Alexa নাটোরে চলন্ত ট্রেন থেকে তেল চুরি

ঢাকা, মঙ্গলবার   ১০ ডিসেম্বর ২০১৯,   অগ্রহায়ণ ২৬ ১৪২৬,   ১৩ রবিউস সানি ১৪৪১

আব্দুলপুর জংশন

নাটোরে চলন্ত ট্রেন থেকে তেল চুরি

এম.এম আরিফুল ইসলাম, নাটোর ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৬:১৪ ২১ অক্টোবর ২০১৯   আপডেট: ১৬:১৯ ২১ অক্টোবর ২০১৯

সংগৃহীত

সংগৃহীত

নাটোরের লালপুর উজেলার আব্দুলপুর রেলওয়ে জংশনের আশেপাশে ট্রেন চলাচলের সময় চোখে পড়ে ট্রেনের তেল চুরির দৃশ্য। উন্নতমানের বড় বড় প্যাকেটে (বস্তা) তেলগুলো ফেলে দেয়া হয় ট্রেন থেকে। অনেক সময় ট্রেন থামিয়েও ট্রেনের ট্যাংকি থেকে তেল বের করে নেয়ার ঘটনা ঘটে।

রেল লাইনের পাশেই দিনের আলোতে চোখে পড়ে ট্রেনের তেল চুরির এই দৃশ্য। তেল ভর্তি বড় বড় প্যাকেট (বস্তা) মাথায় করে নিয়ে ছোট শ্যালো ইঞ্জিন চালিত গাড়িতে করে চলে যায় গোপন স্থানে। এরপর সেখান থেকেই চলে যায় বিভিন্ন দোকানে।

এই তেল চোর চক্রকে কোন ভাবেই থামাতে পারছেন না আইন শৃংখলা বাহিনী। মাঝে মাঝেই আইন শৃংখলা বাহিনীর সদস্যরা অভিযান চালিয়ে চক্রের কিছু সদস্যদের গ্রেফতার করলেও তেল চুরি বন্ধ হচ্ছেনা। গ্রেফতারের পর অদৃশ্য কারনে চোর চক্রের সদস্যরা আদালত থেকে জামিনে মুক্তি পেয়ে পুনরায় এই কাজ শুরু করেন।

এভাবে রেলের তেল চুরি হওয়ায় রেল বিভাগ প্রতিনিয়ত লোকসানে পড়ছে। রেল বিভাগকে লাভজনক করতে দ্রুত এর প্রতিকার জরুরী বলে মনে করেন স্থাণীয়রা।

তেল চোর চক্রের কয়েকজন সদস্য নাম না প্রকাশ করার শর্তে জানান, রেলের তেল তারা ক্রয় করে বিভিন্ন স্থানে বিক্রি করে থাকেন। বিভিন্ন জনকে ম্যানেজ করেই তারা এই কাজ করছেন। তিনি প্রায় দুই বছর ধরে এই তেল চুরির সাথে জড়িত।

রেলের তেল কিনে বিক্রির কথা স্বীকার করে একজন বলেন ,তারা তেল চুরির পর সেই তেল বিভিন্ন দোকানে ৫ থেকে ১০ লিটার করে বিক্রি করে দেন। রেলের তেল ট্রেনের চালকের মাধ্যমে তারা কিনে নেয়। এরপর সেই তেল বিভিন্ন স্থানে বিক্রি করেন। এই তেল চুরি করে তিনি এর আগেও গ্রেফতার হয়েছেন। তারপরও তিনি এই ব্যবসা করছেন। এই তেল চুরি সাথে সহযোগীতায় প্রশাসনের সদস্য ছাড়াও রেলের কর্মকর্তারাও জড়িত বলে জানান তিনি।

রেলের চোরাই তেল তারা বিভিন্ন দোকানে প্রতি লিটার ৪০ থেকে ৪৫ টাকা দরে বিক্রি করে।

এলাকাবাসী আব্দুল কাদের ও সজিব রহমান বলেন, এর আগেও তেল চোর চক্রের সদস্যরা আইন শৃংখলা বাহিনীর হাতে ধরা পরেছে। কিন্তু প্রতিবার ধরা পরার পর আদালত থেকে জামিনে বের হয়ে এসে আবার এই তেল চুরি শুরু করে।

নাটোর র‌্যাব-৫ এর এএসপি রাজিবুল আহসান  বলেন, অভিযানের মাধ্যমে তেল চোর চক্রের সদস্যদের আটক করা হচ্ছে। রেলের তেল চক্রের সদস্যদের আটকের জন্য নিয়মিত অভিযান চালানো হয়। অভিযানে কয়েকজনকে আটকও করা হয়েছে। সর্বশেষ ২১শ’ লিটার তেলসহ কয়েকজনকে আটক করা হয়। রাষ্টীয় সম্পদ রক্ষার্থে তাদের এই অভিযান অব্যাহত থাকবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এস