.ঢাকা, সোমবার   ২৫ মার্চ ২০১৯,   চৈত্র ১১ ১৪২৫,   ১৮ রজব ১৪৪০

ডিমনেশিয়া রোগের লক্ষণ

ফাতিমাতুজ্জোহরা

 প্রকাশিত: ১৩:৫৪ ১৩ জানুয়ারি ২০১৯   আপডেট: ১৩:৫৪ ১৩ জানুয়ারি ২০১৯

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

অনেকেই অনেক সময় বিভিন্ন কথা, নাম ও তারিখ ভুলে যায়। এ ভুলে যাওয়াটা এক ধরণের রোগ। রোগটি ডিমেনশিয়া নামে অধিক পরিচিত। কম-বেশি সকলের মধ্যেই এটা রয়েছে। ডিমেনশিয়া রোগের লক্ষণ সম্পর্কে জেনে নিন-

ডিমেনশিয়া হলে খুব কাছের কোনো স্মৃতি বা কিছুদিন আগের কোনো স্মৃতি ভূলে যাবেন। আবার বহুদিন আগের স্মৃতি নিখুঁতভাবে মনে থাকবে। কিন্তু দুদিন বা দুই সপ্তাহে আগে কি ঘটেছে তা চেষ্টা করেও মনে করতে পারবেন না। একই কথা বার বার বলা, একই প্রশ্ন অনেকবার করা, নাম-তারিখ দিন উলট-পালট করে ফেলা। এগুলো ডিমনেশিয়া রোগের লক্ষণ।

আবার অনেক সময় আপনি মনে মনে ভাবেন একটা জিনিস করবেন। সেটা করতে গেলেও অনেক সময় ব্যাঘাত ঘটতে পারে। কোনটির পর কোনটি করবেন কিছুতেই বুঝে উঠতে পারছেন না। অনেক সময় বাইরে বের হলে রাস্তাও ভুলে যায়। এসব লক্ষণ হলো ডিমেনশিয়া রোগের। আবার অনেক সময় আপনি একটি কথা বলতে গিয়েই বলতে পারেন না, অন্য কথা বলে ফেলেন। অর্থাৎ কি বলতে চাচ্ছে তার ভাষা খুঁজে পায় না। ফলে সে নিজের উপর রাগ হয়ে অনেক উত্তেজিত হয়ে যায়। এসব সমস্যাও হলো ডিমেনশিয়া রোগের লক্ষণ। এ সমস্যা বাড়তে বাড়তে এমনও হতে পারে বার-তারিখ কিছুই মনে থাকবে না! অনেকে কথা গুছিয়ে বলতে পারে না। যার জন্য তাকে লোকে একগুঁয়ে মনে কিন্তু তা নয়। এটাও কিন্তু ডিমেনশিয়া রোগের লক্ষণ।

ডিমেনশিয়া রোগের রোগীরা যেটা ঠিক মনে করবে সেটাই ঠিক। অন্য কেউ তাকে যাই বুঝায় না কেন সবকিছু তার কাছে ভুল বলে মনে হবে। এসমস্যার জন্য অনেক সময় মনমালিন্য হতে পারে। অনেক সময় দেখা যায়, আপনি টাকা গুনতে গিয়ে কিছু সময় পর ভুলে যান আবার প্রথম থেকে গুনতে হয়। সব রকম হিসেবেও গোলমাল হয়ে যায়। আবার লেনদেনের সময় অসঙ্গতি দেখা দিতে পারে। কিছু হিসেব ঠিক মতো হচ্ছে না। অনেক সময় মাথা কাজ করে না। এগুলো ডিমেনশিয়ার একটি লক্ষণ।

ডিমেনশিয়া রোগে হটাৎ ব্যাক্তিত্বের পরিবর্তন হতে পারে। যেমন- আপনি খুব মিশুক একজন মানুষ কিন্তু হটাৎ করে খুব গম্ভীর হয়ে গেলেন। আমাদের সকলের জীবনে এক নাগাড়ে কাজ করতে করতে একটা এক ঘেয়ামী চলে আসে। যদি কখনো দেখেন যে, কিছু ভালো লাগে না ও আগ্রহ লাগে না তাহলে এটাও ডিমেনশিয়া রোগের লক্ষণ। 

তবে এসব লক্ষণ যদি ছোটবেলা থেকে থাকে তবে সেটা বড় সমস্যা নয়। হটাৎ করে এ সমস্যাগুলো দেখা দিলে অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ নিতে হবে।

ডেইলিবাংলাদেশ/এনকে