দেশের আকাশে উল্কাবৃষ্টি

ঢাকা, বুধবার   ২৭ মে ২০২০,   জ্যৈষ্ঠ ১৩ ১৪২৭,   ০৩ শাওয়াল ১৪৪১

Beximco LPG Gas

দেশের আকাশে উল্কাবৃষ্টি

বিজ্ঞান ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২০:৩৬ ২২ এপ্রিল ২০২০   আপডেট: ২০:৪১ ২২ এপ্রিল ২০২০

উল্কাবৃষ্টি। ফাইল ছবি

উল্কাবৃষ্টি। ফাইল ছবি

জানালা খুলে বাইরে উঁকি দেবেন? নাহয় বাড়ির ছাদে গিয়ে আকাশের দিকে খানিকটা তাকান। অদ্ভুত সুন্দর না আজকের আকাশ? যেন একে একে বৃষ্টির মতো ঝরে পড়ছে তারা। এটা আসলে উল্কাপাত বা উল্কাবৃষ্টি। রাতের আকাশে তারা গুনতে পারা যেমন মজার, তেমনি উল্কাবৃষ্টি দেখাও আনন্দের।

বুধবার রাত সাড়ে আটটা থেকেই শুরু হয়েছে উল্কাপাত। দেশের যেসব অঞ্চলের আকাশ অত্যাধিক পরিষ্কার, সেসব জায়গা থেকেই দেখা যাচ্ছে মহাজাগতিক এই দৃশ্য। জ্যোতির্বিজ্ঞানের কয়েকটি ওয়েবসাইটে বলা হয়েছে, বৃহস্পতিবার ভোর পর্যন্ত চলতে থাকবে উল্কাবৃষ্টি। তবে বুধবার মধ্যরাতেই উল্কাবৃষ্টি সবচেয়ে বেশি চাক্ষুষ করা যাবে।

পৃথিবী থেকে মহাকাশে ঘটা যত কর্মকাণ্ড দেখা যায় এর মধ্যে সবচেয়ে সুন্দর দৃশ্য হচ্ছে উল্কাবৃষ্টি। উল্কাবৃষ্টি বৃষ্টির মতোই আকাশ থেকে পড়ে। তবে সেটা দেখা যায় শুধু রাতে। দেখে মনে হয়, আকাশের তারা বুঝি খসে পড়ছে মাটিতে। এই পড়ন্ত বস্তুগুলো পৃথিবীর কাছাকাছি এলে বাতাসের সঙ্গে ঘর্ষণে জ্বলে ওঠে। যেন আতশবাজির বৃষ্টি পড়ছে।

মহাকাশ বিজ্ঞানীদের মতে, উল্কাবৃষ্টির সময়ে প্রতি ঘণ্টায় ২০ অথবা তারও বেশি সংখ্যক আলোর বিন্দু জ্বলে উঠতে দেখা যায় আকাশে। এই সময়ে মহাকাশের ওই আবর্জনা স্তূপের পাশ দিয়েই ঘোরে পৃথিবী। তাই কোন জায়গা থেকে দেখা যাবে তা নির্দিষ্ট করে বলা যায় না।

পৃথিবীর আকাশে সব সময় উল্কা দেখা যায় না। কোনো ধূমকেতু আকাশের যে পথে সূর্য প্রদক্ষিণ করে, সেখানে রাতের আকাশে উল্কাবৃষ্টি বেশি হয়। কারণ, সেখানেই আকাশে ধূমকেতুর ফেলে যাওয়া বস্তুখণ্ড বেশি থাকে। তাই পৃথিবী তার কক্ষপথে সূর্য প্রদক্ষিণ করার সময় ওই এলাকায় এলে আকাশে উল্কাবৃষ্টি দেখা যায়।

ডেইলি বাংলাদেশ/এনকে