।

শিক্ষাব্যবস্থা ও প্রশ্ন ফাঁসের বিষয়ে নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক বলেন, ক্যাম্পাসগুলো এখন তালুকের মতো হয়ে গেছে। যে যখন ক্ষমতায়, তখন তার দখলে থাকে।

সম্প্রতি জাতীয় পার্টির এমপি জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু সংসদে শিক্ষামন্ত্রীর পদত্যাগ দাবি করেন। এ প্রসঙ্গে মান্না বলেন, তিনি নুরুল ইসলাম নাহিদকে অনেক দিন থেকেই চেনেন। তিনি নাহিদকে এখনো ভালো মানুষ মনে করেন। তিনি বলেন, আরেকজন শিক্ষামন্ত্রী এলেও প্রশ্ন ফাঁস বন্ধ হবে কি না তা নিয়ে সংশয় আছে।

নাগরিক ছাত্র ঐক্যের সদস্যসচিব রিয়াজুল ইসলাম বৈঠকে লিখিত বক্তব্য পড়েন। সেখানে বলা হয়, প্রশ্ন ফাঁসের দায় শিক্ষামন্ত্রী-প্রধানমন্ত্রীসহ সরকারের। প্রতিবছর পাসের হার বাড়লেও বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষায় পাসের হার কমছে। এই সংগঠনটি বলে, শিক্ষার মান এখন ইতিহাসের সর্বনিম্ন পর্যায়ে।

শিক্ষাক্ষেত্রে বাজেটের বিষয়ে প্রশ্ন তোলা হয়। লিখিত বক্তব্যে উল্লেখ করা হয়, ইউনেস্কো শিক্ষায় ৬ শতাংশ বাজেট রাখার জন্য বলে কিন্তু এ দেশে তা ২.২৫ শতাংশের মতো এবং তা আরো কমছে। এ ছাড়া অযোগ্য শিক্ষক, কর্মমুখী শিক্ষায় অবহেলা, বেকারত্ব, শিক্ষাঙ্গনের পরিবেশ ধ্বংস, শিক্ষার বাণিজ্যিকীকরণও বিভিন্ন বিষয় তুলে ধরা হয়।

গোলটেবিলে আরো বক্তব্য দেন জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের সাধারণ সম্পাদক আবদুল মালেক রতন, নাগরিক ঐক্যের কেন্দ্রীয় সদস্য জাহিদুর রহমান প্রমুখ।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমআরকে