দক্ষিণ কোরিয়ায় ভয়াবহ রূপ নিয়েছে করোনাভাইরাস

ঢাকা, শুক্রবার   ০৩ এপ্রিল ২০২০,   চৈত্র ২০ ১৪২৬,   ০৯ শা'বান ১৪৪১

Akash

দক্ষিণ কোরিয়ায় ভয়াবহ রূপ নিয়েছে করোনাভাইরাস

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১১:৩২ ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০   আপডেট: ১১:৩৪ ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০

দায়েগু শহরে এক পোস্ট অফিসের সামনে লোকেরা ফেস মাস্ক কেনার জন্য সারি ধরে দাঁড়িয়ে আছে

দায়েগু শহরে এক পোস্ট অফিসের সামনে লোকেরা ফেস মাস্ক কেনার জন্য সারি ধরে দাঁড়িয়ে আছে

চীন থেকে উৎপন্ন করোনা আতঙ্ক এখন দেশটির গন্ডি পেরিয়ে ছড়িয়ে পড়েছে এশিয়ার উত্তরাংশ, মধ্যপ্রাচ্য ও ইউরোপের দেশগুলোতে। যা সবার জন্য গভীর উদ্বেগের বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে বলে মনে করছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। তারইমধ্যে যত দিন যাচ্ছে দক্ষিণ কোরিয়াতে করোনাভাইরাসের ভয়বহতার রূপ ততই বড়ছে।

শুক্রবার সাউথ চায়না মর্নিং পোস্টের দেয়া তথ্যানুযায়ী, দক্ষিণ কোরিয়ায় করোনাভাইরাসে নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন আরো ২৫৬ জন। এ নিয়ে দেশটিতে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২ হাজার ২২জনে। মারা গেছেন ১৩ জন।

যদিও কোনো কোনো সংবাদমাধ্যম জানাচ্ছে আক্রান্তের সংখ্যা আরো বেশি। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা দক্ষিণ কোরিয়ার ওপরে কড়া নজর রেখেছে। সূত্রের দাবি, স্বাস্থ্য সংস্থার আশঙ্কা, যে ভাবে চীন করোনাভাইরাসের মোকাবিলা করছে, দক্ষিণ কোরিয়ার মতো অপেক্ষাকৃত গরিব দেশের পক্ষে তা সম্ভব হবে না।

জানা গেছে, দেশটিতে নতুন করে আক্রান্তদের মধ্যে ১৮২জনই দায়েগু শহরের। এই দায়েগু শহরের একটি হাসপাতাল এবং একটি ধর্মীয় গ্রুপ থেকে এই ভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে বলে এর আগে দক্ষিণ কোরিয়া সরকারের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছিল। তবে এখন অন্যান্য অঞ্চলেও এ রোগের প্রাদুর্ভাব ছড়িয়ে পড়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক বাহিনী জানিয়েছে, দেগু থেকে প্রায় ২০ কিলোমিটার দূরে ক্যাম্প ক্যারোলে ২৩ বছর বয়সী এক সৈন্য নতুন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে। এ সৈন্য সম্প্রতি দায়েগুর ক্যাম্প ওয়াকারে গিয়েছিলেন। এর আগে মার্কিন এই সামরিক ঘাঁটির কাছে বেশ কয়েকজন ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হয়েছিল। আক্রান্ত ওই সৈন্য ঘাঁটির বাইরে নিজের বাড়িতে নিজেকে স্বেচ্ছা-কোয়ারেন্টাইন করেছেন বলে কোরিয়ায় মোতায়েন মার্কিন বাহিনী ইউএসএফকে এক বিবৃতিতে জানিয়েছেন।

গত রোববার দক্ষিণ কোরিয়াতে প্রেসিডেন্ট মুন জে-ইন দেশটিতে সর্বোচ্চ সতর্কতা জারি করেছেন। তিনি করোনাভাইরাসের পরিস্থিতি নিয়ে টেলিভিশনের জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণও দেন। সেখানে এই পরিস্থিতিকে ভয়াবহ বলে উল্লেখ করেছেন প্রধানমন্ত্রী। ভাষণে তিনি দেশের মানুষকে ধর্মীয় অনুষ্ঠানসহ যেকোনো বড় আকারের সমবেত হওয়া থেকে বিরত থাকতে বলেছেন।

তিনি বলেন, সরকার মনে করে, কোভিড-১৯ সংক্রমণের পরিস্থিতি ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। ভাইরাসটি ছড়িয়ে পড়া ঠেকাতে সব ধরনের পদক্ষেপ নেয়া হবে।

প্রধানমন্ত্রী আরো বলেন,  যদি কোথাও ফেস মাস্ক মজুত করে রাখা হয় এবং সদ্য নিষিদ্ধ কোনো সমাবেশে কেউ অংশ নিলে শান্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হবে।

উল্লেখ্য, দক্ষিণ কোরিয়াতে অবস্থানরত কোনো বাংলাদেশি এখন পর্যন্ত এই রোগে আক্রান্ত হয়নি বলে নিশ্চিত করেছেন দেশটিতে নিযুক্ত বাংলাদেশি রাষ্ট্রদূত আবিদা ইসলাম। তিনি বাংলাদেশিদের সর্বোচ্চ সতর্কতার সঙ্গে চলাফেরার নির্দেশ দিয়েছেন। এদিকে চীনের উহান থেকে ছড়িয়ে পড়া এ ভাইরাসে এখন পর্যন্ত মৃতের সংখ্যা বেড়ে দুই হাজার ৮৫৮ জনে দাঁড়িয়েছে। আক্রান্ত হয়েছেন ৮৩ হাজারের বেশি মানুষ।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএএইচ