Alexa দলীয় মনোনয়ন নিয়ে বিপাকে তৃণমূল নেতাকর্মীরা

ঢাকা, বুধবার   ২৩ অক্টোবর ২০১৯,   কার্তিক ৮ ১৪২৬,   ২৪ সফর ১৪৪১

Akash

নাটোর-৪ আসন

দলীয় মনোনয়ন নিয়ে বিপাকে তৃণমূল নেতাকর্মীরা

 প্রকাশিত: ১৩:৫৭ ১০ নভেম্বর ২০১৮   আপডেট: ১৩:৫৭ ১০ নভেম্বর ২০১৮

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

নাটোর-৪ (গুরুদাসপুর-বড়াইগ্রাম) আসনে আওয়ামী লীগ, বিএনপি ও জাতীয় পার্টিসহ প্রায় ডজন খানেক মনোনয়ন প্রত্যাশী রীতিমতো গণসংযোগে চালিয়ে যাচ্ছেন। প্রার্থীদের গণসংযোগে মুখরিত হয়ে উঠেছে আসনটি। 

কে দলীয় মনোনয়ন পাচ্ছেন তা নিয়ে সংশয় কাটছেনা এলাকার ভোটারের মধ্যে। তবে পাঁচ বারের আওয়ামী লীগের দখলে থাকা আসনটি পুনরুদ্ধার করতে চায় বিএনপি আর ক্ষমতাসীনরা চায় ষষ্ঠবারের মত ধরে রাখতে।

তবে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নাটোর-৪ আসনের প্রার্থী বাছাই নিয়ে সংশয় আছেন দুদলই। এনিয়ে নেতা কর্মীদের মধ্যে চলছে নানা জল্পনা কল্পনা। নির্বাচনী গণসংযোগে বিএনপি জাতীয় পার্টির মনোনয়ন প্রত্যাশীদের মাঠে খুব কমই দেখা যাচ্ছে। তবে আওয়ামী লীগের সম্ভাব্য মনোনয়ন প্রত্যাশীরা দিনরাত নির্বাচনী প্রচারণা অব্যাহত রেখেছেন। 

এ আসনে এবার আওয়ামী লীগ থেকে এমপি প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন প্রত্যাশী বর্তমান এমপি নাটোর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. আব্দুল কুদ্দস, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক পৌর মেয়র শাহনেওয়াজ আলী, কেন্দ্রীয় যুব মহিলা লীগের সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট কোহেলী কুদ্দুস মুক্তি, রাজশাহী বিশ্ব বিদ্যালয়ের সাবেক ছাত্রলীগ সভাপতি আহম্মদ আলী। এদিকে বড়াইগ্রাম উপজেলা থেকে মনোনয়ন চাইছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ডা. সিদ্দিকুর রহমান পাটোয়ারী। 

এতে করে এ আসনে আওয়ামী লীগের সর্মথকরা চরম বিপাকে পড়েছেন। তাছাড়া মনোনয়ন প্রত্যাশীরা পোস্টার, ব্যানার, ফেস্টুন সভা সমাবেশ ও গণসংযোগের মাধ্যমে দিনরাত নির্বাচনী প্রচারণা চালাচ্ছেন। 

বিএনপিতে এ আসনে মনোনয়ন নিয়ে রয়েছে দ্বন্দ্ব নাটোর সদর-২ আসনের দুলু ও নাটোর-৪ আসনের এম মোজাম্মেল হক, গুরুদাসপুর উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুল আজিজের মধ্যে চলছে দীর্ঘ দিনের কোন্দল। অপরদিকে বড়ইগ্রাম উপজেলা থেকে বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির নেতা জন গমেজ, প্রয়াত উপজেলা চেয়ারম্যান সানাউল্লাহ নূর বাবুর স্ত্রী মহুয়া নূর কচি মনোনয়নের জন্য চেষ্টা তদবির চালাচ্ছেন।

এদিকে জাতীয় পার্টির সাবেক এমপি মো. আবুল কাশেম সরকার ও নাটোর জেলা জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক আলাউদ্দিন মৃধা দলীয় মনোনয়নের জন্য নির্বাচনী এলাকায় রাস্তার মোড়ে মোড়ে ব্যানার, পোস্টার দিয়ে প্রচার প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। 

সাবেক এমপি মোজাম্মেল হক জানান, বিএনপির মনোনয়ন তিনিই পাবেন। যারা মনোনয়নের জন্য চেষ্টা তদবির চালাচ্ছেন নির্বাচনী এলাকায় তাদের তেমন কোনো সমর্থক নেই। 

স্থানীয় এমপি অধ্যপক আব্দুল কুদ্দুস জানান, ষষ্ঠবারের মত শেখ হাসিনাকে এ আসনটি উপহার দিতে চাই। আমি পাঁচবার এমপি এবং একবার প্রতিমন্ত্রীর দ্বায়িত্ব পেয়েছি। তৃণমূল নেতাকর্মীদের ভোটে জেলা আওয়ামী লীগে সভাপতি নির্বাচিত হয়েছি। নির্বাচনের পর গুরুদাসপুর-বড়াইগ্রামে ১০ হাজার কোটি টাকার উন্নয়নমুলক কাজ শেষ করেছি। যা দেশ স্বাধীনের পরে এত উন্নয়নমুলক কাজ আর কেউ করতে পারেনি। একটি মহল তার বিরুদ্ধে নির্বাচনী মাঠে অপপ্রচার চালাচ্ছে বলে তিনি জানান। 

ডেইলি বাংলাদেশ/এমআর