Exim Bank
ঢাকা, বুধবার ২০ জুন, ২০১৮
Advertisement

খুলনা-ডুমুরিয়া

নড়বড়ে আওয়ামী লীগ, নীরবে বিএনপি-জামায়াত

 ফারজানা আলম, খুলনা  ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৭:২৩, ১৩ মার্চ ২০১৮

১৩৪ বার পঠিত

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

চরমপন্থীদের স্বর্গরাজ্য হিসেবে পরিচিতি পাওয়া খুলনার সবচেয়ে বড় উপজেলা ডুমুরিয়া। নিউ বিপ্লবী কমিউনিস্ট পার্টির মৃণাল ওরফে গোঁসাই ও শৈলেনের নামে এক সময় কেঁপেছে এই উপজেলার মানুষ।

এলাকায় কোনো কিছু করতে হলে তাদের অনুমতি নেয়া ছিলো বাধ্যতামূলক। কথায় কথায় সেখানে সংঘটিত হয়েছে হত্যাকাণ্ড। বাদ পড়েননি সাংবাদিকও। বিকেল হলেই  ঘরে ফিরেছে উপজেলাবাসী। পুলিশ প্রশাসনও চরমপন্থীদের ভয়ে থেকেছে তটস্থ। সেই ডুমুরিয়া উপজেলা এখন অনেকটাই শান্ত। চরমপন্থীদের উপদ্রব বলতে গেলে নেই এখন।

ডুমুরিয়া উপজেলায় দলে বিভক্তি কিছুটা থাকলেও এখন আওয়ামী লীগের একচ্ছত্র আধিপত্য। তবে নীরবে নিভৃতে বিএনপি-জামায়াতও নিজেদের গুছিয়ে নেয়ার চেষ্টা করে চলেছে। উপজেলাবাসী মনে করেন ডুমুরিয়ায় আওয়ামী লীগের যেমন প্রভাব রয়েছে, তেমনি রয়েছে জামায়াত-বিএনপির।

ডুমুরিয়া-ফুলতলা  (খুলনা-৫) নির্বাচনী আসনে গত নির্বাচনে আওয়ামী লীগ নেতা নারায়ণ চন্দ্র চন্দ এমপি হন।  সর্বশেষ উপজেলা নির্বাচনে বিএনপি-জামায়াত জোটের প্রার্থী উপজেলা বিএনপির সভাপতি খান আলী মুনসুর জয়লাভ করেন। এবার আওয়ামী লীগের নতুন প্রার্থী চাইছেন অনেকেই।

উপজেলা নিজেদের নিয়ন্ত্রণে থাকলেও আওয়ামী লীগের একাধিক নেতা চাইছেন জাতীয় নির্বাচনের টিকিট। ফলে উজেলায় এখন আওয়ামী লীগের অবস্থান কিছুটা হলেও নড়বড়ে হয়ে গেছে। নেতাকর্মীদের মধ্যেও বিভেদ সৃষ্টি হয়েছে।

দলীয় মনোনয়ন মনোনয়নের দাবি করে আসছেন ডুমুরিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের  সভাপতি মৎস ও প্রাণিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী নারায়ণ চন্দ্র চন্দ এমপি। এছাড়া রয়েছেন খুলনা জেলা বঙ্গবন্ধু পরিষদের সহসভাপতি অর্থনীতিবিদ অধ্যাপক ড. এম মাহবুব উল ইসলাম। দীর্ঘদিন ধরে তিনি এলাকায় প্রচার-প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। সদালাপী ব্যক্তি হিসেবে এলাকার মানুষের মধ্যেও গড়ে উঠেছে তার গ্রহণযোগ্যতা। এছাড়া মনোনয়ন চাইছেন গুটুদিয়া ইউপি চেয়ারম্যান মোস্তফা সরোয়ার ও যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য নুরুল ইসলাম বাদশা।

সূত্র জানায়, আগামী নির্বাচনে বিএনপির মনোনয়ন দাবি করবেন সাবেক এমপি ডা. গাজী আব্দুল হক ও বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান খান আলী মুনসুর। তবে  জোটগত নির্বাচন হলে বিগত নির্বাচনের মতো এবারও এ আসনে জামায়াতে ইসলামীর প্রার্থী অধ্যাপক মিয়া গোলাম পরওয়ার মনোনয়ন চাইবেন বলে বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে। তবে আলাদা নির্বাচন হলে বিএনপির শক্তপ্রার্থী দলের নির্বাহী কমিটির সদস্য ড. মামুন রহমান। দলের নীতি-নির্ধারক পর্যায়ে তার যোগাযোগ রয়েছে।

ডেইলি বাংলাদেশ/আজ/আরআর

সর্বাধিক পঠিত