Alexa ধর্ষিত কিশোরী সাত মাসের অন্তঃস্বত্তা!

ঢাকা, রোববার   ২১ জুলাই ২০১৯,   শ্রাবণ ৬ ১৪২৬,   ১৭ জ্বিলকদ ১৪৪০

ধর্ষিত কিশোরী সাত মাসের অন্তঃস্বত্তা!

গৌরীপুর (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি

 প্রকাশিত: ১৪:০০ ১০ জানুয়ারি ২০১৯   আপডেট: ১৪:০০ ১০ জানুয়ারি ২০১৯

প্রতীকী ছবি

প্রতীকী ছবি

ধর্ষণের শিকার ১৫ বছরের কিশোরী এখন ৭ মাসের অন্তঃস্বত্তা। প্রায় আট মাস আগে সোহেল মিয়ার বাড়িতে বাঁশ বেতের কাজ করতে গেলে কিশোরীকে ধর্ষণ করা হয়। ধর্ষক যুবকের হুমকীর মুখে ওই কিশোরী ঘটনাটি কাউকে না জানালেও সাত মাসের অন্তঃস্বত্তা হওয়ার পর এ ঘটনা জানাজানি হয়। 

ময়মনসিংহের গৌরীপুর উপজেলার হাটশিরা গ্রামে এ ধর্ষণের ঘটনা ঘটে। ধর্ষক যুবক সোহেল উল্লেখিত গ্রামের ইউসূফ আলীর ছেলে। ধর্ষিতা কিশোরীর বাড়ি একই গ্রামে। 

এ নিয়ে এলাকায় দেন-দরবার হলেও সোহেল ও তার পরিবার ওই কিশোরীকে ঘরে তুলে নিতে রাজী হয়নি। ওই কিশোরী ও তার পরিবার আগত সন্তানের পিতৃ পরিচয়ের স্বীকৃতির জন্য মানুষের দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন। 

ওই কিশোরী সাংবাদিকদের বলেন, অভাবের পড়ে সে সোহেলের বাড়িতে বাঁশ বেতের কাজ করতে যায়। এ সময় বাড়িতে কোন লোকজন না থাকার সুযোগে সোহেল তার ঘরে মুখ বেঁধে জোরপূর্বক তাকে ধর্ষণ করে। ধর্ষণের পর এ ঘটনা প্রকাশ করলে মেরে ফেলার হুমকিও দেয় সোহেল। মৃত্যুর ভয়ে এ ঘটনা কাউকে জানাইনি। 

পরবর্তীতে ওই কিশোরীর শারীরিক অবস্থার পরিবর্তন হলে ঘটনাটি তার মা'কে জানায়। ৩ জানুয়ারী স্থানীয় এক ডায়াগনস্টিক সেন্টারে প্রেগনেন্সি পরীক্ষায় জানা যায় ওই কিশোরী সাত মাসের অন্তঃস্বত্তা। 

কিশোরীর মা বলেন, এ ঘটনা এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিকে জানালে ৪ জানুয়ারী ধর্ষক পরিবারের উপস্থিতিতে একটি দেন-দরবার হয়। এ সময় স্থানীয় লোকজন সোহেলের বাবা ইউসুফ আলীকে কিশোরীকে পুত্রবধূ হিসেবে ঘরে তুলে নেয়ার প্রস্তাব দিলে তিনি এতে অপরাগতা প্রকাশ করেন।

ইউসুফ আলী ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিদের নিয়ে ওই কিশোরীকে পুত্রবধূ হিসেবে ঘরে আনার তাদের বাড়িতে গিয়েছিলাম। 

এ সময় ওই কিশোরীর নামে ৩০ শতক জমি লিখে দেয়ার প্রস্তাব ও পাঁচ লক্ষ টাকার কাবিন দাবি করা হয়। তাই এ ঘটনাটির কোন মিমাংসা হয়নি।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএস