ডায়াবেটিস রোগীরা যেভাবে করোনা থেকে বাঁচবেন

ঢাকা, শনিবার   ০৬ জুন ২০২০,   জ্যৈষ্ঠ ২৪ ১৪২৭,   ১৪ শাওয়াল ১৪৪১

Beximco LPG Gas

ডায়াবেটিস রোগীরা যেভাবে করোনা থেকে বাঁচবেন

স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১১:০২ ২ এপ্রিল ২০২০   আপডেট: ১৮:০৭ ৫ এপ্রিল ২০২০

ছবি: প্রতীকী

ছবি: প্রতীকী

ডায়াবেটিসে আক্রান্ত রোগীদের ক্ষেত্রে করোনায় আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি বেশি, এমনই ধারণা সবার! কারণ এ পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়ে যারা মৃত্যুবরণ করেছেন তাদের বেশিরভাগই দীর্ঘমেয়াদী রোগ যেমন- ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ, হৃদরোগসহ ফুসফুসের অসুখ ইত্যাদি সমস্যায় ভুগছিলেন। এজন্য ডায়াবেটিস রোগীর ক্ষেত্রে কোভিড-১৯ এর ঝুঁকি অন্যদের তুলনায় বেশি মারাত্মক বলেই মত বিশেষজ্ঞদের। 

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সমীক্ষা অনুযায়ী, ২০১৪ সালের তথ্য অনুসারে পৃথিবীতে ডায়াবেটিসে আক্রান্তের সংখ্যা ৪২২ মিলিয়নেরও বেশি। বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, ২০১৯ সালে সারা পৃথিবীতে ২৩ কোটি ২০ লাখ ডায়াবেটিস রোগী রয়েছেন। সেই হিসাবে ২০৩০ সালে এই সংখ্যা গিয়ে দাঁড়াবে ৩৬ কোটি ৬০ লাখে। 

নিউ ইয়র্ক পোস্টের এক প্রতিবেদনে উঠে এসেছে, ডায়াবেটিস, ফুসফুস এবং হৃদরোগের মতো দীর্ঘস্থায়ী রোগীরা করোনোভাইরাসজনিত কারণে হাসপাতালে বেশি ভর্তি হয়েছেন। এমনকি নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে থাকা পাঁচজনের মধ্যে অন্তত একজন এসব দীর্ঘমেয়াদী রোগে আক্রান্ত ছিলেন। রোগ নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধ কেন্দ্রসমূহের সর্বশেষ প্রতিবেদনে উঠে এসেছে এমনই তথ্য।

সিডিসির রিপোর্ট অনুসারে, সাত হাজার ১৬২ করোনায় আক্রান্ত রোগীর মধ্যে ৩৭ দশমিক ৬ শতাংশই কোনো না কোনো দীর্ঘমেয়াদী রোগে ভুগছিলেন। রয়টার্সের এক প্রতিবেদনে দেখা গেছে, নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে থাকা ৭৮ শতাংশ করোনা রোগীর মধ্যে ডায়াবেটিসে আক্রান্ত ছিলেন ৩২ শতাংশ, হৃদরোগে ২৯ শতাংশ এবং ফুসফুসের দীর্ঘস্থায়ী রোগে ২১ শতাংশ। এমনকি ১২ শতাংশেরও বেশি রোগী কিডনি রোগে আক্রান্ত ছিলেন। অন্যদিকে মাত্র ৯ শতাংশ রোগীর মধ্যে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা উন্নত ছিল।

কেন ডায়াবেটিসে আক্রান্তরা বেশি ঝুঁকিতে?

বিশেষজ্ঞদের মতে, ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে না থাকলে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার উপর নেতিবাচক প্রভাব পড়ে। ফলে এর থেকে যে কোনো সংক্রমণের আশঙ্কা দ্বিগুণ বেড়ে যায়। এমনকি করোনার ঝুঁকিও বাড়ে।

এসময় করোনা থেকে বাঁচতে যা করা উচিত-

১. দিনে অন্তত ৫ থেকে ৬ বার হাত ধুতে হবে। কমপক্ষে ২০ সেকেন্ড সাবান পানিতে হাত ধুয়ে নিন। স্যানিটাইজারের চেয়ে সাবান উত্তম। তবে স্যানিটাইজারে যেন ৭০ শতাংশের বেশি অ্যালকোহল থাকে সে দিকে খেয়াল রাখুন।

২. রান্না, পরিবেশন ও খাওয়ার আগে হাত ভালো করে ধুয়ে নিন। নিজের ব্যবহৃত বাসনপত্র এমনকি কাপড়ও আলাদা করতে হবে।

৩. পর্যাপ্ত স্বাস্থ্যকর খাবার। শাক, সবজি, ফল, মুরগির মাংস, মাছ, ডিম, ব্রাউন রাইস, হোল গ্রেন বা মাল্টি গ্রেন আটা ইত্যাদি। 

৪. এসময় হাতের কাছে কিছু মিষ্টিজাতীয় খাবার রাখতেও ভুলবেন না যেন! যদি হঠাৎ ডায়াবেটিস খুব কমে যায়, তখন কাজে আসবে।

৫. প্রয়োজনীয় ওষুধ ও ইনসুলিন পর্যাপ্ত কিনে রাখুন। মেশিনে সুগার মাপার স্ট্রিপও কিনে রাখুন। এতে করে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে থাকবে!

সূত্র: নিউইয়র্কপোস্ট

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএমএস/