কোটি টাকার প্রকল্পে নেই ঝুঁকিপূর্ণ ব্রিজ

ঢাকা, বুধবার   ২২ মে ২০১৯,   জ্যৈষ্ঠ ৭ ১৪২৬,   ১৬ রমজান ১৪৪০

Best Electronics

কোটি টাকার প্রকল্পে নেই ঝুঁকিপূর্ণ ব্রিজ

 প্রকাশিত: ১৯:৪৭ ৮ অক্টোবর ২০১৮   আপডেট: ১৯:৫২ ৮ অক্টোবর ২০১৮

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ঝালকাঠির রাজাপুর বাইপাস থেকে কাঁঠালিয়ার আমুয়া ফেরিঘাট পর্যন্ত দীর্ঘ ৩১ কিলোমিটার সড়ক। এ সড়কের ৪টি ব্রিজসহ সড়ক নির্মাণের কাজ শুরু হলেও রাজাপুরের পুটিয়াখালি গ্রামের তাল্লুক এলাকার খালের ওপরের ঝুঁকিপূর্ণ বেইলি ব্রিজটি বাদ পড়েছে। এ প্রকল্পে কোটি টাকারও বেশি টাকা ব্যয়ে এ কাজ সম্পন্ন হবে কিন্তু এ ব্রিজটি তখন এ সড়কের গলার কাটা হয়ে দাড়াবে। 

জানা গেছে, সড়ক নির্মাণের সময় ওই খালটি স্থায়ীভাবে বন্ধ করে দেয়া হয়। পরে এলাকাবাসী কৃষি কাজের  পানির জন্য রাস্তা কেটে পাইপের মাধ্যমে পানি চলাচল ব্যবস্থা করেন। পানির স্রোতে এক সময় সেই পাইপ ভেসে যায়। তড়িঘড়ি করে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ ওই খালের দুই পাড়ে কোন গাইড ওয়াল না করে শুধু মাটির ওপরে বেইলি ব্রিজের স্ট্রাকচার স্থাপন করেন। ওই সড়কের কোথাও গাইড ওয়াল ছাড়া শুধু মাটির ওপরে এরকম কোন ঝুঁকিপুর্ণ ব্রিজ নাই। ৪টি ব্রিজসহ ওই সড়কের কাজ শুরু হলেও ওই ঝুঁকিপুর্ণ ব্রিজটি বাদ পড়ে এ মেগা প্রকল্প থেকে। 

স্থানীয়রা জানান, বর্তমানে চলমান প্রকল্পটির কাজ বাস্তবায়ন হলে এ সড়ক দিয়ে ভারি যানবাহন চলাচল করবে। তখন এ ব্রিজটি যেকোন সময় ভেঙে পড়ে বড় দুর্ঘটনা ঘটবে। এরকম ঝুকিপূর্ণ ব্রিজ বাদ দিয়ে এ প্রকল্প সম্পন্ন করা সঠিক হয়। তাই দ্রুত ভেঙে নতুন ঢালাইয়ে ব্রিজ নির্মাণ করার দাবি এলাকাবাসীর। 

ঝালকাঠির সড়ক ও জনপদের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী শেখ নাবিল হোসেন বলেন, ১শ’ কোটি টাকা ব্যয়ে ঝালকাঠির রাজাপুর বাইপাস থেকে কাঁঠালিয়ার আমুয়া ফেরীঘাট পর্যন্ত দীর্ঘ ৩১ কিলোমিটার সড়কের দুই পাশে ৬ ফুট বৃদ্ধি ও ৪টি ব্রিজসহ নির্মাণ কাজ ৩০ শে জুন ২০১৮ সালে শুরু হয়েছে। ৩০শে জুন ২০১৯সালে শেষ হওয়ার কথা থাকলেও সময় বাড়ানো লাগতে পারে। এ বরাদ্ধের মধ্যে পুটিয়াখালি গ্রামের সাতানী খালের ওপর একটি ব্রিজ, সেন্টারের হাট খালের ওপর একটি ব্রিজ, কচুয়া খালের ওপর একটি ব্রিজ ও কাঁঠালিয়া খালের ওপর একটি ব্রিজ নির্মাণ করা হবে। তবে রাজাপুর উপজেলার পুটিয়াখালি গ্রামের মীরের হাটের উত্তর পাশের দাসের তাল্লুক নামক এলাকার খালের ওপরের ঝুঁকিপুর্ণ বেইলি ব্রিজটি এই বরাদ্ধের মধ্যে নাই। 

ডেইলি বাংলাদেশ/জেডএম

Best Electronics