পরিত্যক্ত ভবনের বারান্দায় পাঠদান

ঢাকা, বুধবার   ২২ মে ২০১৯,   জ্যৈষ্ঠ ৮ ১৪২৬,   ১৬ রমজান ১৪৪০

Best Electronics

পরিত্যক্ত ভবনের বারান্দায় পাঠদান

 প্রকাশিত: ১৩:৫৯ ৭ অক্টোবর ২০১৮   আপডেট: ১৪:০২ ৭ অক্টোবর ২০১৮

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

কুমিল্লার বরুড়া উপজেলার সুন্দরদৌল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শ্রেণি কক্ষ সংকটের কারণে প্রতিষ্ঠানটির দুই শতাধিক ছাত্র-ছাত্রীর পাঠদান ব্যাহত হচ্ছে। পরিত্যক্ত ভবন আর বারান্দায় চলে তাদের পাঠদান চলছে। এতে রোদ-বৃষ্টির দুর্ভোগের তাদের পড়তে হয়।  

সূত্র জানায়, উপজেলার শিলমুড়ী দক্ষিণ ইউনিয়নের সুন্দরদৌল গ্রামের শিক্ষানুরাগী রাজ চন্দ্র দাস এলাকায় শিক্ষা বিস্তারের লক্ষ্যে ১৯৭০সালে তিনি তার নিজস্ব ৩৩শতক জমিতে সুন্দরদৌল বিদ্যালয়টি স্থাপন করেন। সেই থেকে বিদ্যালয়টি এলাকায় ধারাবাহিক শিক্ষা বিস্তার কার্যক্রম অব্যাহত রাখে। বর্তমানে বিদ্যালয়টির মান সম্পন্ন অবকাঠামো নির্মাণ না হওয়ায় পরিত্যক্ত সেমিপাকা বিল্ডিং আর বারান্দায় গাদাগাদি করে কোমলমতি ছাত্র-ছাত্রীদের পাঠদান করাতে হচ্ছে। প্রাকৃতিক বৈরি আবহাওয়া রোদ কিংবা বৃষ্টির সময় ছাত্রছাত্রীদের সীমাহীন দুর্ভোগে পড়তে হচ্ছে। 

বিদ্যালয়ের প্রথম শ্রেণির ছাত্রী উম্মে হাফসা, সামিয়া ইসলাম, পঞ্চম শ্রেণির ছাত্র রায়হান হোসেন, ছাত্রী শ্রাবন্তি রানী শীল এবং শিশু শ্রেণির ছাত্রী পরশ মণিসহ কয়েকজন বলেন, বারান্দায় বসে পড়ালেখা করতে তাদের দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। এছাড়া বৃষ্টির সময় শ্রেণি কক্ষের ভাঙা চাল দিয়ে পানি পড়ে বই-খাতা ভিজে যায়। তারা ইচ্ছা থাকা সত্যেও ক্লাস করতে পারছে না।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক স্মৃতি রানী বণিক জানান, বিদ্যালয়টির শ্রেণি কক্ষের সংকট দীর্ঘদিনের। মান সম্পন্ন শ্রেণি কক্ষের অভাবে ছাত্রছাত্রীদের পাঠদানের কার্যক্রম ব্যাহত হচ্ছে। বিদ্যালয়ের ভবন নির্মাণের জন্য উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তার দফতরে একাধিকবার অবহিত করেছেন। 

বরুড়া উপজেলা শিক্ষা অফিসার মো. আরিফুর রহমান জানান, সুন্দরদৌল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নতুন ভবন নির্মাণের জন্য উপজেলা প্রকৌশলী কার্যালয়ের মাধ্যমে তিনি শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে আবেদন প্রেরণ করেছেন।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেডএম

Best Electronics