Alexa দাফনের ২২ দিন পর তোলা হল মরদেহ 

ঢাকা, মঙ্গলবার   ১৬ জুলাই ২০১৯,   শ্রাবণ ২ ১৪২৬,   ১৩ জ্বিলকদ ১৪৪০

দাফনের ২২ দিন পর তোলা হল মরদেহ 

জামালপুর প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২১:২০ ১২ মার্চ ২০১৯  

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

জামালপুরের সরিষাবাড়িতে দাফনের ২২ দিন পর মঙ্গলবার সকালে কবর থেকে নিহত ফজলুল হকের মরদেহ তোলা হয়েছে। জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেটের নির্দেশে ইউএনও সাইফুল ইসলামের উপস্থিতিতে মরদেহ তোলা হয়।

ফজলুল হকের পরিবারের অভিযোগ, সরিষাবাড়ি উপজেলার ভাটারা ইউপির ফুলদহ গ্রামের ওয়াহেদ আলীর ছেলে ফজলুল হককে গত ১৮ ফেরুয়ারি সোমবার সন্ধ্যায় তার নিজ বাড়ি ফুলদহ গ্রাম থেকে পাশের ফুলদহ নয়াপাড়া গ্রামের আফছার আলীর পুত্র এরশাদ মিয়া ডেকে নিয়ে যান। এরশাদ পরে ফজলুল হকের পরিবারকে বলেন, প্রথমে মোটরসাইকেল যোগে দিগপাইত, পরে সিএনজি যোগে জামালপুর যাওয়ার পথে সড়ক দুর্ঘটনায় ফজলুল হক আহত হয়েছেন। স্থানীয়রা আহত ফজলুল হককে আশঙ্কাজনক অবস্থায় জামালপুর হাসপাতালে নেন। তবে তার অবস্থা আরো অবনতি হওয়ায় তাকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হয়। ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের চিকিৎসক ফজলুল হককে মৃত ঘোষণা করলে ফজলুল হকের মরদেহ দাফন করা হয়।

তারা আরো বলেন, ঘটনার দিন ওই স্থানে কোনো সড়ক দুর্ঘটনা হয়নি। তাছাড়া নিহতের শরীরের কোনো চিহ্ন দেখা যায়নি। ফজলুল হকের কাছ থেকে এরশাদ বেশ কিছু টাকা ঋণ নিয়েছিলেন। ওই টাকা পরিশোধ করা সম্ভব হয়নি। ওই ঋণের কারণেই তাকে হত্যা করা হয়েছে। এ ঘটনায় নিহতের স্ত্রী আনজুমনারা বেগম আদালতে মামলা করলে গত ১ মার্চ জিআর আমলী আদালত সরিষাবাড়ি, জামালপুরের সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট ফয়সল তারেক কবর থেকে মরদেহ তোলার নির্দেশ দেন।

সরিষাবাড়ি ইউএনও সাইফুল ইসলাম ঘটনার ২২ দিন পর মঙ্গলবার সকালে পুলিশের সহায়তায় মরদেহ কবর থেকে তোলেন। এরপর সুরতহাল রিপোর্ট শেষে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে। 

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএম