ঝিনাইগাতীতে ১৩৬ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে নেই শহীদ মিনার

ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ২৭ জুন ২০১৯,   আষাঢ় ১৩ ১৪২৬,   ২২ শাওয়াল ১৪৪০

ঝিনাইগাতীতে ১৩৬ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে নেই শহীদ মিনার

ঝিনাইগাতী(শেরপুর) প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৬:০২ ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৯  

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

শেরপুরের ঝিনাইগাতীতে ডিগ্রী কোর্স চালু আছে এমন কলেজসহ ১৩৬টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নেই শহীদ মিনার। অথচ সরকারিভাবে প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে একুশে ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালনের নির্দেশনা রয়েছে।

শহীদ মিনার না থাকায় ভাষা শহীদদের প্রতি ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানাতে পারছে না শিক্ষার্থীরা। তবে সদরের বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা শিক্ষার্থীদের নিয়ে দূরে গিয়ে উপজেলা কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে শ্রদ্ধাঞ্জলি জানান।

 এ উপজেলায় ৭টি কলেজের মধ্যে শহীদ মিনার আছে ১টি কলেজে, মাধ্যমিক ও মাদ্রসা মিলে ৩৭টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান থাকলেও মাত্র ৭টি বিদ্যালয়ে শহিদ মিনার আছে, তবে কোনো মাদ্রসায় নেই শহিদ মিনার এবং ১০১টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মধ্যে শহীদ মিনার আছে মাত্র একটি প্রতিষ্ঠানে।

সরেজমিন দেখা যায়, উপজেলা কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারসহ  ৯টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শহীদ মিনার যদিও আছে তাতেও রয়েছে অযত্ম-অবহেলা। শুধু মাত্র ২১ ফেব্রুয়ারি, ২৬ মার্চ ও মহান ১৬ ডিসেম্বর উপলক্ষে শহীদ মিনার বিভিন্নভাবে পরিস্কার ও মেরামত করা হয়। এ সব দিবসের আগে বা পরে কেউ শহীদ মিনারের খবর রাখে না। শহীদ মিনার বিহীন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা শহীদ মিনার নির্মাণের দাবি জানিয়েছেন।

উপজেলার ধানশাইল বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নূর এ আলম সিদ্দিকী বলেন, তার বিদ্যালয়ে শহীদ মিনার না থাকায় প্লেন সিট বা বাঁশ দিয়ে অস্থায়ীভাবে শহীদ মিনার নির্মাণ করে শিক্ষার্থীদের নিয়ে শ্রদ্ধাঞ্জলি দেন। পরে বিদ্যালয়ে সংক্ষিপ্ত ভাষা দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভার আয়োজন করেন। 

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোস্তফা কামাল বলেন, সরকারিভাবে বিদ্যালয়ে শহীদ মিনার নির্মাণের বাধ্য বাধকতা রয়েছে। কিন্তু সরকারি কোনো বরাদ্দ না থাকায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের নিজস্ব তহবিল থেকে নির্মাণ করতে হবে।

ইউএনও রুবেল মাহমুদ বলেন, যে সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শহীদ মিনার নেই। ওই প্রতিষ্ঠানগুলোতে শহীদ মিনার নির্মাণের বিষয়ে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএইচ