Alexa পর্যটন শিল্পের উন্নয়ন হলে আয় বাড়বে: পর্যটনমন্ত্রী

ঢাকা, শুক্রবার   ১৯ জুলাই ২০১৯,   শ্রাবণ ৪ ১৪২৬,   ১৫ জ্বিলকদ ১৪৪০

পর্যটন শিল্পের উন্নয়ন হলে আয় বাড়বে: পর্যটনমন্ত্রী

 প্রকাশিত: ১৯:০৪ ২২ মার্চ ২০১৮  

ফাইল ফটো

ফাইল ফটো

দেশের পর্যটন শিল্পের উন্নয়ন হলে বৈদেশিক মূদ্রার আয় বাড়বে। সরকার পর্যটনের বিকাশে নানা উদ্যোগ বাস্তবায়ন করছে বলে জানান বেসামরিক বিমান চলাচল ও পর্যটনমন্ত্রী এ কে এম শাহজাহান কামাল।

বৃহস্পতিবার থেকে শুরু হয়েছে তিনদিনব্যাপী আন্তর্জাতিক পর্যটন মেলা। রাজধানীর প্যান প্যাসিফিক সোনারগাঁও হোটেলের বলরুমে ‘আন্তর্জাতিক পর্যটন মেলা ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স, ঢাকা ট্রাভেল মার্ট-২০১৮’ এর উদ্বোধনকালে মন্ত্রী এসব কথা বলেন।

ভ্রমণবিষয়ক পাক্ষিক ‘দ্য বাংলাদেশ মনিটর’ পঞ্চদশবারের মতো এ মেলার আয়োজন করেছে। দেশের অন্যতম শীর্ষস্থানীয় বেসরকারি বিমান সংস্থা ‘ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স’ টাইটেল স্পন্সর হিসেবে মেলায় সহযোগিতা করেছে। এছাড়া পার্টনার হিসেবে সহায়তা করছে বাংলাদেশ ট্যুরিজম বোর্ড এবং বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স। বাংলাদেশসহ বিভিন্ন দেশের ৪৮টি প্রতিষ্ঠান ৫টি প্যাভিলিয়ন ও ৬০টি স্টলে তাদের পণ্য ও সেবা প্রদর্শন করার সুযোগ পেয়েছে এই মেলায়।

এ কে এম শাহজাহান কামাল বলেন, দেশের পর্যটন শিল্পের বিকাশের ক্ষেত্রে এ ধরনের আয়োজন গুরুত্বপূর্ন ভূমিকা রাখবে। দেশের পর্যটন শিল্পের বিকাশ ঘটলে বৈদেশিক মূদ্রার আয় বাড়বে। সরকার পর্যটনের বিকাশে নানা উদ্যোগ বাস্তবায়ন করছে। কক্সবাজারে দীর্ঘ মেরিন ড্রাইভ করা হযেছে। এই মেরিন ড্রাইভ পর্যটকদের আরো আকর্ষণ বাড়িয়ে তুলছে। সুন্দরবনে আগের চেয়ে বর্তমান সময়ে অনেক বেশি পর্যটক যাচ্ছেন। দেশি-বিদেশি পর্যটকদের আকৃষ্টি করতে পর্যটন বিভাগ কাজ করে যাচ্ছে। পাশাপাশি বেসরকারি উদ্যোক্তারাও কাজ করছেন। তৈরি করা হচ্ছে পর্যটন বান্ধব পরিবেশ। ফলে এখন মানুষ নিরাপদে ঘুরে বেড়াতে পারছেন। বিদেশি পর্যটকরাও আগের চেয়ে অনেক সাচ্ছন্দে ঘুরে বেড়াচ্ছেন।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের পরিচালক (বিক্রয় ও বিপণন) মো. আলী আহসান, ইউএস বাংলা এয়ারলাইন্সের প্রধান নির্বাহী ইমরান আসিফ ও বাংলাদেশ মনিটর সম্পাদক কাজী ওয়াহিদুল আলম।

অনুষ্ঠানের শুরুতে কাঠমান্ডুতে মর্মান্তিক বিমান দুর্ঘটনায় নিহতদের স্মরণে উপস্থিত সকলে ১ মিনিট নীরবতা পালন করেন। নিহতদের আত্মার মাগফেরাত এবং আহতদের আশু রোগমুক্তি কামনায় দোয়া করা হয়।

স্বাগতিক বাংলাদেশসহ বিভিন্ন দেশের ৪৮টি প্রতিষ্ঠান ৫টি প্যাভিলিয়ন ও ৬০টি স্টলে তাদের পণ্য ও সেবা প্রদর্শন করছে। মেলায় অংশগ্রহণকারী প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে রয়েছে জাতীয় পর্যটন সংস্থা, বিমান সংস্থা, ট্রাভেল ও ট্যুর অপারেটর, হোটেল ও রিসোর্ট, পর্যটন স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠান, অনলাইন বুকিং-পোর্টালসহ আরো কয়েকটি প্রতিষ্ঠান। এবারের মেলার উল্লেখযোগ্য দিক হচ্ছে বাংলাদেশ ট্যুরিজম বোর্ড, বাংলাদেশ পর্যটন সংস্থা, নেপাল ট্যুরিজম বোর্ড, ট্যুরিজম অথোরিটি অব থাইল্যান্ড, শ্রীলংকা ট্যুরিজম প্রমোশন ব্যুরোর মতো ৫টি জাতীয় পর্যটন সংস্থার অংশগ্রহণ করেছে। বাংলাদেশের ৪ টি এয়ারলাইন্সই এবারের মেলায় অংশ নিয়েছে। জাতীয় পতাকাবাহী বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স ছাড়াও রয়েছে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স, নভোএয়ার এবং রিজেন্ট এয়ারওয়েজ।

অংশগ্রহণকারী প্রতিষ্ঠানগুলো মেলা চলাকালীন দর্শনার্থীদের জন্য হ্রাসকৃত মূল্যে বিমান টিকেট, আকর্ষণীয় ট্যুর প্যাকেজসহ বিভিন্ন পণ্য ও সেবা উপস্থাপন করেছে। মেলা চলবে শনিবার পর্যন্ত। আগ্রামী ২৪ মার্চ সোনারগাঁও হোটেলে ‘বাংলাদেশের পেক্ষাপটে নৌ পর্যটন’ শীর্ষক একটি সেমিনার অনুষ্ঠিত হবে। মেলা সকাল ১০টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত খোলা থাকবে। মেলায় প্রবেশমূল্য রাখা হয়েছে জনপ্রতি ৩০ টাকা। প্রবেশ কুপনের ওপর মেলার শেষদিন সন্ধ্যা সাড়ে ৭ টায় গ্র্যান্ড র‌্যাফেল ড্র অনুষ্ঠিত হবে।

র‌্যাফল ড্র বিজয়ীদের জন্য রয়েছে দেশ-বিদেশের বিভিন্ন গন্তব্যের এয়ার টিকেট, ট্যুর প্যাকেজ, তারকা হোটেলে রাত্রিযাপন, লাঞ্চ ও ডিনার কুপনসহ বিভিন্ন পুরস্কার।

ডেইলি বাংলাদেশ/ডিএম/এমআরকে