Alexa ধর্ষণ কি সংক্রামক?

ঢাকা, শনিবার   ২৪ আগস্ট ২০১৯,   ভাদ্র ৯ ১৪২৬,   ২২ জ্বিলহজ্জ ১৪৪০

Akash

ধর্ষণ কি সংক্রামক?

 প্রকাশিত: ২১:২৬ ৪ সেপ্টেম্বর ২০১৭  

মানুষ শেখে। জন্ম থেকে শিখতে শুরু করে, মৃত্যু অবধি শেখে। কোথাও কেউ আত্মহত্যা করলে আশেপাশে অনেকেই আত্মহত্যা করে বসে। পরীক্ষার খারাপ ফলের কারণে একজন ছাত্র আত্মহত্যা করলে দেখা যায় আরও কয়েকজন একই কারণে আত্মহত্যা করে। জাপানের ফুজি পাহাড়ের তলায় ওকিগাহারা অরণ্যে কবে কে আত্মহত্যা করেছিল, তারপর থেকে আজও ওই অরণ্যে মানুষ যায় আত্মহত্যা করতে। প্রতিবছর বারো হাজার ভারতের কৃষক আত্মহত্যা করছে।

সেই ১৯৯৫ থেকে শুরু। এখনও চলছে। শুধু আত্মহত্যা নয়, সন্ত্রাসী সব কাণ্ডও সংক্রামক। মানুষের ভিড়ের মধ্যে এক সন্ত্রাসী ট্রাক চালিয়ে দিয়েছিল ফ্রান্সের নিস শহরে, এরপর একই পদ্ধতিতে শুরু হয়ে গেলো অন্য শহরেও সন্ত্রাসী আক্রমণ। বার্লিনে, লন্ডনে, স্টকহোমে, বারসেলোনা, ভার্জিনিয়ায়।

ধর্ষণও কি শেখে? প্রায় প্রতিদিন ধর্ষণ করছে পুরুষ। শিশু থেকে বৃদ্ধা কাউকে বাদ দিচ্ছে না। কিছুদিন আগে জাকিয়া সুলতানা রূপাকে চলন্ত বাসের মধ্যে গণধর্ষণ করার পর মাথা থেঁতলে হত্যা করেছে বাসের ড্রাইভার, সুপারভাইজার, কন্ডাক্টাররা। তারা নিশ্চয়ই দিল্লির বাসে জ্যোতি সিং বা নির্ভয়ার গণধর্ষণের খবর জানতো। খবরটি তো বিশ্ব জুড়ে প্রচারিত হয়েছিল। ভয়াবহ খবরগুলো মানুষকে সচেতন করার জন্য প্রচার করা হয়। ধর্ষণের বিরুদ্ধে দিল্লিতে বড় রকম প্রতিবাদ হয়েছিল। কিন্তু আশ্চর্য দিল্লির বাসের ওই নৃশংস গণধর্ষণের প্রতিবাদ যতই হোক, প্রতিবাদে আকৃষ্ট না হয়ে পুরুষ আকৃষ্ট হয়েছে ধর্ষণে।

পুরুষ শিখে গিয়েছে কী করে ধর্ষণ এবং নৃশংসতা একই সঙ্গে চলন্ত বাসের ভেতর করতে হয়। গণধর্ষণ করে কী করে মেয়েটিকে ফেলে দিতে হয় বাইরে। জ্যোতি সিংকে ফেলেছিল রাস্তার কিনারে, রূপাকে ফেলেছিল জঙ্গলে। জ্যোতি সিং তখনও মরেনি। রূপার ধর্ষকরা রূপার মাথা থেঁতলে রক্ত বইয়ে দিয়ে মরেছে নিশ্চিন্ত হয়ে তবে গেছে। একটি ঘটেছে দিল্লিতে, আরেকটি ঘটেছে টাঙ্গাইলে। একটিতে ধর্ষকরা হিন্দু, ধর্ষকদের শিকারও হিন্দু। আরেকটিতে দু’পক্ষই মুসলিম। ধর্ষণ সব ধর্মের, সব বর্ণের, সব ভাষার, সব দেশের, সব সংস্কৃতির মানুষই করে। শিক্ষিত অশিক্ষিত সকলেই করে। আজ কোথাও শিশু ধর্ষণ ঘটলে পর পর অনেকগুলো শিশু ধর্ষণ ঘটবে। জ্যোতি সিং-এর যৌনাঙ্গে লোহার রড ঢুকিয়েছিল ধর্ষকরা। জ্যোতি সিং যখন হাসপাতালে মৃত্যুর সঙ্গে যুদ্ধ করছে, সে সময় এক বয়স্ক লোক তার ঘরে চার বছরের এক শিশুকে কয়েকদিন আটকে রেখে শিশুটিকে ধর্ষণ তো করেইছিল, শিশুটির যৌনাঙ্গে শিশি বোতল ঢুকিয়েছিল। লোকটি হাতের সামনে লোহার রড পেলে হয়তো লোহার রডই ঢোকাত শিশুটির যৌনাঙ্গে।

দাঙ্গার খবর বেরোলে দাঙ্গা বাঁধে। ধর্ষণের খবর বেরোলে ধর্ষকরা নতুন উদ্যমে ধর্ষণে মাতে। তাহলে কি খবরগুলো বেরোনো উচিত নয়? মানুষের জানা উচিত নয় কোথায় কী ঘটছে? তথ্য জানার অধিকার সব মানুষের আছে। এক সময় ধর্ষণকে অপরাধ বলে বিবেচনা করতো না মানুষ। কিন্তু ধর্ষণের বিরুদ্ধে প্রচুর প্রতিবাদ হওয়াতে মানুষ অনেকটাই সচেতন, অধিকাংশ মানুষই এখন মনে করে ধর্ষণ জিনিসটা ভালো নয়। ধর্ষণ, ধর্ষণের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ, ধর্ষকদের শাস্তি–এসব খবর শুনে কিছু লোক থাকেই যারা সচেতন তো হয়ই না, বরং উলটো হয়। তারা বরং ধর্ষণ করে।

যে বাসটিতে রূপাকে ধর্ষণ করা হয়েছে, সেই বাসের নাম ‘নিরাপদ’। বাসে লেখা ছিল ‘গড ব্লেস ইউ’। সবচেয়ে অনিরাপদ বাসটির নাম ‘নিরাপদ’। রূপা যাচ্ছিল বগুড়া থেকে ময়মনসিংহে, কর্মস্থলে। গন্তব্যে তাকে পৌঁছুতে দিল না বাসের পাঁচটি পুরুষ। রূপা মেয়েটি গরিব ঘর থেকে নিজের চেষ্টায় পড়াশোনা করেছে, বিভিন্ন পরীক্ষায় পাস করেছে। আইনের শেষ বর্ষের ছাত্রী ছিল। ওদিকে আবার পাশাপাশি চাকরি করছিল। এরকম কর্মঠ, নিষ্ঠ,শিক্ষিত, স্বনির্ভর মেয়ে—যার মনোবল ছিল অগাধ, শুধু শরীরের জোরে তাকে পরাস্ত করলো এক পাল খুনি। ধর্ষণ যতটা যৌন সঙ্গম, তারও চেয়ে বেশি পেশি আর পুরুষের জোর, তারও চেয়ে বেশি পুরুষের ভেতরকার নারীবিদ্বেষ। খুনিগুলো ধরা পড়েছে। সম্ভবত এদের শাস্তিও হবে। যেহেতু খুনিগুলো ধনী নয় খুব, জলদি ছুটেও আসতে পারবে না জেল থেকে। যত কঠিন শাস্তিই রূপার ধর্ষকরা পাক, রূপা তো ফিরে আসতে পারবে না আর। তার এতদিনকার সংগ্রামের সুফল ভোগ করতে পারবে না।

ধর্ষণে, খুনে, নির্যাতনে, অত্যাচারে এভাবেই মেয়েরা একের পর এক হারিয়ে যাচ্ছে। মেয়েরা যাদের সঙ্গে বাস করে, যাদের ভালোবাসে, যাদের সঙ্গে পথ চলে – তারাই মেয়েদের হত্যা করে। নিজের খুনির সঙ্গে পৃথিবীর আর কোনও প্রাণী কি বাস করে এত ঘনিষ্ঠভাবে? আমার জানা নেই। রূপার ধর্ষণের খবর প্রচার হওয়ার পর আরও কয়েকটি ধর্ষণ ঘটে গেছে বাংলাদেশে। মেয়েদের বাড়িতে ঢুকে ধর্ষণ করে আসছে পুরুষেরা। এই পুরুষগুলোকে কোনও শাস্তি দিয়েও, এমনকী ফাঁসি দিয়েও নিরস্ত করা যায় না। হেতাল পারেখ নামের এক মেয়েকে ধর্ষণ আর খুন করার অপরাধে ধনঞ্জয় চট্টোপাধ্যায় নামের এক দারোয়ানের ফাঁসি হয়েছিল কলকাতায়, ওই ফাঁসির পর পর বেশ কয়েকটি ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছিল।

সারা বিশ্বে ধর্ষণের ঘটনা ঘটছে। ভারত, পাকিস্তান, বাংলাদেশে নিরবধি ঘটেই চলেছে। নারীবিদ্বেষ এত চরমে উঠেছে, যে, ঘরে বাইরে, রাস্তা ঘাটে, ট্রেনে বাসে নারীকে ধর্ষণ আর খুন করেই চলেছে পুরুষেরা। লোকে মন্দ বলুক, আদালত শাস্তি দিক, তাতে কি কারও কিছু যায় আসে না? সকলেই ভাবে অনেকে যেমন অপরাধ করেও ধরা পড়ে না, তারাও তেমন ধরা পড়বে না। কেউ কেউ হয়তো ভাবে, ধরা পড়লেও ছাড়া পেতে আর কতক্ষণ! টাকা পয়সা ঢাললেই সাত খুন মাফ।

এই পুরুষের সঙ্গে কী করে চলবে মেয়েরা? কোন পুরুষ ভালো, কোন পুরুষ মন্দ– মুখ দেখে তো বোঝার উপায় নেই। কার সঙ্গে প্রেম করলে, কাকে বিশ্বাস করে ঘর ছাড়লে সে বেশ্যালয়ে তাকে বেচে দেবে না, কী করে বুঝবে! বাসে কোন লোকটি তাকে ধর্ষণ করবে, কোন লোকটি করবে না– কী করে অনুমান করবে! ট্রেনের কোন লোকটি ফাঁক পেলেই তাকে ধর্ষণ করে ট্রেন থেকে ফেলে দেবে—জানবে কী করে। কাকে বিয়ে করলে সে তাকে প্রতিরাতে মদ্যপান করে পেটাবে না, তাকে ধর্ষণ করবে না, তাকে পণের জন্য নির্যাতন করবে না, আগুনে পুড়িয়ে মারবে না, তাকে মেরে কুচি কুচি করে কেটে ফ্রিজারে রেখে দেবে না—কী করে জানবে! সব পুরুষ তো দেখতে একরকম।

পুরুষেরা শুদ্ধ না হলে, সুস্থ না হলে, সভ্য না হলে, সত্যিকার শিক্ষিত না হলে, সচেতন না হলে-- নারীরা যতই শিক্ষিত হোক, সচেতন হোক, যতই তারা স্বনির্ভর হোক, কোনও লাভ নেই, পুরুষেরা সমাজকে কলুষিত করবেই। পুরুষেরা নারীদের শরীরে-মনে যন্ত্রণা দিয়ে দিয়ে, নারীদের খুন করতে করতে, নারীদের নিশ্চিহ্ন করবে। পুরুষের এই পৃথিবীতে অতঃপর বাস করবে অসংখ্য বীভৎস পুরুষ! পুরুষেরা সেরকম একটি ভূতুড়ে ভবিষ্যতের দিকেই মনে হয় এগোচ্ছে। (লিখা: সংগৃহিত)

লেখক: কলামিস্ট, নির্বাসিতা লেখক

ডেইলি বাংলাদেশ/টিআরএইচ

Best Electronics
Best Electronics