ট্রাম্পের সফরের আগে ভারতকে ভিডিওতে ‘বদলার হুমকি’ জইশের

ঢাকা, সোমবার   ৩০ মার্চ ২০২০,   চৈত্র ১৬ ১৪২৬,   ০৫ শা'বান ১৪৪১

Akash

ট্রাম্পের সফরের আগে ভারতকে ভিডিওতে ‘বদলার হুমকি’ জইশের

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৬:৫০ ১৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০   আপডেট: ০৯:৫০ ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সফরের আগেই ভিডিও-বার্তায় ভারতকে ‘বদলার হুমকি’ দিল নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠন জইশ-ই-মহম্মদ।

গত আগস্টে সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ রদ করে কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বিলোপ করা এবং রাজ্য বিভাজনের পর থেকেই তার বিরোধিতা করে এসেছে পাকিস্তান। এবার এক ভিডিওর মাধ্যমে কাশ্মীর বিভাজনের বদলা নেয়ার হুশিয়ারি জানান জইশ।

ওই ভিডিওতে মোদি সরকারের বিরুদ্ধে জইশ হুমকি দিয়ে বলেন, হত্যাকারীদের ক্ষমা করা হবে না। যেভাবে তোমরা মুসলিমদের হেনস্থা করেছ এবং তাদের ভাবনাকে ধ্বংস করেছ, তার বদলা নেয়া হবে। শান্তির অনেক ঘুমপাড়ানি গান শুনেছি আমরা..এখন সব অজুহাত শেষ হয়ে গিয়েছে। সময় এসেছে অসংযত হওয়ার।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের ভারত সফরে আর বেশি দিন বাকি নেই। আগামী ২৪ ফেব্রুয়ারি দু’দিনের সফরে এ দেশে আসছেন সস্ত্রীক ট্রাম্প। গোয়েন্দাদের একাংশের দাবি, সেই সফরের ঠিক আগেই এই ভিডিও প্রকাশের অর্থ, এটা ফের এক বার বুঝিয়ে দেয়া যে, মোদি সরকারের কাশ্মীর বিভাজনের সিদ্ধান্তে সন্তুষ্ট নয় পাকিস্তান। এটাও বোঝানোর চেষ্টা করা যে, ৩৭০ অনুচ্ছেদ রদের সিদ্ধান্তে কাশ্মীররা ক্ষুব্ধ এবং তারা জঙ্গি হামলা করবেন।

গোয়েন্দাদের আরো দাবি, চলতি মাসেই পাক অধিকৃত কাশ্মীরে জঙ্গি গোষ্ঠীগুলোর সঙ্গে একটি বৈঠক করেছে পাকিস্তানের সেনারা। ওই বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন পাক গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআই এর কর্তারা। সেখানেই হিজবুল মুজাহিদিনকে ফের সক্রিয় করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। সেই সঙ্গে পাক-জঙ্গিদের পরিবর্তে কাশ্মীরি জঙ্গিদের আরো বড় দায়িত্ব দেয়ার আলোচনাও করা হয়। 

জানা গেছে, জঙ্গি হামলার পরিকল্পনা বাস্তবায়নের জন্য লস্কর-এ-তৈবা ও জয়েশ-ই-মহম্মদের পরিবর্তে সব দায়িত্ব নেবে হিজবুল। শুধু তাই নয়। কাশ্মীরিদের মনে ভয় ধরানোর জন্য পুলিশ, নিরাপত্তা বাহিনী থেকে শুরু করে নগরাঞ্চলে বসবাসকারী সাধারণ মানুষ সকলের ওপর হামলা হবে। পাশাপাশি, নিরাপত্তাবাহনীর ঘাঁটিতে বড়সড় নাশকতা হামলা চালানোর চেষ্টা করা হবে বলেও উঠে আসে ওই বৈঠকে।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএএইচ/এসএমএফ