হলিউড মাতানো সুন্দরীরা (১ম পর্ব)

ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ২০ জুন ২০১৯,   আষাঢ় ৮ ১৪২৬,   ১৫ শাওয়াল ১৪৪০

হলিউড মাতানো সুন্দরীরা (১ম পর্ব)

 প্রকাশিত: ১২:৫৯ ৮ নভেম্বর ২০১৮   আপডেট: ১২:০৬ ১১ নভেম্বর ২০১৮

ছবি: সংগৃহিত

ছবি: সংগৃহিত

হলিউডে সুন্দরী অভিনেত্রীসহ সুন্দরী গায়িকা অনেকেই আছেন। কিন্তু প্রেমের প্রস্তাব তো আর সবাইকে দিতে ইচ্ছে করবে না! তবে সম্প্রতি হলিউডের একটি ওয়েবসাইট এমন দশজন শীর্ষ সুন্দরীর তালিকা প্রকাশ করেছে।

যাদের দেখলেই না-কি আপনার প্রেম নিবেদন করতে ইচ্ছে করবে! এটি ওয়েবসাইটটির মতামত। তবে সুন্দরীদের প্রোফাইল আর ছবি দেখে আপনি নিজেই কথাটির সত্যতা মিলিয়ে নিতে পারেন। অথবা ভেবে নিতে পারেন কাকে আপনি মনে মনে প্রেম নিবেদন করবেন!এমনই কয়েকজন পরিচিত সুন্দরী সম্পর্কে জেনে নিন- 

(১) মনিকা বেলুচি

সহজাত সৌন্দর্য, আকর্ষণীয় ফিটনেস ও অসাধারণ ব্যক্তিত্বের অধিকারিণী মনিকা অনেক পরিচালকেরই কাঙ্খিত অভিনেত্রী। তিনি এখনো একবারের জন্যও অস্কার নমিনেশন পাননি কিন্তু পৃথিবী জুড়ে তার ভক্তের সংখ্যা অসংখ্য। বিশেষ করে তিনি অনেক তরুণ ভক্তের 'ড্রিম গার্ল'এ পরিণত হয়েছেন। ইতালিয়ান এ অভিনেত্রী ও মডেলের পুরো নাম মনিকা আনা মারিয়া বেলুচি। একজন ফ্যাশন মডেল হিসেবেই সুনাম কুড়িয়ে পরে চলচ্চিত্রের রঙিন জগতে প্রবেশ তার। ১৯৯২ সালে  'ব্রাম স্টোকার্স ড্রাকুলা' ছবির মাধ্যমে হলিউডে পা রাখেন এই সুন্দরী।

অভিনয় করেছেন কানাডিয়ান, ইরানিয়ান, স্প্যানিশ ও ফ্রেঞ্চ ছবিতেও। ভালো অভিনয়ের স্বীকৃতিস্বরুপ পেয়েছেন ইউরোপিয়ান গোল্ডেন গ্লোব অ্যাওয়ার্ডও। তার অভিনীত উল্লেখযোগ্য ও দর্শকপ্রিয় ছবিগুলোর মধ্যে রয়েছে- জোসেফ, আন্ডার সাসপিশিয়ান, টিয়ারস অব দ্য সান, দ্য ম্যাট্রিক্স রিলোডেড, নেপোলিয়ন অ্যান্ড মি, ম্যালেনা, স্পেক্টর প্রভৃতি। দু'বার বিয়ে করলেও একটি সংসারও টিকেনি তার। তবে দুই সন্তানের জননী হওয়া স্বত্ত্বেও মনিকাতেই বিভোর সকলে!

(২) নাতালি পোর্টম্যান 

ইসরায়েল ও যুক্তরাষ্টের নাগরিক নাতালি পোর্টম্যানের জন্ম ১৯৮১ সালের ৯ জুন জেরুজালেমে। যুক্তরাষ্ট্রের হার্ভাড বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সুবাদে হলিউডপাড়ার সঙ্গে পরিচয় ঘটে তার। মিষ্টি হাসির অধিকারিণী নাতালি তার হাসির মাধ্যমেই সকলের হৃদয় কেড়েছেন। বিখ্যাত এই অভিনেত্রীর হলিউডে অভিষেক হয় ১৯৯৪ সালে 'লিয়ন:দ্য প্রফেশনাল' ছবির মাধ্যমে। এরই মধ্যে সংখ্যাটি  হাফ সেঞ্চুরি ছুঁয়েছে। আবার সাতটি ছবির প্রযোজকও তিনি। তবে ক্রাইম থ্রিলার 'হিট' ছবির মাধ্যমে জানান দেন হলিউড কাঁপাতে সক্ষম এই সুন্দরী। জিতে নিয়েছেন গোল্ডেন গ্লোব ও অ্যাকাডেমি অ্যাওয়ার্ডও!তার অভিনীত উল্লেখযোগ্য ছবিগুলোর মধ্যে রয়েছে- বিউটিফুল গার্লস, এভরিওয়ান সেজ আই লাভ ইউ, মার্স অ্যটাকস, এনিহয়্যার বাট হেয়ার, হয়্যার দ্য হার্ট ইজ, কোল্ড মাউন্টেইন প্রভৃতি। ২০১২ সালে ফ্রেঞ্চ কোরিওগ্রাফার ও নৃত্যশিল্পী বেঞ্জামিন মাইলপিডকে বিয়ে করেন তিনি।

(৩) জেনিফার লোপেজ 

পুরো নাম জেনিফার লিন লোপেজ। একাধারে তিনি গায়িকা, গীতিকার, অভিনেত্রী, নৃত্যশিল্পী ও প্রযোজক। ১৯৬৯ সালের ২৪ জুলাই নিউইয়র্কে জন্মগ্রহণ করেন এই পপ তারকা। ১৯৮৬ সালে মাই লিটল গার্ল নামক ছবিতে ছোট্ট একটি চরিত্রের মাধ্যমে বিনোদন জগতে প্রবেশ ঘটে তার।১৯৯৯ সালে 'অন দ্য সিক্স' অ্যালবাম দিয়ে শ্রোতাদের হৃদয়ে ঝড় তোলেন জেনিফার।এরপর একে একে প্রকাশিত হয়- জে.লো, দিস ইজ মি...দেন, রিবার্থ, ব্রেভ, লাভ এলবামগুলো। রীতিমতো বিলবোর্ড কাঁপিয়েছেন গান দিয়ে। তার অভিনীত উল্লেখযোগ্য ছবিগুলোর মধ্যে রয়েছে- অ্যানাকোন্ডা, ব্লাড এন্ড ওয়াইন, আউট অব সাইট, দ্য ওয়েডিং প্ল্যানার, অ্যাঞ্জেল আইজ, জার্সি গার্ল, পার্কার অন্যতম। তিনবারের ডিভোর্সি এই সুন্দরী দুই সন্তানের মা হওয়া স্বত্ত্বেও আবেদন হারাননি তিনি।

(৪) চার্লিজ থেরন দক্ষিণ আফ্রিকার বেনোনিতে ১৯৭৫ সালের ৭ আগস্ট জন্মগ্রহণ করেন তিনি।২০০৭ সালে মার্কিন নাগরিকত্ব লাভ করেন এই অভিনেত্রী ও প্রযোজক। সেরা অভিনেত্রী হিসেবে সিলভার বিয়ার, স্ক্রীন অ্যাক্টর্স গিল্ড, গোল্ডেন গ্লোব ও অ্যাকাডেমি অ্যাওয়ার্ড(অস্কার) জিতেছেন। তিনি অভিনয়ের পাশাপাশি একজন ভালো ড্যান্সারও। ১৪ বছর বয়সে তার অভিনয় ভুবনে যাত্রা শুরু হয়।

মার্কিন হরর ছবি 'চিলড্রেন অব দ্য কর্ন থ্রি:আরবান হার্ভেস্ট' এর মাধ্যমে চার্লিজ থেরনের হলিউড অভিষেক ঘটে। তার অভিনীত উল্লেখযোগ্য ছবিগুলোর মধ্যে রয়েছে- টু ডেজ ইন দ্য ভ্যালি, দ্য ডেভিলস অ্যাডভোকেট, মনস্টার, প্রমিথিউস, ডার্ক প্লেসেস প্রভৃতি। ২০১৬ সালের টাইম ম্যাগাজিনের সেরা ১০০ জন প্রভাবশালী ব্যক্তিদের একজন ছিলেন থেরন!

(৫) এমা স্টোন

গতবছর এমা স্টোন অভিনীত 'লা লা ল্যান্ড' অস্কারে সেরা ছবির পাশাপাশি সেরা অভিনেত্রী এবং আরো অনেকগুলো পুরষ্কারও নিজের ঘরে নেয়। এমিলি জেন স্টোন ১৯৮৮ সালের ৬ নভেম্বর যুক্তরাষ্ট্রের অ্যারিজোনায় জন্মগ্রহণ করেন। স্টোনের অভিনয় জীবন শুরু হয় ২০০০ সালে 'দ্য উইন্ড ইন দ্য উইলোস' মঞ্চ নাটকে শিশু শিল্পী হিসেবে। ২০১১ সালে অভিনয় করেন ব্যবসাসফল 'ক্রেজি, স্টুপিড, লাভ' এবং প্রশংসিত 'দ্য হেল্প' চলচ্চিত্রে। ২০১২ সালে গুয়েন স্ট্যাসি চরিত্রে 'দি অ্যামেজিং স্পাইডার-ম্যান' এবং ২০১৪ সালে এর অনুবর্তী পর্ব 'দি অ্যামেজিং স্পাইডার-ম্যান ২' চলচ্চিত্রে অভিনয় তাকে বিপুল খ্যাতি এনে দেয়। ২০১৪ সালে তিনি ব্ল্যাক কমেডি-নাট্যধর্মী বার্ডম্যান চলচ্চিত্রে একজন মাদকসেবীর চরিত্রে অভিনয় করেন। ফলস্বরুপ শ্রেষ্ঠ পার্শ্ব-অভিনেত্রীর জন্য একাডেমি পুরস্কার-এ ভূষিত হন। ২০১৭ সালের সর্বোচ্চ পারিশ্রমিক পাওয়া অভিনেত্রীদের তালিকায় এমা স্টোনের অবস্থান ছিল প্রথম!

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএমএস