Exim Bank Ltd.
ঢাকা, মঙ্গলবার ১৮ ডিসেম্বর, ২০১৮, ৪ পৌষ ১৪২৫

নেপোলিয়ন এবং একটি অসমাপ্ত স্বপ্ন

সৌমিক অনয়ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম
নেপোলিয়ন এবং একটি অসমাপ্ত স্বপ্ন
ছবি: সংগৃহীত

বিংশ শতাব্দীর পূর্বে যুদ্ধবাজ উচ্চভিলাসী শাসকদেরকেই মহানায়ক বিবেচনা করা হত। এদের গুণগানেই ইতিহাস লেখা হত। এমনই এক মহানায়ক নেপোলিয়ন বোনাপার্ট। একদম শূণ্য থেকে ক্ষমতার সর্বোচ্চ শিখর আহরণ করা এক মহাবীর। দিগ্বিজয়ীদের তালিকায় আলেকজান্ডার দি গ্রেট এর পরেই নেপোলিয়ন তার অবস্থান তৈরি করে নিয়েছেন। ফরাসি বিপ্লবের পরবর্তী সময়ে ফ্রান্সের নিকটবর্তী রাজতন্ত্রগুলো ধারনা করে বিপ্লব তাদের দেশগুলোতেও ছড়িয়ে পড়বে এবং ষোড়শ লুই এর মত তাদেরও পতন হবে। এজন্য তারা একে একে ফ্রান্সে আক্রমণ শুরু করে। ফ্রান্সের অভ্যন্তরীন অবস্থাও তেমন ভাল ছিল না। ক্ষমতার লড়াইয়ে তখনো যুদ্ধ চলছে। এমনি এক সংকটকালীন পরিস্থিতিতে নেপোলিয়ন এর উত্থান। কিন্তু নেপোলিয়ন কি পেরেছিলেন ফরাসি বিপ্লবের প্রতিশ্রুতিগুলো রক্ষা করতে?

১৭৬৯ সালের ১৫ আগস্ট ফ্রান্সের করসিকার এজাক্সিউ শহরে জন্মগ্রহণ করেন নেপোলিয়ন। তার জন্মের মাত্র একবছর আগে দ্বীপটি জেনোয়া প্রজাতন্ত্র কর্তৃক ফ্রান্সকে দেয়া হয়। বোনাপার্ট পরিবার মূলত লুনিজিয়ানায় বসতি স্থাপনকারী লোম্বার্ড বংশোদ্ভূত তুস্‌কান গোত্রের অন্তর্ভুক্ত, যারা ইতালির একটি অভিজাত সম্প্রদায় হিসেবে বিবেচিত। তার পিতার নাম ছিল কার্লো বোনাপার্ট ও মাতার নাম লেটিজিনা বোনাপার্ট। ছোট থেকেই খুব মেধাবী ছিলেন নেপোলিয়ান। তার অগাধ জ্ঞান ছিল ভূগোল আর ইতিহাস বিষয়ে। অ্যালেক্সান্ডার দ্য গ্রেট এর অভিযান তাকে বরাবর আকর্ষণ করত। স্বপ্নও দেখতেন দিগ্বিজয়ী হবেন অ্যালেক্সান্ডার-এর মতোই। ১৭৮৫ তে গ্র্যাজুয়েশন শেষ করলেন নেপোলিয়ন, আর্মিতে হলেন সেকেন্ড লেফটেন্যান্ট। ফরাসী বিপ্লবের সময়ে ছিলেন প্যারিসে।

১৭৯২ সালে হন ক্যাপ্টেন। পরের ছয় বছরে সেনাদলের অনেক অভিযানেই অংশ নেন তিনি। তার যুদ্ধ স্ট্র্যাটেজির কারণে বিখ্যাত হন। এভাবেই ধীরে ধীরে ফ্রান্সের প্রভাবশালী এক জেনারেলে পরিণত হন। নেপোলিয়ন ফরাসি বিপ্লবের সময় বিপ্লবের নীতিগুলোতে বিশ্বাসী ছিলেন এবং বিপ্লবে সমর্থন করেন। বিপ্লবের পরে ফ্রান্সের ক্ষমতায় আসে রোবেসপিয়ের। কিন্তু তিনি ফ্রান্সে এক ত্রাসের শাসন কায়েম করেন। যে পিয়ের এর সঙ্গে সহমত পোষণ করছিলেন না তাকেই তিনি মৃত্যুদন্ড দিচ্ছিলেন। এভাবেই পিয়ের এর পতন হয় এবং ক্ষমতায় আসেন ডিরেক্টরি। এটা মূলত পাঁচজনের ছোট একটি নির্বাহি কমিটি। কিন্তু তারা অতিরিক্ত দূর্নীতি পরায়ণ ছিলেন এবং শাসনে অক্ষম ছিলেন। আর এদের বিরুদ্ধে এক সেনা অভ্যুত্থান এর মাধ্যমে নেপোলিয়ন ক্ষমতায় আসে। নেপোলিয়ন ১৭৯৯ সালে কনসুলেট এর মাধ্যমে এক গনভোটে ক্ষমতায় আরোহন করেন। কিন্তু নেপোলিয়ন কি পেরেছিলেন বিপ্লবের প্রতিশ্রুতিগুলো রাখতে?

নেপোলিয়ন ক্ষমতায় আসার পরে ফ্রান্সে নতুন সংবিধান পেশ করেন। এই সংবিধানে নেপোলিয়ন ফরাসি বিপ্লবের বেশিরভাগ শর্তই রেখেছিলেন। তিনি ফরাসীদের ধর্মীয় স্বাধীনতা, বংশগত অগ্রাধিকার রদ এবং আইনের চোখে সবাই সমান এই দৃষ্টিভঙ্গী নিশ্চিত করেন। কিন্তু বিপ্লবের পর চালু হওয়া নারী অধিকারের ধারাগুলো বিলুপ্ত করেন। এমনকি তিনি ফ্রান্সের উপনিবেশগুলোতেও দাসত্ব চালু করেন। যার ফলাফল হাইতি এখনো ভোগ করছে। এছাড়াও ফ্রান্সের প্রতিবেশী দেশগুলোতে আক্রমণ করেন এবং ফ্রান্সকে একটি যুদ্ধবাজ দেশে পরিণত করেন।

নেপোলিয়ন এর সমর্থকদের মতে ফ্রান্সের প্রতিবেশি দেশগুলো বারবার ফ্রান্স আক্রমণ করছিল। তাই নেপোলিয়ন আক্রমণকেই আত্মরক্ষার পথ হিসেবে বেছে নেন। অনেক ইতিহাসবিদ মনে করেন তার উচ্চতা কম বলে তাকে নিয়ে হওয়া ঠাট্টাগুলোর জবাব দিতে বিশ্বজয় করতে চেয়েছিলেন। কিন্তু নেপোলিয়ন এর উচ্চতা ছিল ৫ ফুট ৬ ইঞ্চি। যা কি-না তখনকার মানুষের গড় উচ্চতা। তাহলে কেনো তাকে বেটে বলা হত? এটা ছিল চিরশত্রু ব্রিটিশদের সৃষ্ট যুদ্ধকালীন গুজব। ১৮০১ সালে ইউরোপীয় দেশগুলো ফ্রান্সের বিপ্লবকে স্বীকৃতি দেয় এবং শান্তিচুক্তি করে। কিন্তু নেপোলিয়ন যুদ্ধ থামাননি। তাহলে আসলেই কি নেপোলিয়ন আত্মরক্ষার জন্য প্রতিবেশি দেশগুলোতে আক্রমন করেন?

নেপোলিয়ন যুদ্ধবাজ জেনারেল ছিলেন এবং পুরো ইউরোপ বিজয়ের স্বপ্ন দেখতেন। যেসব দেশ তার সমর্থন করছিল না তাদের বিরুদ্ধেই যুদ্ধ ঘোষণা দেন। এই যুদ্ধ থামাতে ফ্রান্সকে আরো নতুন যুদ্ধে জড়াতে হয়। যার ফলে লাখ লাখ ইউরোপীয় মৃত্যুবরণ করেন। এছাড়াও নেপোলিয়ন এর সময়ই পৃথিবী যুদ্ধের ভয়াবহতা বুঝেছিল। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পূর্বে নেপোলিয়নই বড় সৈন্যবহর তৈরি করেন। এরপর থেকেই পৃথিবীর মহাশক্তিগুলো সৈন্য ও সামরিক শক্তি প্রদর্শন এর প্রতিযোগিতায় লিপ্ত হন।

এভাবেই নেপোলিয়ন একের পর এক যুদ্ধে জড়িয়ে তার বিশ্বজয় এর স্বপ্ন পূরণ করতে চেয়েছিলেন। কিন্তু সেই স্বপ্ন রাশিয়া আক্রমণ করেই ভাঁটা পরে। রাশিয়ান হাড় কাঁপানো শীত নেপোলিয়নের বাহিনী সহ্য করতে পারেনি। পরের বছর খোঁদ তার নিজের দেশ ফ্রান্সই আক্রান্ত হল! অস্ট্রিয়া, প্রুসিয়া, রাশিয়া, ব্রিটেন, পর্তুগাল, সুইডেন, স্পেন, জার্মান সব একসঙ্গে ফ্রান্স আক্রমণ করে। নেপোলিয়ানের সময় শেষ হয়ে আসে, ফ্রান্স পরাজিত হয়।

ইতালির কাছে এলবা দ্বীপে নেপোলিয়ান নির্বাসিত হন। আবার ক্ষমতা দখল করেন, কিন্তু শেষ পর্যন্ত চূড়ান্তভাবে ইতিহাসের কুখ্যাত কিংবা বিখ্যাত ওয়াটারলু যুদ্ধে হেরে যান। ১৮১৫ সালের ১৮ জুন ইতিহাসের এই গুরুত্বপূর্ণ যুদ্ধ হয় বেলজিয়ামের ওয়াটারলুর কাছে। নেপোলিয়ন এই যুদ্ধে দু’টি সম্মিলিত শক্তি, ওয়েলিংটনের ডিউকের অধীন ব্রিটিশ সেনাবাহিনী এবং গাবার্ড ভন বুচারের অধীনে প্রুশিয়ান সেনাবাহিনীর নিকট পরাজিত হন। এই দু’ বাহিনী নেপোলিয়নের শত্রু ইউরোপীয় শক্তি সাত বাহিনীর সম্মিলনে গড়ে ওঠা মিত্র বাহিনীর কেবল দুটো ফোর্স ছিল। এ যুদ্ধে হারার সাত দিনের মাথায় ক্ষমতা ছেড়ে দেন নেপোলিয়ন। এবারে তার নির্বাসন হয় দক্ষিণ আটলান্টিক মহাসাগরের সেন্ট হেলেনা দ্বীপে। জীবনের শেষ ছয়টি বছর তিনি এই নির্বাসনে কাটান। নেপলিয়ন এর মৃত্যু নিয়ে অনেক ধারণা আছে। নেপোলিয়ন এর মৃত্যু কিভাবে হয়েছিল তা রহস্যই রয়ে যায়।

নেপলিয়ন যুদ্ধের মাধ্যমে হয়তো বিশ্ববাসীর জন্য অনেক খারাপ সময় নিয়ে আসেন। কিন্তু নেপোলিয়নই ইউরোপকে একটি ধর্ম বর্ণ বিদ্দেষী ও যুদ্ধে বিদ্ধস্ত মহাদেশ থেকে সভ্য এক মহাদেশ রূপান্তর করেন। তিনি ইউরোপকে নতুন করে ঢেলে সাজান। নেপোলিয়ন ছাড়া হয়তো আধুনিক ইউরোপ গঠন সম্ভব ছিল না।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএমএস/এসজেড

আরোও পড়ুন
সর্বাধিক পঠিত
ঈশা আম্বানিকে শ্বশুরের আকাশ ছোঁয়া উপহার!
ঈশা আম্বানিকে শ্বশুরের আকাশ ছোঁয়া উপহার!
ধেয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড় ‘পিথাই’
ধেয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড় ‘পিথাই’
জনসম্মুখে পুরুষ নির্যাতন, ভিডিও ভাইরাল!
জনসম্মুখে পুরুষ নির্যাতন, ভিডিও ভাইরাল!
বিয়ে হতে না হতেই গর্ভবতী প্রিয়াঙ্কা!
বিয়ে হতে না হতেই গর্ভবতী প্রিয়াঙ্কা!
কাতলায় সাবধান! হুঁশিয়ারি গবেষকদের
কাতলায় সাবধান! হুঁশিয়ারি গবেষকদের
সানি লিওনের সঙ্গে হিরো আলম!
সানি লিওনের সঙ্গে হিরো আলম!
বই পড়ানো ইউসুফ এখন দুদকে!
বই পড়ানো ইউসুফ এখন দুদকে!
৮৩ জিবি পর্ন ভিডিও উদ্ধার, কারাদণ্ড
৮৩ জিবি পর্ন ভিডিও উদ্ধার, কারাদণ্ড
সানরাইজার্স হায়দ্রাবাদে মুশফিকুর রহিম!
সানরাইজার্স হায়দ্রাবাদে মুশফিকুর রহিম!
আইপিএলের চূড়ান্ত নিলামে দুই বাংলাদেশি
আইপিএলের চূড়ান্ত নিলামে দুই বাংলাদেশি
গিন্নিকে বিয়ে করলেন কপিল শর্মা
গিন্নিকে বিয়ে করলেন কপিল শর্মা
২০১৯ নিয়ে অন্ধ নারীর ভয়ঙ্কর ভবিষ্যদ্বাণী!
২০১৯ নিয়ে অন্ধ নারীর ভয়ঙ্কর ভবিষ্যদ্বাণী!
২ তারিখ খালেদা জিয়াকে বের করে আনবো
২ তারিখ খালেদা জিয়াকে বের করে আনবো
বিবাহবার্ষিকীতে শাওনের আবেগঘন স্ট্যাটাস
বিবাহবার্ষিকীতে শাওনের আবেগঘন স্ট্যাটাস
যাদের টাকায় নির্বাচন করবেন হিরো আলম
যাদের টাকায় নির্বাচন করবেন হিরো আলম
নতুন মিরজাফর ড. কামাল-কাদের
নতুন মিরজাফর ড. কামাল-কাদের
নৌকার প্রচারণায় একঝাঁক তারকা
নৌকার প্রচারণায় একঝাঁক তারকা
শরীর দেখিয়ে সানিকে টক্করের চ্যালেঞ্জ পাকিস্তানি মডেলের!
শরীর দেখিয়ে সানিকে টক্করের চ্যালেঞ্জ পাকিস্তানি মডেলের!
ক্ষমতায় গেলে বেকার যুবকদের ভাতা দেয়া হবে : হিরো আলম
ক্ষমতায় গেলে বেকার যুবকদের ভাতা দেয়া হবে : হিরো আলম
শিশিরকে আবারো গাড়ি উপহার সাকিবের!
শিশিরকে আবারো গাড়ি উপহার সাকিবের!
শিরোনাম :
আবারো নির্বাচিত হলে প্রায় দেড় কোটি নতুন কর্মসংস্থান সৃষ্টি করবে আওয়ামী লীগ আবারো নির্বাচিত হলে প্রায় দেড় কোটি নতুন কর্মসংস্থান সৃষ্টি করবে আওয়ামী লীগ জামায়াতের ২২ নেতার প্রার্থিতা বাতিল চেয়ে নির্বাচন কমিশনে দেয়া আবেদন তিন দিনের মধ্যে নিষ্পত্তির আদেশ হাইকোর্টের জামায়াতের ২২ নেতার প্রার্থিতা বাতিল চেয়ে নির্বাচন কমিশনে দেয়া আবেদন তিন দিনের মধ্যে নিষ্পত্তির আদেশ হাইকোর্টের ঢাকাসহ সারাদেশে ১০১৬ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন ঢাকাসহ সারাদেশে ১০১৬ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন মুম্বাইয়ে হাসপাতালে আগুন; শিশুসহ নিহত ৮, আহত শতাধিক মুম্বাইয়ে হাসপাতালে আগুন; শিশুসহ নিহত ৮, আহত শতাধিক