Alexa দম ফেলার ফুরসত নেই কামারদের

ঢাকা, মঙ্গলবার   ২০ আগস্ট ২০১৯,   ভাদ্র ৫ ১৪২৬,   ১৮ জ্বিলহজ্জ ১৪৪০

Akash

দম ফেলার ফুরসত নেই কামারদের

ফারুক আহমেদ, ময়মনসিংহ ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৪:১৮ ৬ আগস্ট ২০১৯   আপডেট: ১৫:০১ ৬ আগস্ট ২০১৯

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ময়মনসিংহের ত্রিশালে কোরবানি ঈদ উপলক্ষে বেড়েছে কামারদের ব্যস্ততা। দা, বটি, চাপাতি, ছুরি বানাতে দিন রাত ঘাম ঝরাচ্ছেন তারা। জেলার বিভিন্ন কামারপট্টি ও হাট-বাজার এখন টুং টাং শব্দে মুখরিত।

এ দুই মাস আমাদের পুরো বছরের রোজগার করতে হয় জানিয়ে কামাররা জানান, ঈদুল আজহা এলেই তাদের ব্যস্ততা বেড়ে যায় কয়েকগুণ। তবে ঈদ ছাড়া বাকি দিনগুলোতে তাদের তেমন একটা ব্যস্ততা থাকে না বললেই চলে। বছরের অন্যান্য সময় তাদের দিনে ২শ’ থেকে ৩শ’ টাকা আয় হয়। আবার কোনো দিন রোজগার ছাড়াই কাটাতে হয় দিন। সে তুলনায় এখন আয় কয়েকগুণ বেশি হচ্ছে।

সরেজমিন থেকে প্রাপ্ত তথ্যানুযায়ী, কেউ তৈরি করছে দা, কেউ বা তৈরি করছে চাপাতি আবার কেউ কেউ তৈরি করছে ছুরি। আবার কেউ পুরাতনগুলো ধার দিচ্ছেন এবং নতুনগুলো সারিবদ্ধভাবে দোকানের সামনে সাজিয়ে রেখেছেন বিক্রির উদ্দেশ্যে।

কামার নিরাঞ্জন কর্মকার জানান, ঈদ উপলক্ষে কামারদের ব্যস্ততা বেড়েছে। কাজের চাপে এখন দম ফেলার ফুরসত নেই। তবে এ কাজে কয়লার প্রচুর চাহিদা থাকায় বর্তমানে কয়লা পাওয়া খুবই কঠিন হয়ে পড়েছে। তাছাড়া দামও বেশি। পাশাপাশি লোহার দামও বেশি। সরকার সুলভ মূল্যে কাঁচামাল কেনার নীতিমালাসহ আর্থিক সহযোগিতায় ঋণের ব্যবস্থা করে দিলে ব্যবসায় কিছুটা সফলতার মুখ দেখা যেতো।

ত্রিশালের কামার তাপস কর্মকার জানান, নতুন চাপাতি ১২শ’ টাকা থেকে ১৫শ’ টাকা, দা ৬শ’ টাকা থেকে ৯শ’ টাকা, চাকু ১শ’ টাকা থেকে ১শ’ ২০ টাকা, খুন্তি ৪০ টাকা, শাবল ১শ’ ৫০ থেকে ২শ’ টাকা, হাতা ৫০ টাকা থেকে ৯০ টাকা পর্যন্ত বিক্রি হচ্ছে। ঈদ যতই কাছে আসবে, দাম আরো বাড়বে।

হরিরাম পুর গ্রামের গৃহিনী তানিয়া আক্তার জানান, নতুনের চাইতে তারা পুরানো দা, ছুরি ধার দিয়ে নতুন করে তোলার কাজে বেশি আগ্রহ নিয়ে এখন ভিড় জমাচ্ছেন কামারের দোকানে।

ডেইলি বাংলাদেম/আর.এইচ/আরএম

Best Electronics
Best Electronics