Alexa দেশি গরুর ক্রেতা বেশি

ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ২২ আগস্ট ২০১৯,   ভাদ্র ৮ ১৪২৬,   ২১ জ্বিলহজ্জ ১৪৪০

Akash

দেশি গরুর ক্রেতা বেশি

শাহাদাৎ হোসেন, মঠবাড়িয়া ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৮:৩৪ ৯ আগস্ট ২০১৯   আপডেট: ১৮:৩৫ ৯ আগস্ট ২০১৯

ডেইলি বাংলাদেশ

ডেইলি বাংলাদেশ

পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় ১১ ইউনিয়নের ১৪টি স্থানে বসেছে কোরবানির পশুর হাট। ঈদুল আজহা উপলক্ষে এবারও ক্রেতা সমাগমে মুখর হয়ে উঠেছে পশুর হাটগুলো।

এ হাটগুলো হলো মঠবাড়িয়া পৌর শহরের দক্ষিণ বন্দর, তুষখালী বাজারস্থ খোলা জায়গা, ধানীসাফা ইউনিয়নের পরিষদের সামনে খোলা জায়গা, মিরুখালী বাজার সংলগ্ন খোলা জায়গা এবং বাজারের পাশের খোলা জায়গা, কুমিরমারা বাজারস্থ গরুর হাট, মোল্লার হাট ব্রিজ সংলগ্ন উত্তর পাশের রাস্তাসহ খোলা জায়গা, মোলার হাট ব্রিজ সংলগ্ন দক্ষিণ পাশের খোলা জায়গা, কালীরহাট সরকারি রাস্তার পাশের খোলা জায়গা, আমড়াগাছিয়া বাজার সংলগ্ন খোলা জায়গা, সোনাখালী বাজার সংলগ্ন খোলা জায়গা, সাপলেজা বাজারে খোলা জায়গা এবং বড়মাছুয়া বাজার সংলগ্ন খোলা জায়গা।

এ বছর ভারতীয় পশুর আমদানি কম থাকায় প্রতিটি বাজারেই দেশীয় গরুর সংখ্যা বেশি লক্ষ্য করা গেছে। উপজেলার বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা গেছে প্রচুর পরিমাণে দেশি গরু নিয়ে বিক্রেতারা বাজারে আসছে। তবে অধিকাংশ হাটগুলোতে দালালচক্র সক্রিয় বলে দাবি করেছেন ইজারাদাররা। অনেক ক্রেতা মূল্য যাচাইয়ের জন্য বিভিন্ন বাজার ঘুরে বেড়াচ্ছেন।

মিরুখালী বাজারের গরু ব্যবসায়ী পিন্টু মৃধা জানান, দেশি গরুর ক্রেতা বেশি। এ বাজারে দেশীয় গরু সর্বনিম্ন ৪২ হাজার থেকে সর্বোচ্চ দুই লাখ বিশ হাজার টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

বড়মাছুয়ার ইজারাদার মো. জাকির খান জানান, এবছর বড়মাছুয়ায় কোরবানির জন্য গরু বেচাকেনা সন্তোষজনক।

মিরুখালীর আ. সালাম জানান, প্রথম দিকে বেচাকেনা কম হলেও ঈদের আগ মূহূর্তে এর চাহিদা বৃদ্ধি পাচ্ছে।

মোল্লার হাট ব্রিজ সংলগ্ন উত্তর পাশের রাস্তাসহ খোলা জায়গা ইজারাদার জসিম মৃধা জানান, পশুর হাটে ক্রেতা সমাগম ও বিক্রি সন্তোষজনক। এ বছরে মঠবাড়িয়া উপজেলার কোরবানির পশুর হাটগুলোর মধ্যে আমাদের হাটে সবচেয় বড় গরু এসেছে। এর দাম ২ থেকে ৩ লক্ষাধিক টাকা।

এদিকে দালাল, ছিনতাইকারী, মলমপার্টি ও প্রতারকচক্রের ফাঁদ থেকে ব্যবসায়ী ও ক্রেতারা নির্বিঘ্নে কেনাকাটা করতে পারে এজন্য পুলিশ প্রশাসন এর পক্ষ থেকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।  

মঠবাড়িয়া থানার ওসি সৈয়দ আব্দুল্লাহ জানান, ঈদ বাজার উপলক্ষে ব্যবসায়ী ও ক্রেতারা নির্বিঘ্নে কেনাকাটা করতে পারে এজন্য গোয়েন্দা ও পুলিশের বিশেষ টিম মাঠে কাজ করছে। এছাড়া জাল টাকা ও মলম পার্টি রোধে বিশেষ ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেডএম

Best Electronics
Best Electronics