Alexa দুই ধর্ষকের লাশ দেখে খুশিতে কাঁদলেন ধর্ষিতার বাবা

ঢাকা, মঙ্গলবার   ২০ আগস্ট ২০১৯,   ভাদ্র ৫ ১৪২৬,   ১৮ জ্বিলহজ্জ ১৪৪০

Akash

দুই ধর্ষকের লাশ দেখে খুশিতে কাঁদলেন ধর্ষিতার বাবা

ভোলা প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৩:৩৫ ১৪ আগস্ট ২০১৯  

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

চাঁদরাতে মেহেদি দিয়ে হাত রাঙাতে গিয়ে গণধর্ষণের শিকার ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রীর দুই ধর্ষকের লাশ দেখে খুশিতে কাঁদলেন ধর্ষিতার বাবা। গণধর্ষণের ঘটনার দুইদিন পর ভোলা সদর উপজেলায় মঙ্গলবার রাত আড়াইটার দিকে পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত হন দুই ধর্ষক।

নিহতরা হলেন- সদর উপজেলার চরসামাইয়া ইউপির ৩নং ওয়ার্ডের সৈয়দ আহম্মেদের ছেলে আল আমিন (২৫) ও কামাল মিস্ত্রির ছেলে মঞ্জুর আলম (৩০)।

বুধবার সকালে খবর পেয়ে ভোলা সদর হাসপাতালে ছুটে যান সদর উপজেলার চরসামাইয়া ইউপির চরসিপলি গ্রামের বাসিন্দা গণধর্ষণের শিকার স্কুলছাত্রীর বাবা। এ সময় মর্গে ধর্ষকদের লাশ পড়ে থাকতে দেখে খুশিতে কেঁদে ফেলেন তিনি। মেয়েকে ধর্ষণকারী দুই ধর্ষকের লাশ নিজের চোখে দেখে কান্নাজড়িত কণ্ঠে বলেন, মনে অনেক শ‌ান্তি পেলাম। পুলিশকে অনেক ধন্যবাদ।

তিনি আরো বলেন, সকালে খবর পেয়ে আমি হাসপাতালে ছুটে আসি। দুই ধর্ষকের লাশ দেখে আমার মনে স্বস্তি ফিরে এসেছে। যারা আমার মেয়ের জীবন শেষ করে দিয়েছে আমি তাদের এভাবেই শেষ দেখার অপেক্ষায় ছিলাম। আমার মেয়ের সঙ্গে যা ঘটেছে তার সঠিক বিচার পেয়েছি আমি। ধর্ষকদের এভাবেই শাস্তি হওয়া উচিত।

ভোলা সদর মডেল থানার ওসি ছগির মিয়া বলেন, মঙ্গলবার গভীর রাতে আমরা গোপনে সংবাদ পাই সদর উপজেলার রাজাপুর ইউপির ৪নং ওয়ার্ডের দক্ষিণ রাজাপুর এলাকায় নদীর পাড়ে টাকা ভাগাভ‌াগি নিয়ে ‘বন্দুকযুদ্ধ’ চলছে দুই ডাকাত গ্রুপের। খবর পেয়ে সেখানে অভিযানে যাই আমরা। তখন আমাদের উপস্থিতি টের পেয়ে পুলিশের ওপর গুলি চালায় ডাকাতদের দুই গ্রুপ। এ সময় আত্মরক্ষার্থে পাল্টা গুলি ছোড়ে পুলিশ। ত্রিমুখী ‘বন্দুকযুদ্ধের’ একপর্যায়ে দুইজন নিহত হয়। তখন ট্রলার নিয়ে পালিয়ে যায় ডাকাতরা। পরে ঘটনাস্থল থেকে একটি বন্দুক, আট রাউন্ড গুলি ও দুটি রামদাসহ গুলিবিদ্ধ দুইজনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। রাতেই তাদের লাশ মর্গে পাঠানো হয়।

ওসি আরো বলেন, আমরা নিহতদের পরিচয় জানতাম না। বুধবার সকালে চরসামাইয়া ইউপির চরসিপলি গ্রামের এক কৃষক ভোলা সদর হাসপাতালে গিয়ে নিহতদের লাশ শনাক্ত করেছেন। একই সঙ্গে জানান নিহত দুই ব্যক্তি তার মেয়ের ধর্ষক। এর মধ্যে একজন আল আমিন অপরজন মঞ্জুর আলম। চাঁদরাতে মেহেদি দিয়ে সাজতে গিয়ে তাদের হাতে গণধর্ষণের শিকার হয় ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী।

সদর উপজেলার উপজেলার চরসামাইয়া ইউপির ৩নং ওয়ার্ডের চরসিফলি গ্রামের এক কৃষক ঈদ উপলক্ষে তার আদরের দুই মেয়ের জন্য বাজার থেকে মেহেদি কিনে আনেন।

রোববার সন্ধ্যার দিকে তাদের বাবা গরু বিক্রি করার টাকা আনতে ভোলা শহরে যান। বাবা শহরে চলে যাওয়ার পর দুই বোন রাত ৮টার দিকে প্রতিবেশী দুঃসম্পর্কের আত্মীয় মাহফুজের স্ত্রীর কাছে হাতে মেহেদি দিয়ে সাজতে যায়। ওই সময় আগে থেকে অপেক্ষমাণ মাহফুজের ঘরের ভাড়াটিয়া আল আমিন ষষ্ঠ শ্রেণিতে পড়ুয়া স্কুলছাত্রীকে ডেকে তার ঘরে নিয়ে যায়। এ সময় আলমিনের স্ত্রী ঘরে ছিল না। এ সুযোগে ওই ছাত্রীকে আলামিন ও তার সহযোগী মঞ্জুর আলম হাত-পা ও মুখে কাপড় বেঁধে ধর্ষণ করে পালিয়ে যায়। পরে ছাত্রীর চিৎকারে স্থানীয়দের সহযোগিতায় তাকে উদ্ধার করে ভোলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। গোপনাঙ্গে থেকে প্রচুর রক্তক্ষরণ হওয়ায় পরে ওই ছাত্রীকে সোমবার ঈদের দিন বরিশালের শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ ( শেবাচিম) হাসপাতালে পাঠানো হয়।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএইচ

Best Electronics
Best Electronics