.ঢাকা, বুধবার   ২০ মার্চ ২০১৯,   চৈত্র ৫ ১৪২৫,   ১৩ রজব ১৪৪০

উগান্ডার তারকা আফ্রিদির ভাতিজা

স্পোর্টস ডেস্ক :: sports-desk

 প্রকাশিত: ২০:০৬ ৯ নভেম্বর ২০১৮   আপডেট: ২০:০৬ ৯ নভেম্বর ২০১৮

ছবি সংগৃহীত

ছবি সংগৃহীত

ক্রিকেট সমর্থকদের কাছে শহীদ আফ্রিদি নাম অপরিচিত নয়। পাকিস্তানের এই ক্রিকেটার ক্রিকেট বিশ্বের অন্যতম জনপ্রিয় এক অলরাউন্ডার। অন্যদিকে ইরফান আফ্রিদি আরেকজন ক্রিকেট তারকা। তবে খেলে থাকেন উগান্ডা জাতীয় দলে। ক্রিকেটার হিসেবে পরিচিতির চেয়ে তারকা হয়ে উঠেছেন শহীদ আফ্রিদির নামে। কারণ, তিনি যে পাকিস্তানের সেই আফ্রিদিরই ভাতিজা। 

সম্প্রতি ইনজামাম উল হকের ভাতিজা ইমাম উল হক পাকিস্তান জাতীয় দলের হয়ে সুখ্যাতি কুড়িয়ে যাচ্ছেন। অন্যদিকে আফ্রিদির ভাতিজা ইরফান উগান্ডা ক্রিকেট দলের ভরসার অন্যতম নাম। চাচার মতোই তিনি স্পিনার।

২০১৩ সালে ২৮ বছর বয়সে উগান্ডায় পাড়ি জমান ইরফান আফ্রিদি। এর তিন বছর পর ২০১৬ সালে কাতারের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে আফ্রিকান দেশটির জার্সিতে ক্রিকেটে অভিষেক হয়। অথচ উগান্ডায় পাড়ি জমানোর আগে ইরফানের ক্রিকেট খেলার কোনো অভিজ্ঞতা ছিল না। চাচা বিশ্বসেরা তারকাদের একজন হলেও ৩৩ বছর বয়সী ইরফান পাকিস্তানের ঘরোয়া ক্রিকেটে পর্যন্ত খেলেননি কোনোদিন।

ইরফানের জন্ম, বেড়ে ওঠা সবকিছুই পাকিস্তানের করাচিতে। উগান্ডায় মূলত ব্যবসা করতে গিয়েছিলেন ইরফান। সেখান থেকেই উগান্ডার জাতীয় দলে।

কিন্তু উগান্ডায় শখের বশে প্রথমবারের মতো ক্রিকেট বল হাতে নেন ইরফান। বল হাতে নিয়েই দেখলেন চাচার মতো গুগলি বলটা ভালোই ছুঁড়তে পারেন! সেখানেই উগান্ডার সাবেক পেসার আসাদু সেইগার চোখে পড়েন তিনি। এরপরই নিয়মিত ক্লাব ক্রিকেটে খেলতে খেলতে ডাক পেয়েছেন উগান্ডা জাতীয় দলেও।

২০১৬ সালে ৩১ বছর বয়সে উগান্ডার হলুদ জার্সি গায়ে ওঠে ইরফানের। দুই বছর ধরে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেললেও চলতি বছর মালয়েশিয়ায় অনুষ্ঠিত ওয়ার্ল্ড ক্রিকেট লিগের ডিভিশন ফোরে নিজের জাত চেনান এই স্পিনার।

সেখানে টুর্নামেন্ট সর্বোচ্চ ১৫ উইকেট নেন ইরফান। দলকে চ্যাম্পিয়নও করেন তিনি। শুধু স্পিন নয়, চাচার মতো ব্যাট হাতেও বেশ কার্যকরী ইরফান। উগান্ডার হয়ে ৭১ বলে ১০৮ এবং ১৭ বলে ৫১ রানের মতো ম্যাচ জেতানো ইনিংস আছে তার।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমএইচ