Alexa ট্রাম্পের বিরুদ্ধে ১৬ অঙ্গরাজ্যের মামলা

ঢাকা, রোববার   ২১ জুলাই ২০১৯,   শ্রাবণ ৭ ১৪২৬,   ১৮ জ্বিলকদ ১৪৪০

ট্রাম্পের বিরুদ্ধে ১৬ অঙ্গরাজ্যের মামলা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৩:১০ ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৯  

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

মেক্সিকো সীমান্তে সীমানা প্রাচীর নির্মানের জন্য অর্থ সংগ্রহে যুক্তরাষ্ট্র জুড়ে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের জরুরী অবস্থা ঘোষণার সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছে দেশটির ১৬টি অঙ্গরাজ্য। মামলা দায়ের করা ১৬টি অঙ্গরাজ্যের এ জোটের নেতৃত্য দিচ্ছে ক্যালিফোর্নিয়া। 

সোমবার ক্যালিফোর্নিয়ার নর্দান ডিস্ট্রিক্টের ডিস্ট্রিক্ট কোর্টে অঙ্গরাজ্যটির অ্যাটর্নি জেনারেল জেভিয়ার বেসারা’র নেতৃত্বে এ মামলাগুলো দায়ের করা হয়। - খবর বিবিসি’র

জরুরী অবস্থা জারির মাধ্যমে কংগ্রেসকে পাশ কাটিয়ে সীমান্ত প্রাচীর নির্মাণের জন্য অর্থ সংগ্রহ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন ট্রাম্প। তার এ সিদ্ধান্তের কয়েক দিন পরই এ মামলা দায়েরের ঘটনা ঘটলো।  

বিরোধী ডেমোক্রেট পার্টি ট্রাম্পের জরুরী অবস্থা জারির এ সিদ্ধান্তকে ঠেকাতে সম্ভাব্য সব ধরনের প্রচেষ্টা চালাবে বলে অঙ্গিকার করেছে। 

ট্রাম্পের দল রিপাবলিকানদের প্রাচীর নির্মাণ সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে গেল সপ্তাহের ছুটির দিনে যুক্তরাষ্ট্রে হাজারো মানুষ বিক্ষোভ করেন।

ক্যালিফোর্নিয়ার অ্যাটর্নি জেনারেল জেভিয়ার বেসারা এক বিবৃতিতে জানান, ট্রাম্প প্রশাসনের সংবিধান লঙ্ঘনের বিরুদ্ধে তারা মামলাগুলো করেছেন।

তিনি বলেন, আমরা প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের ক্ষমতার অপব্যবহার রোধ করতে তাকে আদালতে নিচ্ছি। একতরফা ভাবে কংগ্রেসকে পাশ কাঁটিয়ে ট্যাক্স প্রদানকারীদের অর্থ কেড়ে নেয়া বন্ধ করতে আমরা তার বিরুদ্ধে মামলা করেছি। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প যা করছেন, তা সংবিধান অবমাননা এবং আইনের শাসনের জন্য বড় ধরনের হুমকি। তিনি নিজেও জানেন সীমান্ত প্রাচীর নির্মাণ নিয়ে কোনো সঙ্কট নেই। জরুরি অবস্থা জারির কোনো প্রয়োজনই ছিল না। ট্রাম্প সম্ভবত এও জানেন, আদালতে তিনি এবারও হারবেন।

এর আগেই জেভিয়ার বলেছিলেন, তার অঙ্গরাজ্য এবং অন্যদের নিয়ে তিনি আইনি লড়াইয়ের পক্ষে। কারণ, আইনি ব্যবস্থার মাধ্যমে সেনা প্রকল্প, দুর্যোগ সহায়তাসহ বিভিন্ন উদ্দেশে আমেরিকানদের অর্থ ডাকাতি বন্ধ করতে চান তারা।

এ মামলায় ক্যালিফোর্নিয়ার সঙ্গে আছেন কলোরাডো, কানেকটিকাট, ডেলাওয়ার, হাওয়াই, ইলিনয়, মেইন, মেরিল্যান্ড, মিশিগান, মিনেসোটা, নেভাডা, নিউ জার্সি, নিউ মেক্সিকো, নিউইয়র্ক, অরিগন ও ভার্জিনিয়ার অ্যাটর্নি জেনারেল। জরুরি অবস্থা ঘোষণার সিদ্ধান্তের পর ট্রাম্প প্রশাসনের বিরুদ্ধে আগেও একাধিক মামলা হয়েছে। সেন্টার ফর বায়োলজিক্যাল ডাইভার্সিটি, বর্ডার নেটওয়ার্ক ফর হিউম্যান রাইটসসহ একাধিক গ্রুপ এ মামলা করেছে।

জরুরি অবস্থা ঘোষণার কারণে মেক্সিকো সীমান্তে দেয়াল নির্মাণের জন্য পর্যাপ্ত বরাদ্দ পেতে বিরোধীদের দিকে তাকিয়ে থাকতে হচ্ছে না ট্রাম্পকে।

হোয়াইট হাউস জানায়, এ ক্ষমতাকে কাজে লাগিয়ে সামরিক খাতের নির্মাণ প্রকল্পের ৩৬০ কোটি ডলার, মাদকবিরোধী প্রকল্পের ২৫০ কোটি ডলার এবং ট্রেজারি বিভাগের ৬০ কোটি ডলার দেয়াল নির্মাণে বরাদ্দ দিতে পারবেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প।

মেক্সিকো সীমান্তে দেয়াল নির্মাণের জন্য ৫ বিলিয়ন ডলার বাজেট অনুমোদনে ব্যর্থ হয়ে সরকারি ব্যয় বরাদ্দ বিলে সই করতে ট্রাম্প অস্বীকৃতি জানান। এরপর গত ২১ ডিসেম্বর থেকে অচলাবস্থার মুখে পড়ে যুক্তরাষ্ট। ৩৫ দিন পর সেই অচলাবস্থার অবসান হয়।

ব্রেনান সেন্টার জানায়, ১৯৭৮ থেকে ২০১৮ সালের মধ্যে যুক্তরাষ্ট্রে ৫৮বার জাতীয় জরুরি অবস্থা ঘোষণা করা হয়েছে।

প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা ১৬ অঙ্গরাজ্যের জোট থেকে বলা হয়েছে, জরুরি অবস্থা জারীর মাধ্যমে প্রাচীর নির্মাণ করলে মিলিয়ন মিলিয়ন ডলার খরচ হবে, যা যুক্তরাষ্ট্রের অর্থনীতিতে নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/মাহাদী/টিআরএইচ