Alexa টইটম্বুর আড়িয়াল বিলে ‘ডে ট্রিপ’

ঢাকা, সোমবার   ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯,   আশ্বিন ১ ১৪২৬,   ১৬ মুহররম ১৪৪১

Akash

টইটম্বুর আড়িয়াল বিলে ‘ডে ট্রিপ’

কবির হোসেন ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৩:২৮ ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৯   আপডেট: ১৩:৫০ ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৯

আড়িয়াল বিল

আড়িয়াল বিল

দু’পাশে গ্রাম। ট্রলার এগিয়ে চলছে স্বচ্ছ জলে। ঠিক তাও নয়, বিশাল জলরাশির বুকে হাজারো সাদা শাপলা হাসছে মিটমিট করে। আবার কোথাও কোথাও দেখা মিলে কচুরিপানা, জেলেদের মাছ ধরার দৃশ্য কিংবা ঝাঁকে ঝাঁকে হাঁস। সবচেয়ে অবাক লাগে, জলরাশির দিকে মনোযোগ দিলে! পানির রঙ কখনো নীল, কখনো সাদা; আবার অনেক সময় কালোও মনে হয়। ক্ষণে ক্ষণে বৃষ্টি নামে, কখনো ঝকঝক করে ওঠে রোদে। সবুজে সমারোহে বুদ হয়ে পড়ছে জোড়া চোখ। নীলচে পানিতে স্পষ্ট হওয়া সাদা মেঘের প্রতিবিম্ব দেখে যে কেউ মায়াবী জগতের ভাবনায় ডুবে যেতে পারবে। আর এই মায়াবী জগতে যেতে চাইলে আপনাকে যেতে হবে মুন্সিগঞ্জের আড়িয়াল বিলে।

আগস্ট থেকে অক্টোবর পর্যন্ত বিলের চারপাশ পানিতে থৈ থৈ করে। বিশাল জলরাশির মাঝে ভিটার ওপর ঘরগুলো মাথা তুলে আছে, সঙ্গে মাথা তুলে হাঁক দিচ্ছে বুক অথবা মাথা সমান পানিতে নিমজ্জিত বড় বড় গাছ। বিলের লোকজনকে এক ঘর থেকে অন্য ঘরে, এক পাড়া থেকে অন্য পাড়ায়, মসজিদ, মন্দির ও বাজারে যাওয়ার জন্য ঘরের দরজা থেকেই ডিঙ্গি নৌকায় পারাপার হতে হয়। আবার কেউ কলা গাছের ডেম দিয়ে বিশেষ কায়দায় ভেলা তৈরি করে পারাপার হচ্ছে।

এই সময়ে যে দিকে চোখ যায় শুধু পানি আর পানি। দূরপানে যেন বিলের পানি স্পর্শ করে আছে নীল দিগন্ত। বানের জলে খেত-খামার সব অদৃশ্য! দূরে বিলের মাঝ দরিয়ায় কয়েকটি শঙ্খচিল, কানিবক, মাছরাঙা, ডাহুক, পাতিহাঁস ও নাম নাজানা অতিথি পাখি ওড়াউড়ি দেখা যায়। মোটকথা বর্ষা ও শরতে নৌকায় চড়ে আড়িয়াল বিল ভ্রমণ সবচেয়ে সুন্দর দৃশ্যগুলো উপভোগ করার একটি উপযুক্ত সময়।

আড়িয়াল বিল

বর্ষা আর শরতে বোনাস হিসেবে উপভোগ করতে পারবেন শাপলা ফুলের সৌন্দর্য। এখানে এলেই চোখে পড়বে স্থানীয় অনেকে শাপলা তুলছেন। কেউ একমনে শাপলা গোছাতে ব্যস্ত। বর্ষা মৌসুমে ভোর থেকে বিকেল পর্যন্ত তারা শাপলা তোলেন। ঢাকা থেকে ব্যবসায়ীরা সেগুলো সংগ্রহ করে নিয়ে যায়।

এই মৌসুমে সম্ভব না হলে, শীতকালে যাওয়ার পরিকল্পনা করতে পারেন। এই বিলের সৌন্দর্য শীতেও কম নয়। আড়িয়াল বিলে ধান চাষ বেশি হয়। তবে মিষ্টি কুমড়া, লাউ, ঢেঁড়স, পটলসহ বিভিন্ন রকম সবজি উৎপন্ন হয়। ফলে বিস্তীর্ণ সবুজ ফসলের মাঠ নিশ্চিতভাবে সবার মন কাড়ে। আর অতিথি পাখি তো আছেই!

যেভাবে যাবেন

ঢাকার গুলিস্তান থেকে মাওয়াগামী বাসে উঠে শ্রীনগরের ছনবাড়ি চৌরাস্তায় নামতে হবে। ভাড়া নেবে ৯০-১২০ টাকা। সেখান থেকে অটোরিকশা নিয়ে যেতে হবে গাদিঘাট গ্রাম। অথবা শ্রীনগর বাজার থেকে ট্রলার ভাড়া নিয়ে বিল ঘুরে দেখা যাবে। ঢাকা থেকে সকালে রওনা দিয়ে আড়িয়াল বিলে বেড়িয়ে আবার বিকালের মধ্যে ঢাকায় ফেরা যায়। দুপুরে খাবারের উদ্দেশে মাওয়াতেও বেড়িয়ে আসতে পারেন। শিমুলিয়া ঘাটে নিতে পারেন তাজা ইলিশের স্বাদ।

ডেইলি বাংলাদেশ/এনকে