পাকিস্তানে খেলবেন মুশফিক

ঢাকা, রোববার   ২৯ মার্চ ২০২০,   চৈত্র ১৫ ১৪২৬,   ০৪ শা'বান ১৪৪১

Akash

পাকিস্তানে খেলবেন মুশফিক

ক্রীড়া প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৭:৪১ ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০   আপডেট: ১৭:৪২ ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে টেস্ট জেতার পর উইকেট হাতে মুশফিকুর রহিম

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে টেস্ট জেতার পর উইকেট হাতে মুশফিকুর রহিম

ছয় ম্যাচ হারের মর টেস্ট জিতেছে বাংলাদেশ। টেস্ট ক্যারিয়ারের তৃতীয় ডাবল সেঞ্চুরি তুলে নিয়েছেন উইকেট কিপার ব্যাটসম্যান মুশফিকুর রহিম। এই খুশিতে নতুন এক তথ্য দিলেন মুশফিক। পাকিস্তান সফরে দলের সঙ্গে যাবেন তিনি।

সোমবার স্ংবাদ সম্মেলনে তাকে প্রশ্ন করা হয়,পাকিস্তান সফরেও শেরেবাংলার ব্যাটিং ছন্দ ধরে রাখতে চান কিনা? তবে এ প্রশ্নের উত্তর দেননি মুশফিক। তৎক্ষণাৎ অন্য প্রসঙ্গ টেনে বিষয়টি এড়িয়ে যান। তবে ড্রেসিংরুমে ফেরার পথে পাকিস্তান সফরের প্রসঙ্গ তুলতেই জানালেন, করাচিতে খেলতে যাচ্ছেন তিনি।  ৩ এপ্রিল করাচিতে একটি ওয়ানডে এবং ৫ এপ্রিল থেকে শুরু হতে যাওয়া টেস্টে খেলবেন মুশফিক।

পারিবারিক কারণে টি-টোয়েন্টি সিরিজ ও প্রথম টেস্ট খেলতে পাকিস্তানে যাননি মুশফিক। বিসিবি থেকে ছুটি নিয়েছিলেন। বিসিবিও পাকিস্তান সফরের ব্যাপারে ক্রিকেটারদের সিদ্ধান্ত নেয়ার স্বাধীনতা দিয়ে রেখেছিল। সেই মতো মুশফিক নিজের সিদ্ধান্ত নিলেও বোর্ড ভালোভাবে নেয়নি। যদিও দু'বারই নিরাপদে পাকিস্তান সফর করে দেশে ফিরেছে বাংলাদেশ দল। শুধু টি-টোয়েন্টি এবং টেস্টে বাজেভাবে হেরে লজ্জা বয়ে এনেছে জাতির জন্য।

সিরিজের শেষ ভাগের খেলা হবে এপ্রিলে করাচিতে, একটি ওয়ানডে আর দ্বিতীয় টেস্ট। জিম্বাবুয়ে সিরিজের দলে নেয়ার আগে মুশফিককে শর্ত দেয়া হয়েছিল পাকিস্তান সফরে যেতে হবে। ঢাকা টেস্টের দল ঘোষণার ঠিক আগের দিন কক্সবাজার গিয়ে বিসিবির দুই নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন নান্নু ও হাবিবুল বাশার মুশফিককে পাকিস্তানে যেতে রাজি করান। কক্সবাজারে তখন বিসিএলের ম্যাচ খেলছিলেন উইকেটরক্ষক এ ব্যাটসম্যান।

দেশের ক্রিকেটের দুই সিনিয়রের অনুরোধ রেখে পাকিস্তানে যেতে রাজি হওয়ায় অনেক দিক থেকেই স্বস্তি ফিরেছে জাতীয় দলে। করাচি টেস্টে পূর্ণ শক্তির দল নিয়ে খেলতে পারবে বাংলাদেশ। অধিনায়ক মুমিনুল হকও সহযোগিতা পাবেন সিনিয়রের কাছ থেকে। এ ব্যাপারে মুশফিক বললেন, 'আল্লাহ ভরসা, চেষ্টা করব ছন্দটা ধরে রেখে পাকিস্তানে খেলতে। দলের ভেতরে আত্মবিশ্বাস ফিরেছে। আশা করি ভালো ক্রিকেট খেলতে পারব ওখানে।'

শেষবার পাকিস্তান সফরের আগের সংবাদ সম্মেলনে কোচ রাসেল ডমিঙ্গো বলেছিলেন, জিম্বাবুযের বিপক্ষে মুশফিককে নেয়া হলে তিনবার একাদশে পরিবর্তন করতে হয়। তাই মুশফিককে বিশ্রাম দেয়ার পক্ষে ছিলেন তিনি। প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন নান্নুও এই প্রক্রিয়া অনুসরণ করার পক্ষে ছিলেন। এ নিয়ে অভিমানও হয়েছিল মুশফিকের। তবে নির্বাচকদের আন্তরিকতায় হৃদ্যতাপূর্ণ সমাধান দারুণ ব্যাপার।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএস