Alexa নানুপুর: যেন গ্রাম নয় একটা মিনি টাউন

ঢাকা, মঙ্গলবার   ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০,   ফাল্গুন ৫ ১৪২৬,   ২৩ জমাদিউস সানি ১৪৪১

Akash

নানুপুর: যেন গ্রাম নয় একটা মিনি টাউন

 প্রকাশিত: ২০:৩৮ ২৬ এপ্রিল ২০১৮   আপডেট: ২০:৪২ ২৬ এপ্রিল ২০১৮

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

ছুটির আমেজে নাড়ির টানে ছুটে গেলাম ফটিক ছড়ির নানুপুর গ্রামে। এ যেন গ্রাম নয় একটা মিনি টাউন।

নাজির হাট থেকে শুরু হয়ে মাইজ ভান্ডার দরবার শরিফ, এরপর নানুপুর লায়লা কবির ডিগ্রী কলেজ ও নানুপুর বাজার হয়ে সৈয়দ পাড়া খান বাহাদুর বাড়ী।

আসতে আসতে দেখলাম কি নেই এই গ্রামে, পুরো রাস্তা জুড়ে আমাদের বাড়ীর সামনের রাস্তা পর্যন্ত পাকা। ভাইয়াকে জিজ্ঞাস করলাম, কে এই রাস্তা উন্নয়নের উদ্যোগ নিলো?

তিনি বললেন, আমাদের চেয়্যারম্যান ওসমান গনি বাবু ভাই। আরো বললেন বিশিষ্ট ব্যবসায়ি কবির চাচা নানুপুর সৈয়দ পাড়া থেকে শুরু করে মসজিদের পাশে কবরস্থান পর্যন্ত সোডিয়াম লাইট এর ব্যবস্থা করে দিয়েছেন।

আমি সমাজের বিত্তশালীদেরকে সাধুবাদ জানাই, যারা সমাজের জন্য অবদান রেখে যাচ্ছেন, যা আগামি প্রজন্মকে সমাজ সেবায় উদ্বুদ্ধ করবে।

ভোরে একটু ঘুরতে বেরিয়েছিলাম। গ্রামের প্রায় প্রতিটি বাড়িই আধুনিক যুগোপযোগী; প্রায় সবই এক থেকে দোতলা বিশিষ্ট বাড়ী। প্রথম দর্শনে দেখলাম নান্দনিক পরিবেশে গড়ে উঠা নানুপুর মহিলা মাদ্রাসা।

এরপর নানুপুর বাজারে এসে দেখলাম কয়েকটা ব্যাংক, প্রাথমিক বিদ্যালয়, বালক বিদ্যালয়, বালিকা বিদ্যালয়, কলেজ, কিন্ডারগার্টেন, কয়েকটি মাদ্রাসা, মসজিদ, পোস্ট অফিস, রেজিস্টার অফিস, বিভিন্ন দোকান পাট, রেস্টুরেন্ট, কনভেনশন হল ইত্যাদি কোনো কিছুর অভাব নেই।

শিক্ষা-দীক্ষায় এই গ্রামের কোনো তুলনা হয় না।

ডাক্তার, প্রকৌশলী, শিক্ষক, ব্যাংকার, চাকরিজীবী, ব্যবসায়ী, শিল্পপতি প্রতিটি ক্ষেত্রে এই গ্রামের সন্তানেরা সফলতার সাথে দেশের সেবা করে যাচ্ছে।

শিল্প-সংস্কৃতি, আধুনিকতা প্রতিটি ক্ষেত্রে এমন কি ঈদ-ই-মিলাদুন্নবী, ফাতেহা-ইয়াজদাহম বিভিন্ন ধর্মীয় অনুষ্ঠানে এই নানুপুর গ্রামের সুনাম ছড়িয়ে আছে।

সমাজের সর্বস্তরের মানুষ যদি ঐক্যবদ্ধ হয় শুধু নানুপুর গ্রাম নয় দেশের সকল গ্রামই সমৃদ্ধশালী গ্রামে পরিণত হবে, যদি সকলের প্রচেষ্টা থাকে এবং সরকারের পাশাপাশি বিত্তশালীরাও এগিয়ে আসেন।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএজে