১৬ ডিসেম্বর, ২০১৭; ৯:২৩
Advertisement
শিরোনাম:
জাতীয় স্মৃতিসৌধে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা বিজয় দিবসের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী বিজয় দিবস উদযাপন শুরু মৎস্য প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী ছায়েদুল হক বঙ্গবন্ধু মেডিকেলে লাইফ সার্পেটে
শিরোনাম:
জাতীয় স্মৃতিসৌধে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা বিজয় দিবসের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী বিজয় দিবস উদযাপন শুরু মৎস্য প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী ছায়েদুল হক বঙ্গবন্ধু মেডিকেলে লাইফ সার্পেটে...

পঞ্চম দফায় মুক্তামনির অস্ত্রোপচার চলছে

 নিজস্ব প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১১:৪৩, ১০ অক্টোবর ২০১৭

১২৯ বার পঠিত

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

হেমানজিওমা রোগে আক্রান্ত ১১ বছরের শিশু মুক্তামনির ডান হাতের অস্ত্রোপচার চলছে।

আজ মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে পঞ্চম দফায় এ অস্ত্রোপচার শুরু হয়।

সকাল সাড়ে আটটায় তাকে অপারেশন থিয়েটারে নেওয়া হয়। ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইউনিটের সমন্বয়ক ও মুক্তামনির মেডিকেল বোর্ডের সদস্য ডা. সামন্ত লাল সেন এ তথ্য জানান।

এর আগে রবিবার চতুর্থ দফার অস্ত্রোপচারে মুক্তামনির হাতটি নতুন চামড়া লাগানোর উপযোগী করা হয়েছে। এটি তার সুস্থ হওয়ার প্রথম ধাপ বলে জানিয়েছিলেন চিকিৎসকরা।

বার্ন ইউনিটের চিকিৎসকদের বরাত দিয়ে মুক্তামনির বাবা ইব্রাহীম হোসেন জানান, চিকিৎসকরা মুক্তামনির দুই পা পরিষ্কার রাখতে বলেছেন। পা থেকে নতুন চামড়া সংগ্রহ করে মুক্তামনির হাতে লাগানো হবে। তিনি আরও জানান, চিকিৎসকদের নির্দেশনায় অস্ত্রোপচারের জন্য ৪ ব্যাগ রক্তও সংগ্রহ করে রাখা হয়েছে। এসময় ইব্রাহীম হোসেন মেয়ের সুস্থতার জন্য সকলের কাছে দোয়া কামনা করেছেন।

গত ১২ আগস্ট প্রথম দফায় মুক্তামনির ডান হাত অক্ষত রেখেই দুই ঘণ্টার সফল অস্ত্রোপচার করা হয়।

বার্ন ইউনিটের সমন্বয়কারী ও মুক্তামনির চিকিৎসায় গঠিত ১৩ সদস্যের মেডিকেল বোর্ডের সদস্য ডা. সামন্ত লাল সেন সেবার জানিয়েছিলেন, তিন কেজির মতো বাড়তি মাংস অপসারণ করা হয়েছে। টিউমার অপসারণে ফের কয়েকদফা অস্ত্রোপচার করতে হবে। এরপর গত ২৯ আগস্ট দ্বিতীয় দফার অস্ত্রোপচার শুরু হলেও জ্বর আসায় মুলতবি রাখা হয়। গত ০৫ সেপ্টেম্বর তৃতীয় দফার অস্ত্রোপচারও সফল হয়।

গত ২৭ জুলাই ভিডিও কনফারেন্সে মুক্তামনিকে ও তার বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষার প্রতিবেদন দেখেন এবং ঢামেক হাসপাতালের বার্ন ইউনিটের চিকিৎসকদের সঙ্গে বোর্ড মিটিং করেন সিঙ্গাপুর জেনারেল হাসপাতালের প্লাস্টিক সার্জারি বিভাগের চিকিৎসকরা। পরে ই-মেইলে সিঙ্গাপুরের হাসপাতালটি জানিয়েছিল যে, রোগটি ভালো হওয়ার নয় ও সেটি অস্ত্রোপচার করার মতোও নয়। এ পর্যবেক্ষণ জানার পর গত ০২ আগস্ট ঝুঁকিপূর্ণ হলেও সব ধরনের সতর্কতা অবলম্বন করে বায়োপসি করার সিদ্ধান্ত নেন চিকিৎসকরা। সে অনুসারে গত ০৫ আগস্ট সফলভাবে মুক্তামনির বায়োপসি অপারেশন সম্পন্ন হয়।

ডেইলি বাংলাদেশ/টিআরএইচ

সর্বাধিক পঠিত
ওপরে যেতে