‘ভাইয়া তাড়াতাড়ি আয়, ওরা আমারে ধইরা নিয়া যাইতাছে’

ঢাকা, রোববার   ২৯ মার্চ ২০২০,   চৈত্র ১৫ ১৪২৬,   ০৪ শা'বান ১৪৪১

Akash

‘ভাইয়া তাড়াতাড়ি আয়, ওরা আমারে ধইরা নিয়া যাইতাছে’

শরীয়তপুর প্রতিনিধি  ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৫:৫১ ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০   আপডেট: ১৬:৪০ ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০

রেশমি আক্তার

রেশমি আক্তার

শরীয়তপুরের নড়িয়া সরকারি কলেজের বিএ প্রথম বর্ষের ছাত্রী রেশমি আক্তারকে ৬ জন নারী মিলে অপহরণ করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় রেশমির বাবা রেজাউল মাঝি নড়িয়া থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেছেন।

বৃহস্পতিবার ২৭ ফেব্রুয়ারি দুপুরে নড়িয়া সরকারি কলেজের পেছনে এই অপহরণের ঘটনা ঘটে।

রেশমির বাবা রেজাউল মাঝি জানান, আমার মেয়ে নড়িয়া সরকারি কলেজের বিএ প্রথম বর্ষের ছাত্রী। রেশমী সকাল ১০টায় বাড়ি থেকে কলেজে যায়। দুপুর  ১২টার দিকে কলেজের পেছন দিয়ে বাড়ির উদ্দেশ্যে যাওয়ার সময় রাস্তায় প্রায় ৬/৭ জন মেয়ে রেশমিকে কলেজের পেছন থেকে অপহরণ করে নিয়ে যায় বলে আমার ছেলেকে ফোন করে। 

রেশমি জানায়, ‌‌‘ভাইয়া তাড়াতাড়ি আয়, ওরা আমারে ধইরা নিয়া যাইতাছে। ওরা, কলেজের পেছনে পুকুর পাড়ের রাস্তায় আছে, মোবাইল লইয়া যাইবো, আয়’ এর পর থেকেই মোবাইল বন্ধ। কে বা কারা তা বলার  সুযোগ পায়নি রেশমি।  

ঘটনা জানতে পেরে রেশমির বাবা, ভাই এবং স্বজনরা কলেজে ছুটে আসেন। কলেজের ভাইস-প্রিন্সিপাল দ্রুত  থানায় যাওয়ার পরামর্শ দিলে রেশমির বাবা রেজাউল মাঝি নড়িয়া থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেছেন। তিনি দাবি করেছেন রেশমিকে অপহরণ করা হয়েছে। 

নড়িয়া থানার ওসি মো. হাফিজুর রহমান বলেন, নড়িয়া সরকারি কলেজের বিএ প্রথম বর্ষের ছাত্রী রেশমি আক্তারকে অপহরণের অভিযোগে তার বাবা রেজাউল মাঝি একটি সাধারণ ডায়েরি করেন। তাদের তথ্য অনুযায়ী রেশমি দুপুর ১২টার পরে ফোন দিয়ে সে অপহরণ হয়েছে বলে জানান। তদন্তসহ রেশমিকে উদ্ধারের চেষ্টা চলছে। আশা করি শিগগিরই উদ্ধার হয়ে যাবে। 

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকে