Alexa নামেই ডিজিটাল সেন্টার!

ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০,   ফাল্গুন ১৪ ১৪২৬,   ০৩ রজব ১৪৪১

Akash

নামেই ডিজিটাল সেন্টার!

মুকসুদপুর (গোপালগঞ্জ) প্রতিনিধি  ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ০০:৪৫ ২৯ জানুয়ারি ২০২০  

ছবি : ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি : ডেইলি বাংলাদেশ

গোপালগঞ্জের মুকসুদপুরে সরকারি দফতর ছাড়াও প্রতিটি ইউপি ও পৌরসভায় রয়েছে ডিজিটাল সেন্টার। তবে এসব ডিজিটাল সেন্টার শুধু নামেই, কাজের ক্ষেত্রে চলছে এনালগ সিস্টেমেই। 

এ উপজেলায় সরকারি-বেসরকারি, স্বায়ত্তশাসিত, প্রশাসনিক, উপজেলা, পৌরসভা ও ইউপি’র ওয়েবসাইটগুলোতে নতুন কোনো তথ্য হালনাগাদ নেই। এসব ওয়েবসাইটে প্রবেশ করে দেখা গেছে, দু'একটি প্রতিষ্ঠান ছাড়া অধিকাংশ ওয়েবসাইটে নতুন কোনো তথ্য আপডেট করা হয়নি। এমনকি দীর্ঘ দিন আগে বদলি হওয়া কর্মকর্তাদের নাম এখনো চলতি দায়িত্ব হিসেবে দেখা যাচ্ছে। 

উপজেলা প্রশাসনসহ বেশ কয়েকটি সরকারি অফিসের তথ্যে এমন গড়মিল পাওয়া গেছে। ফলে ডিজিটাল সেবার নামে তথ্য বিভ্রান্তিতে পড়ছেন উপজেলার জনগণ। 

এসব ওয়েবসাইট পর্যবেক্ষণ করে দেখা যায়, মুকসুদপুর থানার ওসি, উপজেলা আনসার ও ভি,ডি,পি কর্মকর্তা, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার, প্রকৌশলীর কার্যালয়, তথ্য ও যোগাযোগ কর্মকর্তার কার্যালয়, খাদ্য নিয়ন্ত্রক, ফরেস্টার অফিসার, উপজেলা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির (মুকসুদপুর জোনাল অফিস), সমবায় অফিস, হিসাব রক্ষণ কর্মকর্তা, নির্বাচন অফিসার, পোস্ট অফিস, বিআরডিবি অফিসসহ অন্তত ১৫টি অফিসের প্রধান বদলি হয়ে গেছে অনেক আগেই। কিন্তু তাদের ওয়েবসাইটে এখনো চলতি দায়িত্ব হিসেবে দেখাচ্ছে আগের কর্মকর্তাদের নাম। 

এ ছাড়া এসব প্রতিষ্ঠানের বিভিন্ন কর্মকাণ্ড ও প্রয়োজনীয় কোনো নোটিশ ওয়েবসাইটে আপলোড করা হয়নি। শুধু উপজেলা প্রশাসন নয় কিছু ইউপিতে ডিজিটাল সেবার কোনো নামগন্ধই নেই।

ওয়েবসাইটগুলোতে প্রয়োজনীয় তথ্য হালনাগাদ করার কথা থাকলেও কোনো তথ্য মিলে না সেখানে। যেসব কর্মকর্তা ২০১৫ সালে অবসরে চলে গেছে তাদের নাম এখনো রয়েছে। যে কর্মকর্তা বদলি হয়েছেন ২ থেকে ৩ বছর আগে, ওয়েবসাইটে সেই কর্মকর্তার নাম এখনো বহাল রাখা হয়েছে।

উপজেলা, পৌরসভা ও ইউপি’র অধিকাংশ ওয়েবসাইটগুলোর সর্বশেষ আপডেট হয়েছে প্রায় ২ বছর আগে। 

এদিকে, সাইটগুলো পরিচালনা বা নিয়মিত আপডেট দেয়ার জন্য প্রতিটি প্রতিষ্ঠানে আলাদা একজন করে কম্পিউটার অপারেটর নিয়োগ দেয়া থাকলেও তা কোনো কাজেই আসছে না।

এ ব্যাপারে ইউএনও মোসা. তাসলীমা আলী বলেন, এসব ওয়েবসাইটগুলোতে তথ্য ঠিকমতো আপলোড না হওয়ার বিষয়টি আমার জানা নেই। নিয়মিত হালনাগাদ হচ্ছে না কেন, তা খোঁজ নেয়া হবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএইচ