নির্বাচনী হাওয়ায় শাহিন-আমান

ঢাকা, মঙ্গলবার   ২৫ জুন ২০১৯,   আষাঢ় ১১ ১৪২৬,   ২০ শাওয়াল ১৪৪০

ঢাকা-২ (কেরানীগঞ্জ-কামরাঙ্গীরচর)

নির্বাচনী হাওয়ায় শাহিন-আমান

 প্রকাশিত: ১৪:২৬ ১৮ জুলাই ২০১৮   আপডেট: ০৮:৪৮ ১৯ জুলাই ২০১৮

ঢাকা-২ আসনে মনোনয়ন দৌড়ে এগিয়ে থাকা প্রার্থীরা

ঢাকা-২ আসনে মনোনয়ন দৌড়ে এগিয়ে থাকা প্রার্থীরা

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে পাল্টাতে শুরু করেছে রাজনীতির হাওয়া। ঢাকা-২ (কেরানীগঞ্জ-কামরাঙ্গীরচর) আসনও এর ব্যতিক্রম নয়। আগামী নির্বাচনের প্রক্রিয়া নিয়ে বড় দু’দলে মতবিরোধ থাকলেও নিজ নিজ এলাকায় প্রচার-প্রচারণা ও গণসংযোগে ব্যস্ত সব দলের নেতাকর্মীরা।

দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচন বর্জন, নানাবিধ সঙ্কট ও ক্ষমতার পালা বদলে এক সময়কার বিএনপির দুর্গে আওয়ামী লীগের হানায় কেরানীগঞ্জ ও কামরাঙ্গীরচরে সে চিত্র এখন অতীত।
 
২০০৮ সালে ঢাকা-২ থেকে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে বিপুল ভোটে জয়ী হন অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম। দায়িত্ব পান আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রীর। নবম জাতীয় সংসদে তিনি আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের স্থায়ী কমিটির সদস্যও ছিলেন। 
 
২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে একই এলাকা থেকে কামরুল ইসলাম বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় এমপি হন। দায়িত্ব পান খাদ্যমন্ত্রীর। এবারও তিনি মনোনয়ন দৌড়ে বিরতিহীনভাবে চালিয়ে যাচ্ছেন গণসংযোগ। 
 
ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেতে কামরুল ইসলামের পাশাপাশি মাঠে নেমেছেন মাটি-মানুষের নেতা কেরানীগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান ও থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি শাহিন আহমেদ। মনোনয়ন বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এলাকার মানুষকে আমি ভালোবাসি। আমি তাদের জন্য কিছু করতে চাই। তারাও (এলাকাবাসী) আমাকে পাশে দেখতে চায়। তিনি জানান, আমরা প্রতিনিয়ত বিভিন্ন সামাজিক ও সুশীল সমাজের প্রতিনিধিদের সঙ্গে আলোচনা, উঠান বৈঠক করে যাচ্ছি। 
 
ঢাকা-২ এর মানুষ একজন স্থানীয় প্রতিনিধি চায়। আপনারা জানেন, বর্তমান এমপি এখানকার বাসিন্দা নয়। ভোটারও নন। তিনি লালবাগের ভোটার। ঢাকা-২ এর মানুষের দাবি স্থানীয় একজনকে যেন নৌকা প্রতীক দেয়া হয়। কারণ নেত্রী সভা-সমাবেশ গুলোতে বলেছেন তৃণমূলের সঙ্গে যাদের সম্পর্ক, সাধারণ জনগণের পাশে যারা থাকবে,তাদেরই মনোনয়ন দেয়া হবে। সেই দিক থেকে আমি শতভাগ আশাবাদী।
 
এক প্রশ্নের জবাবে উপজেলা চেয়ারম্যান শাহিন বলেন, আওয়ামী লীগ দেশের বৃহত্তম রাজনৈতিক দল। এত বড় দলে একটা আসনে ৪/৫ জন মনোনয়ন চাইবেন, এটাই স্বাভাবিক। তবে নৌকা প্রতীকের বাইরে গিয়ে কেউ বিদ্রোহী হলেও তার জয়ের সম্ভাবনা নেই। নৌকার বাইরে যাওয়ার কোনো সুযোগ নেই।
 
আরেক প্রশ্নের উত্তরে শাহিন আহমেদ বলেন, বর্তমান এমপি ঢাকা-২ নিয়ে ভাবেন না। তিনি মন্ত্রণালয় নিয়েই বেশি সময় ব্যয় করে থাকেন। এলাকায় যা করণীয়, তা আমার মাধ্যমেই হয়েছে।
 
স্থানীয় নেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় উপ কমিটির সাবেক সহ-সম্পাদক আলতাফ হোসেন বিপ্লবও নৌকা প্রতীক পেতে কাজ করে যাচ্ছেন।
 
বর্তমান এমপি কামরুল ইসলাম ও উপজেলা চেয়ারম্যান শাহিন আহমেদের মধ্যে প্রচার-প্রচারণা নিয়ে প্রাথমিক কিছু প্রতিযোগিতা থাকলেও, তা খুব জোরালোভাবে দৃশ্যমান নয়। এ আসনে আওয়ামী লীগের অবস্থান খুব ভালো। এছাড়া এখানে  আওয়ামী লীগের কোনো প্রার্থীর মধ্যে তেমন কোনো গ্রুপিং নেই। 
 
মনোনয়ন বিষয়ে আলতাফ হোসেন বিপ্লব জানান, ৯০ এর ছাত্র আন্দোলন থেকে শুরু করে এলাকার রাজনীতির সঙ্গে আছি। জনগণের প্রতিনিধি হয়ে তাদের পাশে থাকতে চাই। আমি মনোনয়ন চাইব। তবে দল যাকে মনোনয়ন দেবে তার হয়েই কাজ করবো। বর্তমান এমপি ও উপজেলা চেয়ারম্যান দু’জনের ডাকেই সাড়া দেই। আমার সভাপতিত্বে প্রতি সপ্তাহে দু’একটি সামাজিক ও রাজনৈতিক অনুষ্ঠান হয়ে থাকে। বর্তমান এমপি এলাকার উন্নয়নে কোনো ঘাটতি রাখেননি। আবার শাহিন আহমেদও ভালো। 
 
এদিকে,দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ না নিলেও একাদশ সংসদ নির্বাচনে অংশ নেয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছে দীর্ঘদিন ক্ষমতার বাইরে থাকা দেশের বৃহত্তম রাজনৈতিক দল বিএনপি।
 
স্থানীয় নেতাদের ধারণা,আগামী নির্বাচনে যিনি দল থেকে এ আসনে মনোনয়ন পাবেন তিনিই হবেন বিএনপি’র কাণ্ডারি। তাকে কেন্দ্র করে বিএনপি হারানো অবস্থা শুধু ফিরেই পাবে না আওয়ামী লীগ প্রার্থীকে পরাজিতও করবে। তাই এ সুযোগ কাজে লাগাতে চান মনোনয়ন প্রত্যাশীরা।
 
এ আসনে বিএনপির মনোনয়ন দৌড়ে এগিয়ে রয়েছেন চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আমান উল্লাহ আমান ও কামরাঙ্গীরচর থানা বিএনপির সভাপতি মনির হোসেন। আমান উল্লাহ আমান সাবেক ছাত্রনেতা ও পরীক্ষিত জাতীয়তাবাদী নেতা। জানা গেছে,  তৃণমূল ও হাই কমান্ডের সঙ্গে ভাল যোগাযোগ থাকায় এ আসনে আমান উল্লাহ আমানের বিকল্প নেই। এদিকে অনুসারীদের দিয়ে উপজেলা বিএনপি, যুবদল, ছাত্রদল চালাচ্ছেন মনির হোসেন। তাই তিনিও আগামী নির্বাচনে ধানের শীষ নিয়ে লড়তে চান।
 
একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এককভাবে অংশ নিতে চায় এরশাদের জাতীয় পার্টি (জাপা)। এ লক্ষ্যে সারা দেশের ৩০০ আসনে চার শতাধিক প্রার্থীর খসড়া তালিকা তৈরি করেছে দলটির হাইকমান্ড। এ তালিকায় ঢাকা-২ (কেরানীগঞ্জ-কামরঙ্গীরচর) এ বিশ্বনাথ উপজেলা জাতীয় পার্টির সাবেক অর্থ সম্পাদক শাকিল আহমেদ শাকিল রয়েছেন। এছাড়াও মনোনয়ন দৌড়ে আছেন স্থানীয় জাপা নেতা মো.শাহজাহান। 

নবম জাতীয় নির্বাচনের আগে (ঢাকা-৩) নির্বাচনী আসনটি বিভক্ত করা হয়েছিল (ঢাকা-২ ও ঢাকা-৩) আসনে। কেরানীগঞ্জের একাংশের সঙ্গে ডিসিসির ৫৫, ৫৬ ও ৫৭ নম্বর ওয়ার্ড, কামরাঙ্গীর চর, হাজারীবাগের সুলতানগঞ্জ ইউনিয়ন ও সাভারের আমিনবাজার, তেঁতুলঝোড়া ও ভাকুর্তা ইউনিয়ন গঠিত ঢাকা-২।

জোট অথবা দল যেভাবেই হোক এবার ঢাকা-২ আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে দ্বিমুখি।

ডেইলি বাংলাদেশ/ডিএম/এএএম/আজ/এলকে

আরো পড়ুন

ঢাকা-১ (দোহার-নবাবগঞ্জ)

হারানো আসন পুণরুদ্ধারে মরিয়া দু’দল