Alexa নদীতে গোসল করার কৌশলে অস্ত্র পাচার

ঢাকা, মঙ্গলবার   ১২ নভেম্বর ২০১৯,   কার্তিক ২৭ ১৪২৬,   ১৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪১

Akash

নদীতে গোসল করার কৌশলে অস্ত্র পাচার

নিজস্ব প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৫:২৩ ৫ নভেম্বর ২০১৯   আপডেট: ১৭:৫৭ ৫ নভেম্বর ২০১৯

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

হাফিজুর নামে এক অস্ত্র ব্যবসায়ী সোমবার রাতে গ্রেফতার হয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদে তিনি অস্ত্র চোরাচালানের চাঞ্চল্যকর তথ্য দিয়েছেন। তিনি তার সহযোগী হাবিবুর রহমান বিশ্বাস ও জিল্লুরের মাধ্যমে ভারত থেকে বেনাপোল দিয়ে চোরাই পথে অস্ত্র-গুলি বাংলাদেশে পাচার করেন। 

তারা অস্ত্র-গুলি প্রথমে ভারতের বিহার থেকে কলকাতার অস্ত্র ব্যবসায়ীদের মাধ্যমে বিভিন্ন সীমান্ত এলাকায় গোপন স্থানে রাখেন। পরবর্তীতে বাংলাদেশি অস্ত্র ব্যবসায়ীদের সঙ্গে দর কষাকষি চূড়ান্ত করেন। এরপর কলকাতার উত্তর চব্বিশ পরগনা আংরাইল নামক সীমান্তবর্তী গ্রাম ও বাংলাদেশের বেনাপোলের পুটখালী গ্রামের নদীর তীরে গোসল করার কৌশলে সীমান্তে নিয়ে আসেন তারা। তারপর সুযোগ বুঝে প্রয়োজন অনুযায়ী অস্ত্রগুলো ঢাকাসহ অন্যান্য স্থানে পৌঁছে দেন।

মঙ্গলবার দুপুরে ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারে সংবাদ সম্মেলনে এ বিষয়ে বিস্তারিত জানান ডিএমপি’র গোয়েন্দা উত্তর বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার (ডিসি) মশিউর রহমান।

তিনি আরো জানান, ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের গোয়েন্দা (উত্তর) বিভাগের একটি দল সোমবার রাজধানীর মিরপুর মডেল থানার কোরিয়া কারিগরী প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের সামনে থেকে অস্ত্র ব্যবসায়ী হাফিজুর রহমানকে গ্রেফতার করে। 

এ সময় তার কাছ থেকে ৪টি বিদেশি আগ্নেয়াস্ত্র ও ১৭ রাউন্ড গুলি উদ্ধার করা হয়।

মশিউর বলেন, তাদের এই অস্ত্র সন্ত্রাসী ও জঙ্গি কার্যকলাপ, রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতা সৃষ্টিসহ নানা ধরনের নাশকতামূলক কার্যকলাপে ব্যবহার হয়ে থাকে। 

হাফিজুর তার সহযোগী হাবিবুরের মাধ্যমে ভারতের উত্তর চব্বিশ পরগনার বনগ্রাম গ্রামের জাহাঙ্গীরের সঙ্গে যোগাযোগ করেন। জাহাঙ্গীর প্রত্যেকটি অস্ত্রের জন্য ৩০ হাজার করে টাকা নিয়ে থাকেন। যার বিনিময়ে জাহাঙ্গীর ভারত থেকে ওই অস্ত্র-গুলি সরবরাহ করেন। সরবরাহ করা অস্ত্র বাংলাদেশে এনে বিভিন্ন ব্যক্তির কাছে উচ্চদামে বিক্রি করেন।
    
এ বিষয়ে মিরপুর মডেল থানায় মামলা করা হয়েছে বলে জানান ডিবি পুলিশের এই কমকর্তা।

ডেইলি বাংলাদেশ/ইএ/এমআরকে