নো খালেদা, নো ইলেকশন

ঢাকা, সোমবার   ০১ জুন ২০২০,   জ্যৈষ্ঠ ১৮ ১৪২৭,   ০৮ শাওয়াল ১৪৪১

Beximco LPG Gas

নো খালেদা, নো ইলেকশন

 প্রকাশিত: ১৫:১৪ ২২ এপ্রিল ২০১৮   আপডেট: ১০:১১ ২৩ এপ্রিল ২০১৮

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান রাবেয়া চৌধুরী বলেছেন, সরকার খালেদা জিয়াকে অন্ধকার কারাগারে রেখে আরেকটি ৫ জানুয়ারির মত নির্বাচনের মাধ্যমে তৃতীয় বারের মত ক্ষমতায় আসতে চায়। তিনি বলেন, সরকারের কুমতলব কখনো সফল হবে না। বাংলার মাটিতে খালেদাবিহীন কোনো নির্বাচন হতে দেয়া হবে না। তিনি বলেন, ‘নো খালেদা নো ইলেকশন।’ ডেইলি বাংলাদেশের সঙ্গে একান্ত সাক্ষাতকারে তিনি এ কথা বলেন।

বয়সের ভারে নূহ্য ও কিছুটা অসুস্থ কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা বিএনপির সভাপতি বেগম রাবেয়া চৌধুরী প্রতিষ্ঠাতালগ্ন থেকেই দলের সঙ্গে জড়িত। ১৯৭৯ সালে দ্বিতীয় জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর থেকে বিএনপি যতবারই ক্ষমতায় এসেছে ততবারই সংরক্ষিত কোটায় এমপি হয়েছেন তিনি। আন্দোলন সংগ্রামে সব সময় রাজপথে সামনের কাতারে থাকেন বলে রাজনীতিতে তার নাম দেয়া হয়েছে কুমিল্লার অগ্নিকন্যা।

আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের প্রস্তুতি সম্পর্কে জানতে চাইলে রাবেয়া চৌধুরী বলেন, বিএনপি উদার গণতান্ত্রিক দল। বিএনপি বিশ্বাস করে ক্ষমতায় যেতে হলে জনগণের ভোটেই ক্ষমতায় যেতে হবে। বিএনপির মত একটি দলে সব সময়ই নির্বাচনের প্রস্তুতি থাকে। তবে আমরা এখন প্রিয় নেত্রী, মাদার অব ডেমোক্রেসি খালেদা জিয়ার মুক্তির বিষয়টিই প্রধান্য দিচ্ছি। আগে নেত্রীর মুক্তি পরে সব। নেত্রী খুবই অসুস্থ। কিন্তু সরকার প্রতিহিংসাবশত নেত্রীকে রাজনীতি থেকে মাইনাস করতে সুচিকিৎসা দিচ্ছে না।

বেগম রাবেয়া বলেন, সব কিছুর একটা সীমা আছে। আমরা সুস্থধারার রাজনীতি বিশ্বাস করি বলেই, নেত্রী জেলে যাওয়ার পরও অহিংস কর্মসূচি পালন করেছি। কিন্তু সরকার যদি সহনশীলতাকে দূর্বলতা হিসেবে দেখে, তাহলে ভুল করবে। পিঠ দেয়ালে ঠেকে যাচেছ। ধীরে ধীরে চুড়ান্ত আন্দোলনের দিকে যাচ্ছি আমরা।

বিএনপির সাবেক এই এমপি বলেন, প্রধানমন্ত্রী জনগণের ট্যাক্সের টাকা খরচ করে বিভিন্ন জেলায় সভা-সমাবেশ করে নৌকায় ভোট চাচ্ছেন। যা নির্বাচনী বিধি লঙ্ঘন। একটি ইনক্লুসিভ নির্বাচন করতে হলে, সব দলকে সমান সুযোগ দিতে হবে। কিন্তু সরকার নিজে নির্বাচনী প্রচার চালালেও, বিএনপিকে একটি সভা-সমাবেশও করতে দিচ্ছে না। উদাহরণ টেনে তিনি বলেন, এটা কি গণতন্ত্র না কি বাকশালতন্ত্র?

রাবেয়া চৌধুরী বলেন, নির্বাচন কমিশনের নিরপেক্ষতা নিয়ে বিএনপি শুরু থেকেই প্রশ্ন তুলে আসছে। খুলনা ও গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে বিএনপির পক্ষ থেকে ভোটের ৭ দিন আগে সেনাবাহিনী মোতায়েনের দাবি করা হয়েছে। নির্বাচন কমিশন এখনো সে বিষয়ে পরিস্কার কিছু বলছে না।

এই দুই সিটির ভোট, নির্বাচন কমিশনের জন্য অগ্নিপরীক্ষা দাবি করে কুমিল্লা বিএনপির এই নেত্রী বলেন, সরকার নির্বাচনের ফলাফল পাল্টাতে কিংবা এর আগে ভোটকেন্দ্র দখলের জন্য নানা কূট-কৌশলের আশ্রয় নিতে পারে। এজন্য সবাইকে সচেতন থাকতে হবে।

বৃহত্তর কুমিল্লার অগ্নিকন্যা খ্যাত বেগম রাবেয়া বলেন, বর্তমান সরকার উন্নয়ন উন্নয়ন বলে মুখে ফেনা তুললেও, তা হচ্ছে শুধু তাদের দলের এবং জোটের। দুর্নীতি, স্বজনপ্রীতি, হত্যা, ধর্ষণ, চুরি-ডাকাতি ছিনতাই এখন প্রতিদিনের ঘটনা। অথচ সরকার বলছে আইনশৃঙ্খলা নাকি স্বাভাবিক। প্রতিদিনের সংবাদপত্র দেখলেই বোঝা যায় আসলে কতটা স্বাভাবিক আছে। 

খালেদার মুক্তি আন্দোলনের পাশাপাশি নির্বাচনের প্রস্তুতি নিতে দলের সব পর্যায়ের নেতাকর্মীদের আহবান জানান বিএনপির কেন্দ্রীয় ভাইস চেয়ারম্যান বেগম রাবেয়া চৌধুরী।

তিনি দৃঢ়তার সঙ্গে বলেন, আমরা অবশ্যই নির্বাচনে যাব। তবে তা হতে হবে আপোষহীন নেত্রী খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে। এর বিকল্প বিএনপির ভাবার কোন অবকাশ নেই বলেও জানান তিনি।

ডেইলি বাংলাদেশ/এলকে/টিআরএইচ