.ঢাকা, শুক্রবার   ১৯ এপ্রিল ২০১৯,   বৈশাখ ৫ ১৪২৬,   ১৩ শা'বান ১৪৪০

থেরেসা মে'কে 'স্টুপিড মহিলা' বললেন করবিন!

আন্তর্জাতিক ডেস্ক :: international-desk

 প্রকাশিত: ১১:৪৭ ২০ ডিসেম্বর ২০১৮   আপডেট: ১১:৪৭ ২০ ডিসেম্বর ২০১৮

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে'র প্রশ্নোত্তর পর্ব চলার সময় লেবার পার্টির নেতা জেরেমি করবিন তাকে 'স্টুপিড মহিলা' বলেছেন বলে অভিযোগ করেছেন ক্ষমতাসীন কনজারভেটিভ পার্টির এমপিরা। তারা এ ঘটনায় করবিনকে ক্ষমা চাওয়ার দাবি করেছেন।

তবে 'স্টুপিড মহিলা' বলার অভিযোগ নাকচ করে দিয়েছেন লেবার পার্টির নেতা জেরেমি করবিন। তিনি বলেছেন, এরকম কোন শব্দ তিনি বলেননি। বরং তিনি, ''স্টুপিড পিপল'' বলেছেন। - খবর বিবিসি’র

করবিন জানান, তিনি সবসময়েই নারীদের প্রতি যৌন ইঙ্গিতপূর্ণ বা বিদ্রূপমূলক ভাষা ব্যবহারের বিরোধী।

এই অভিযোগ ওঠার পর হাউজ অফ কমন্সের স্পিকার জন বারকো বলছেন, ঘটনাটি তিনি দেখতে পাননি এবং এ সম্পর্কে সব এমপিরই বক্তব্য গ্রহণ করা উচিত।

তবে কনজারভেটিভ এমপিরা বলছেন, তারা করবিনের ব্যাখ্যায় সন্তুষ্ট নন এবং তার ক্ষমা চাওয়ার দাবি তুলেছেন।

কমন্সে দেয়া বক্তব্যে করবিন বলেছেন, ''আজ প্রধানমন্ত্রীর প্রশ্নোত্তর পর্ব চলার সময় আমি তাদের কথাই বলছিলাম, যারা দেশের এই সংকট নিয়ে চলা একটি বিতর্ককে কৌতুকে পরিণত করতে চাইছে, তাদেরকেই আমি 'স্টুপিড পিপল' বলেছি। মি. স্পিকার, আমি প্রধানমন্ত্রী বা অন্য কাউকে উদ্দেশ্য করে 'স্টুপিড উইমেনের' মতো শব্দ ব্যবহার করিনি।''

তবে তার এই বক্তব্যের জবাবে কনজারভেটিভ এমপি র‌্যাচেল ম্যাকলিন বলেন, ''তার ঠোঁটের ভাষা পড়ে দেখুন, আমি তাকে বিশ্বাস করি না।''

অভিযোগটি ওঠার পর হাউজ অব কমন্সের স্পিকার জন বারকো বলেছেন, করবিনের বিরুদ্ধে যে আচরণের অভিযোগ তোলা হয়েছে, তিনি সেই ভিডিও পরীক্ষা করে দেখেছেন, সেখানে মাইক্রোফোনে কোনো শব্দ আসেনি এবং সেটা দেখে সহজেই বুঝতে পারা যায় যে, কেন বিরোধী নেতার শব্দকে 'স্টুপিড ওম্যান' হিসাবেও বর্ণনা করা যায়।''

এ ব্যাপারে সুনিশ্চিত হতে আদালতে ঠোঁটের ভাষা অনুবাদের কাজ করেন এমন একজন বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিয়েছেন স্পিকার। তাকে ওই ভিডিওটি দেখানো হয়েছে, তবে এখনো কোন উপসংহারে পৌঁছানো সম্ভব হয়নি।

বারকো বলেন, ''কারো পক্ষেই শতভাগ নিশ্চিত হওয়া সম্ভব না, এমনকি পেশাদার ঠোঁটের ভাষা বিশেষজ্ঞদের পক্ষেও নয়। কিন্তু স্বাভাবিকভাবেই আমি একজন সম্মানিত সদস্যের বক্তব্যকেই গ্রহণ করবো, যা আসলে করা উচিত। হাউজেরও এটা করাই যৌক্তিক হবে।''

তিনি বলেন, করবিন পুরোটা সময়েই বসে ছিলেন এবং হাউজকে উদ্দেশ্য করে কিছু বলেননি, তাই তার বক্তব্য 'অন রেকর্ড' হিসাবে গ্রহণীয় হবে না।

এর আগের একটি ঘটনায় স্পিকার জন বারকোর বিরুদ্ধেই অভিযোগ উঠেছিল যে, তিনি টোরি এমপি ভিকি ফোর্ডকে 'স্টুপিড ওম্যান' বলেছেন। ফলে সংসদ সদস্যরা স্পিকারের নিজের আচরণ নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন।

বারকো’কে স্মরণ করিয়ে দিয়ে কমন্স এমপি অ্যান্ড্রিয়া লিডসোম বলেছেন যে, এ বছরের শুরুর দিকের ওই ঘটনার জন্য তিনি এখনো ক্ষমা চাননি। জবাবে স্পিকার বলেছেন, এর মধ্যেই ওই ঘটনা নিয়ে তিনি পদক্ষেপ নিয়েছেন।

লিডসোম বলেন, মি: করবিনের বিবৃতির পর দর্শক এবং এমপিদের পক্ষে তাদের নিজস্ব সিদ্ধান্তে আসা সম্ভব হবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/মাহাদী