দুদকের মামলায় সেই ক্যাশিয়ারের আট বছরের কারাদণ্ড

ঢাকা, মঙ্গলবার   ০৭ এপ্রিল ২০২০,   চৈত্র ২৫ ১৪২৬,   ১৪ শা'বান ১৪৪১

Akash

দুদকের মামলায় সেই ক্যাশিয়ারের আট বছরের কারাদণ্ড

ফরিদপুর প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২২:৩১ ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০  

প্রতীকী ছবি

প্রতীকী ছবি

মাদারীপুর সদর হাসপাতালের সাবেক হিসাবরক্ষক টিএম কামরুল হাসানকে দুদকের দায়েরকৃত আরেকটি মামলায় আট বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত। এছাড়াও এক লাখ টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরো নয় মাসের কারাদণ্ডাদেশ দেয়া হয়েছে।

সোমবার দুপুরে ফরিদপুরের বিশেষ জজ আদালতের বিচারক মো. মতিয়ার রহমান এ রায় ঘোষণা করেন। এ মামলার রায়সহ গত দুই মাসে একই আদালতে দায়েরকৃত দুদকের আটটি মামলায় টিএম কামরুল হাসানকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড ও জরিমানা করা হলো। এখনো তিনি পলাতক রয়েছেন।

টিএম কামরুল হাসান মাদারীপুর জেলার লক্ষীগঞ্জ গ্রামের বাদশা তালুকদারের ছেলে। তিনি সর্বশেষ শরীয়তপুর সিভিল সার্জনের কার্যালয়ের হিসাবরক্ষক পদে কর্মরত থাকাকালে আত্মগোপনে যান। 

দুদক, ফরিদপুরের সমন্বিত কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, ২০০২ সালের ১৬ জুলাই মাদারীপুর থানায় টিএম কামরুল হাসানের বিরুদ্ধে অর্থ আত্মসাতের এ মামলাটি দায়ের করা হয়েছিল। মামলা নং- ৩৬/০২। ওই মামলায় তার বিরুদ্ধে মাদারীপুর সদর হাসপাতালে হিসাবরক্ষক পদে কর্মরত থাকাকালে ৫২ হাজার ৭শ’ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ করা হয়। পরে দুদকের তদন্তে অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় ফরিদপুরের বিশেষ জজ আদালদে এ ঘটনায় মামলা দায়ের করা হয়। মামলা নং- ৪৯/১৫। 

আদালতে দুদকের হয়ে মামলা পরিচালনা করেন দুদকের প্যানেল আইনজীব অ্যাডভোকেট নারায়ণ চন্দ্র দাস। তিনি জানান, সন্দেহাতীতভাবে আনিত অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় তাকে পেনাল কোডের ১৮৬০ এর ৪০৯ ধারায় ৩ বছর সশ্রম কারাদণ্ড ও ৫২ হাজার ৭ শ’ টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরো ছয় মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড, ৪৬৮ ধারায় দুই বছর সশ্রম কারাদণ্ড ও ২০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরো এক মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড, ২১৮ ধারায় এক বছর সশ্রম কারাদণ্ড ও ২০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরো এক মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেয়া হয়।

এছাড়া ১৯৪৭ এর ৫(২) ধারায় তাকে দুই বছরের সশ্রম কারাদণ্ড ও ২০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরো এক মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড প্রদান করা হয়েছে। অপরাধের সব সাজা একত্রে গণনা করা হবে বলে রায়ে উল্লেখ করা হয়েছে।  

অ্যাডভোকেট নারায়ণ চন্দ্র দাস বলেন, গত জানুয়ারি মাসে তিনটি ও ফেব্রুয়ারি মাসে এ পর্যন্ত পাঁচটি মামলায় টিএম কামরুল হাসানের বিরুদ্ধে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড ও জরিমানা করেছে আদালত। তিনি পলাতক রয়েছেন। আটকের সঙ্গে সঙ্গে এই রায় কার্যকর করার নির্দেশ প্রদান করেছে আদালত। 

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএম