Alexa নারীদের মাসিক স্বাস্থ্য পাঠ্যপুস্তকে সমাধান নয়

ঢাকা, বুধবার   ১৬ অক্টোবর ২০১৯,   কার্তিক ২ ১৪২৬,   ১৭ সফর ১৪৪১

Akash

নারীদের মাসিক স্বাস্থ্য পাঠ্যপুস্তকে সমাধান নয়

নিজস্ব প্রতিবেদক

 প্রকাশিত: ২০:০৯ ২০ ডিসেম্বর ২০১৮   আপডেট: ২০:০৯ ২০ ডিসেম্বর ২০১৮

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ড. সৈয়দ গোলাম ফারুক বলেছেন, নারীদের মাসিক স্বাস্থ্য ব্যবস্থাপনার বিষয়টি একটি জাতীয় সমস্যা। এ ধরনের সমস্যা পাঠ্যপুস্তকে অন্তর্ভুক্তির মাধ্যমে সমাধান করা সম্ভব না।

বৃহস্পতিবার জাতীয় প্রেসক্লাবে বাংলাদেশ নারী প্রগতি সংঘ (বিএনপিএস) এবং মেন্সচুরাল হাইজিন ম্যানেজমেন্ট (এমএইচএম) প্লাটফর্ম আয়োজিত নারীদের মাসিক স্বাস্থ্য শিক্ষার গুরুত্ব বিষয়ক এক পরামর্শ সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

গোলাম ফারুক বলেন, ‘নারী স্বাস্থ্য, বিশেষ করে তাদের মাসিক সমস্যার বিষয়টি পাঠ্যপুস্তকের মাধ্যমে শেখানো সম্ভব না। শিক্ষার্থীদের সচেতন করে তুলতে হবে। এ লক্ষ্যে তাদেরকে বিভিন্ন সামাজিক কর্মকাণ্ডে অংশগ্রহণ ও বই পড়ার অভ্যাস করাতে হবে।

তিনি বিখ্যাত নাট্যকার ‘জর্জ বার্নার্ড শ’র উদাহরণ দিয়ে বলেন, বার্নার্ড শ বলেছিলেন, তার বই যেন কখনো পাঠ্যপুস্তকের অন্তর্ভুক্ত করা না হয়। তাহলে বইয়ের পরামর্শগুলো ধ্বংস হয়ে যাবে।

তিনি বলেন, যেখানেই যাই না কেনো সবাই পাঠ্যপুস্তকে অন্তর্ভুক্তির কথা বলে। আবার এদিকে বইয়ের ওজন ভারি হয়ে যাচ্ছে। আমরা সব দিক থেকেই চাপে আছি। আর কারিকুলামে এরকম জাতীয় সমস্যা অন্তর্ভুক্ত করা হলো একটি সহজ দায়মুক্তি। কিন্তু এভাবে সমস্যার সমাধান ঘটবে বলে আমার মনে হয় না।

এদিকে নারীদের মাসিক স্বাস্থ্য শিক্ষার বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে পাঠ্যপুস্তকে অন্তর্ভুক্ত করার বিষয়ে জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড (এনসিটিবি) ভাবছে বলে জানিয়েছেন এনসিটিবি’র সদস্য অধ্যাপক মো. মোশিউজ্জামান। 

অধ্যাপক মোশিউজ্জামান বলেন, ডিসেম্বর থেকে নতুন কারিকুলাম প্রণয়নের কাজে হাত দিচ্ছি আমরা। এ বিষয়টিকে আমরা গুরুত্বের সঙ্গে স্বাগত জানাতে চাই। প্রতি বছর আমরা সবার মতামত নিয়েই কাজ করি কিন্তু তারপরও সমালোচনার সম্মুখীন হতে হয়। তাই এ বিষয়ে অত্যন্ত সতর্কতার সঙ্গে আমরা কাজ করছি।   

বিএনপিএস’র নির্বাহী পরিচালক এবং এমএইচএম প্লাটফর্মের চেয়ারম্যান রোকেয়া কবীরের নেতৃত্বে সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইনস্টিটিউট অব অ্যাডুকেশন অ্যান্ড রিসার্চের পরিচালক প্রফেসর সৈয়দা তাহমিনা আখতার, টিচার্স ট্রেনিং কলেজের প্রিন্সিপ্যাল প্রফেসর কানিজ সৈয়দা বিনতে সাবাহ, নেদারল্যান্ড দূতাবাসের সিনিয়র পলিসি অ্যাডভাইজার মাশফিকা জামান সাতিয়ার, ইউনিসেফের শিক্ষা বিশেষজ্ঞ ইকবাল হোসেন, ইউবিআর অ্যালায়ান্সের প্রোগ্রাম কো-অর্ডিনেটর শারমীন ফায়াদ উবায়েদ। এছাড়া মাসিক স্বাস্থ্য বিষয়ে এনসিটিবির বইয়ের বিশ্লেষণ থেকে প্রাপ্ত তথ্য উপস্থাপন করেন আইসিসিডিআর,বি’র গবেষক টিশান মাহফুজ।

ডেইলি বাংলাদেশ/সেতু/আরএইচ/এমআরকে