Alexa দেড় বছর ধরে নেই চিকিৎসক

ঢাকা, রোববার   ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯,   আশ্বিন ৭ ১৪২৬,   ২২ মুহররম ১৪৪১

Akash

দেড় বছর ধরে নেই চিকিৎসক

আবু কাওছার আহমেদ, টাঙ্গাইল ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২১:১৮ ২৭ আগস্ট ২০১৯  

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

টাঙ্গাইলের মির্জাপুর উপজেলার ফতেপুর উপ-স্বাস্থ্যকেন্দ্রে প্রায় দেড় বছর ধরে আসে না কোনো চিকিৎসক। এতে স্বাস্থ্যসেবা ও সরকারি ওষুধ থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন হাজারো মানুষ।

দরিদ্রদের স্বাস্থ্যসেবা দেয়ার লক্ষ্যে ১৯৬০ সালে ফতেপুর বাজারে চ্যারিটেবল ডিসপেনসারি নামে একটি চিকিৎসাকেন্দ্র স্থাপন করা হয়। এ চিকিৎসাকেন্দ্র থেকে এলাকার মানুষ বিনামূল্যে সেবা ও ওষুধ পেতেন। স্বাধীনতার পর এটি ফতেপুর উপ-স্বাস্থ্যকেন্দ্র হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করে সরকার।

নিয়মানুযায়ী উপ-স্বাস্থ্যকেন্দ্রে একজন এমবিবিএস ডাক্তার, একজন উপ-সহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার, একজন ফার্মাসিস্ট ও একজন এমএলএসএস কর্মরত থাকার কথা। কিন্তু এ উপ-স্বাস্থ্যকেন্দ্রটিতে প্রায় দেড় বছর ধরে নেই কোনো এমবিবিএস ডাক্তার। এছাড়া এমএলএসএস পদটিও দীর্ঘদিন ধরে শূন্য রয়েছে।

কেন্দ্রটিতে ডাক্তারের অনুপস্থিতিতে এলাকার মানুষকে চিকিৎসাসেবা দিয়ে আসছেন উপ-সহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার সুভাষ চন্দ্র তন্ত্রী ও ফার্মাসিস্ট ও আব্দুল কাদের। ফার্মাসিস্ট আব্দুল কাদেরকেও মাঝেমধ্যে ডেপুটেশনে নেয়া হয় বলে এলাকার লোকজন জানিয়েছেন।

এদিকে দীর্ঘদিন ডাক্তার না আসায় জটিল রোগে আক্রান্ত রোগীরা প্রায়ই ফিরে যাচ্ছেন। এতে সরকারি স্বাস্থ্যসেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে ওই এলাকার মানুষ।

স্থানীয় ইউপি সদস্য জয়নাল মিয়া জানান, ফতেপুর উপ-স্বাস্থ্যকেন্দ্রটির এখন করুণ দশা। এখানে দেড় বছরের বেশি সময় ধরে এমবিবিএস ডাক্তার আসেন না। যারা কর্মরত, তাদেরও মাঝেমধ্যে অন্যত্র কাজ করতে হয়। এতে সরকারি স্বাস্থ্যসেবা এবং ওষুধ থেকে এলাকার মানুষ বঞ্চিত হচ্ছেন।

উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. শামীম আহমেদ জানান, তিনি যোগদানের অনেক আগে সিভিল সার্জনের নির্দেশে ফতেপুর উপ-স্বাস্থ্যকেন্দ্রের ডাক্তার শামীমা হোসেনকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রেষণে আনা হয়েছিল। স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সেও তিনি নিয়মিত আসেন না বলে জানান এই কর্মকর্তা।

ডেইলি বাংলাদেশ/আর.এইচ/এমআর