ঝিনাইগাতীতে বাড়ি ছেড়ে পালালেন করোনা আক্রান্ত নারী

ঢাকা, শুক্রবার   ১০ জুলাই ২০২০,   আষাঢ় ২৬ ১৪২৭,   ১৮ জ্বিলকদ ১৪৪১

Beximco LPG Gas

ঝিনাইগাতীতে বাড়ি ছেড়ে পালালেন করোনা আক্রান্ত নারী

ঝিনাইগাতী (শেরপুর) প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৬:৪৪ ৩ জুন ২০২০  

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

শেরপুরের ঝিনাইগাতীতে বাড়ি ছেড়ে পালিয়ে গেলেন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত এক নারী।

বুধবার বিকালে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা (ইউএইচএফপিও) ডা. মো. জসিম উদ্দিন তার পালিয়ে যাওয়া বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। 

বাড়ি ছেড়ে পালিয়ে যাওয়া রোগী ধানশাইল ইউপির বাগেরভিটা এলাকার বাসিন্দা।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার ডা. আহেদ ইকবাল জানান, মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরীক্ষাগার থেকে পাঠানো প্রতিবেদনে এ উপজেলায় সাংবাদিক, একনারীসহ তিনজনের শরীরে করোনাভাইরাস ধরা পড়ে। 

আক্রান্তদের মধ্যে একজন সাংবাদিক। অপর একজন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের এক নার্সের স্বামী। তিনি ভেটেনারি সার্জন এবং নারায়ণগঞ্জে কর্মরত। 

এ ছাড়া আক্রান্তদের মধ্যে ধানশাইল ইউপির বাগেরভিটা গ্রামের এক নারী রয়েছেন। তার শরীরে করোনাভাইরাস শনাক্ত হওয়ার পর নিজ বাড়িতেই হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার নির্দেশনা প্রদান করা হয়।

সাংবাদিক ও ভেটেনারি সার্জন নির্দেশনা মেনে বাড়িতে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকলেও আক্রান্ত নারী হোম কোয়ারেন্টাইন না মেনে পালিয়ে গেছেন। ওই নারীকে অনেক খোঁজাখুঁজি করেও পাওয়া যাচ্ছে না।

এদিকে আক্রান্ত সাংবাদিকের পরিবারের চার সদস্যসহ ১৭ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকাল নয়টার মধ্যেই ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজে পাঠানো হবে। তাদের নমুনা সংগ্রহের পর তাদের পরিবারের সদস্যদের হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকতে বলা হয়েছে।

ধানশাইল ইউপি চেয়ারম্যান মো. শফিকুল ইসলাম বলেন, বাগেরভিটা এলাকায় করোনা শনাক্ত রোগীকে খোঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। তার বাড়ির লোকজনও কোনো সন্ধান দিতে পারছে না। তাই ইউপি সদস্য ও গ্রামপুলিশসহ এলাকার লোকজনকে খুঁজতে বলে দিয়েছি।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা (ইউএইচএফপিও) ডা. মো. জসিম উদ্দিন বলেন, করোনা আক্রান্ত হয়ে এলাকা থেকে পালিয়ে যাওয়া খুবই দুঃখজনক। মানুষ নিজে নিজে সচেতন না হলে করোনাভাইরাস পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করা খুবই কঠিন।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএইচ